আর্ন্তজাতিক নারী দিবসে মৌলভীবাজারে যাত্রা শুরু করেছে কইন্যা নারীদের হাট

মৌলভীবাজার জেলা প্রতিনিধিঃঃ

“আর্ন্তজাতিক নারী দিবসে” মৌলভীবাজারে যাত্রা শুরু করেছে “কইন্যা-নারীদের হাট”। ব্যতিক্রমী এই হাটের আয়োজন করেছে মৌলভীবাজার সদর উপজেলা প্রশাসন ও যৌথভাবে লেডিস ক্লাব। ধীরে ধীরে এই হাট সারা জেলাব্যাপি প্রসারিত হবে বলে আয়োজকরা জানিয়েছেন। গত মঙ্গলবার (৮ই মার্চ) দুপুরের পর মৌলভীবাজার সদর উপজেলার চাঁদনীঘাট ইউনিয়ন পরিষদ প্রাঙ্গণে এই হাটের উদ্বোধন করেন মৌলভীবাজার লেডিস ক্লাবের সভাপতি কবিতা ইয়াসমিন। আয়োজকদের বরাত দিয়ে জানান, পরিবারে স্বচ্ছলতা ফেরাতে কিংবা শখের বশে নারীরা দৈনন্দিনের সাংসারিক কাজের পাশাপাশি অবসর সময়ে অনেক ধরনের কাজ হাতের কাজ করেন।

নারীদের উৎপাদিত ও তৈরিকৃত এরকম নানাবিধ পণ্য নিয়ে এই হাটে বসবে। সপ্তাহে দু’দিন করে সারা বছর এই হাট বসবে এখানে। এই হাটের ক্রেতা ও বিক্রেতা থাকবেন শুধুমাত্র নারী।

মৌলভীবাজার সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সাবরিনা রহমান বাঁধনের সভাপতিত্বে এতে উপস্থিত ছিলেন জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা খোদেজা খাতুন, স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক মল্লিকা দে, জেলা প্রশাসনের সিনিয়র সহকারী কমিশনার নুসরাত লায়লা নীরা, চাঁদনীঘাট ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আখতার উদ্দিন, বিসিক প্রতিনিধিসহ বিভিন্ন উদ্যোক্তারা। প্রথমদিন এই আয়োজনে ৬টি স্টল স্থান পেয়েছে। স্টলে নারী উদ্যোক্তা নাফিজা ফিরোজ বলেন, আমি আগে বাসায় মজার মজার খাবার তৈরী করতাম।

বাসার সবাই খাবার খেয়ে প্রশংসা করতেন। তারা আমাকে অনুপ্রাণিত করেন খাবারের দোকান দেয়ার জন্য। তারপর আমি ছোট পরিসরে পিঠাসহ বিভিন্ন জায়গার ঐতিহ্যবাহী মিষ্টি ও দধি নিয়ে দোকান শুরু করি। আজ আমি নিজের হাতে তৈরী পিঠা এই হাটে তুলেছি। এরমধ্যে রয়েছে পায়েস, কাটলেট, বরফি, হালুয়াসহ নানা মিষ্টি জাতীয় খাবার। আগামীতে চাহিদা বাড়লে আরো নানা ধরনের পিঠা তুলবো।

আগত নারী উদ্যোক্তা তুলি আহমেদ বলেন, হ্যান্ডিক্রাফট পণ্য তৈরী করি আগে বিভিন্ন মেলায় স্টল দিতাম। এখন অনলাইনে পণ্য বিক্রি করি। এখানে খুব ভালো উদ্যোগ। স্থায়ী একটা হাট হয়েছে। যেখানে দোকান দিতে কোন টাকা দিতে হয় না। আজকে কইন্যা নারীদের যে হাট উদ্বোধন হলো তাতে করে আমাদের উৎপাদিত পণ্য আরো বড়ো পরিসরে বিক্রির জন্য সুযোগ তৈরী হলো। আশা করি উদ্যোক্তারা এই আয়োজন সারা বছরের জন্য চলমান রাখবেন। নারী উদ্যোক্তা ও আয়োজক মিতা ভূইঁয়া বলেন, আমরা নারীরা সব সময় কিছু না কিছু তৈরী করতে পছন্দ করি।

কিন্তু এই কাজগুলো উপস্থাপন করার তেমন কোন সুযোগ পাইনা। আজকে কইন্যা নারীদের যে হাট উদ্বোধন হলো এটা আমাদের জন্য উপস্থাপন করার জন্য খুব ভালো উদ্যোগ ও স্থান তৈরি হলো। তিনি বলেন, যেহেতু আমি একজন সংগঠক প্রতিনিয়ত নারীদের নিয়ে মেলা আয়োজন করে থাকি। আমি দেখি নারীরা সব সময় সুযোগ খুঁজে। সবচেয়ে বড় বিষয় হল এখানে ফ্রি’তে তারা তাদের পণ্য বিক্রি করতে পারবেন। উদ্যোক্তাদের বলবো এখানে এসে স্টল দেয়ার জন্য।

মৌলভীবাজার সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সাবরিনা রহমান বাঁধন বলেন, আমরা নারীদের একটি নিরাপদ জায়গা করে দিয়েছি। এই ইউনিয়নের ভেতরে এখানে নারীদের কোন সমস্য হবে না। শুধুমাত্র নারীদের জন্য এই হাট। এখানে ক্রেতা বিক্রতা থাকবেন শুধু নারী। নারীরা চাইলেই যেখানে সেখানে দোকান দিতে পারেনা। এখানে আজ হাট উদ্বোধন হয়েছে। এখন এটা আপনাদের বাজার। এখানে এসে পণ্য বিক্রয় করবেন।

আপনারা দোকান নিয়ে না বসলে এই বাজার বন্ধ হয়ে যাবে। লেডিস ক্লাবের সভাপতি কবিতা ইয়াসমিন বলেন, শুধুমাত্র আজকের জন্য তা নয়। বছরব্যাপী সপ্তাহে দু’দিন চলবে। নারীরা আর্থিকভাবে স্বচ্ছল হতে পারবেন এ হাটের মাধ্যমে কিছুটা হলেও সুযোগ তৈরি করে নিতে পারবেন।

Loading...