শ্রীমঙ্গল উপজেলা পরিষদের উপনির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থীর ভোট বর্জন

মৌলভীবাজার জেলা প্রতিনিধিঃঃ

মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গল উপজেলা পরিষদের উপনির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী প্রেম সাগর হাজরা ভোট বর্জন করেছেন। এজেন্ট ও সমর্থকদের মারধর, কেন্দ্র থেকে বের করে দেওয়া, নৌকা প্রতীক দেখিয়ে ভোট দিতে বাধ্য করা, ভোটারদের ভয়ভীতি প্রদর্শনসহ নানা অভিযোগ এনে ভোট বর্জনের ঘোষণা দেন তিনি।

আজ বৃহস্পতিবার দুপুর ৩.৪৫টায় ভোট বর্জনের ঘোষণা দিয়ে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, ‘নৌকার প্রার্থী ভানু লাল রায়ের লোকজন প্রতিটি কেন্দ্র থেকে আমার এজেন্টদের বের করে দিয়েছে এবং মারধর করেছে। আমি খবর পেয়ে প্রশাসনের সহযোগিতায় এজেন্টদের আবার কেন্দ্রে ফেরাই। কিন্তু, প্রশাসন চলে গেলে, তারা আবার আমার এজেন্টদের মারধর করে, আমাদের লোকজনদের মারধর করে এবং ভোটারদের হুমকি দিয়েছে। এমনকি নৌকা প্রতীক দেখিয়ে ভোট দিতে বাধ্য করেছে।

‘শ্রীমঙ্গল পরিষদে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামীলীগের স্বতন্ত্র প্রার্থী প্রেমসাগর হাজরা (আনারস) বলেন, দুপুরের পর আমার এজেন্টদের বিভিন্ন কেন্দ্র থেকে বের করে দেয় সরকারি দলের ছাত্রলীগ,যুবলীগ ও আওয়মীলীগের নেতাকর্মীরা। তাছাড়া আমার ভাই ও আমার সমর্থককে মারধর করে রক্তাক্ত জখম বিভিন্ন ভোট কেন্দ্রে। বিশেষ উপজেলার আশ্রিদ্রোন ইউনিয়নের ভোট কন্দ্রে ও পৌরসভাসহ অধিকাংশই কেন্দ্র ভোটারদের ব্যালট ছিনিয়ে নিয়ে সরকারি দলের লোকজন বাক্স ভরেছেন। ভোটে চরম অনিয়ম হওয়ায় ভোট বর্জন করেছি। এখানে থেকে যারা নৌকা নিয়ে এমপি নির্বাচিত হয়েছেন তারা কখনও চা শ্রমিকদের ভোটে এমপি হতে পারবেন না। অভিযোগ লিখিতভাবে নির্বাচন কমকর্তাকে দেয়া হবে বলেও জানান তিনি।

এ অবস্থায় ভোটের পরিবেশ না থাকায় আমি ভোট বর্জন করেছি,’ বলেন তিনি।

এব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে নৌকার প্রার্থী ভানু লাল রায়  তার লোকজনের বিরুদ্ধে স্বতন্ত্র প্রার্থী প্রেম সাগর হাজরার অভিযোগ অস্বীকার করেন।

এবিষয়ে জানতে চাইলে উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা তপন জ্যোতি অসীম বলেন, ‘প্রেম সাগর হাজরা ভোট বর্জন করেছেন কি না আমার জানা নেই। তিনি এখনও লিখিত বা মৌখিকভাবে কিছু জানাননি। তবে, অনেক অভিযোগ আমলে নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিয়েছি।’

Loading...