তৃণমূলে কর্মরত গণমাধ্যমকর্মীদের সুরক্ষা বিষয়ে আর্টিকেল নাইনটিনের উদ্বেগ হামলার ঘটনায় জড়িতদের দ্রুত বিচার নিশ্চিতের দাবি

রংপুর রিপোর্টার্স ক্লাবে নারী সাংবাদিকের ওপর হামলা

পূর্ব ঘোষিত দ্বিবার্ষিক সাধারণ সভা শেষে রংপুর রিপোর্টার্স ক্লাবের সাহিত্য ও সংস্কৃতি বিষয়ক সম্পাদক আফরোজা সরকারসহ ৫ সাংবাদিকের ওপর বহিরাগত সন্ত্রাসীদের হামলার ঘটনায় গভীর উদ্বেগ ও তীব্র নিন্দা প্রকাশ করেছে আর্টিকেল নাইনটিন। তৃণমূল পর্যায়ে কর্মরত গণমাধ্যকর্মীরা বিশেষ করে নারী সাংবাদিকরা কতটা নিরাপত্তাহীন ক্লাবের অভ্যন্তরে প্রকাশ্যে এই হামলায়  সেই দু:খজনক চিত্রই ফুটে উঠেছে। এ ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে হামলায় জড়িত সকলের দ্রুত গ্রেপ্তার ও বিচার নিশ্চিতের জোর দাবি জানিয়েছে আর্টিকেল নাইনটিন।

গণমাধ্যম সূত্রে জানা গেছে, গত ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১ তারিখ বিকেলে রংপুর রিপোর্টার্স ক্লাবের সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভার শেষে কিছু বহিরাগত সন্ত্রাসী এসে অতর্কিত হামলা চালায় ।এসময় তারা ক্লাবের সদস্যদেরকে মারধর করতে শুরু করে। এতে ক্লাবের ৫ জন সদস্য আহত হন। আহতদের মধ্যে ক্লাবের নবনির্বাচিত যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আজম পারভেজ ও সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক আফরোজো সরকারের অবস্থা গুরুতর। তারা বর্তমানে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। হামলাকারীরা এসময় চেয়ার, টেবিল, ফ্যানসহ বিভিন্ন আসবাবপত্র ভাঙচুর করে।

 

আর্টিকেল নাইনটিন বাংলাদেশ ও দক্ষিণ এশিয়ার আঞ্চলিক পরিচালক ফারুখ ফয়সল বলেন, ‘‘এ ধরনের ঘটনা কেবল স্বাধীন সাংবাদিকতার পরিবেশের জন্য হুমকি নয়, বরং সামগ্রিকভাবে দেশে নারীর নিরাপত্তার করুণ চিত্র তুলে ধরে। প্রান্তিক পর্যায়ে কর্মরত গণমাধ্যমকর্মীরা বিশেষ করে নারীরা এমনিতেই নানা বৈষম্য ও অবহেলার শিকার। আমরা আফরোজাসহ আহত সকল সাংবাদিকের চিকিৎসার দায়িত্ব নেওয়ার জন্য স্থানীয় প্রশাসনের প্রতি আহ্বান জানাই। একই সঙ্গে প্রশাসনের কাছে এই ঘটনার নিরপেক্ষ তদন্ত করে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানাই।

 

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন নারী সাংবাদিক আফরোজা সরকার আজ মুঠোফোনে আর্টিকেল নাইনটিনকে বলেন, ’প্রতিকূলতা মেনে নিয়েই সাংবাদিকতা পেশায় এসেছিলাম। আমি সদস্যদের ভোটে দুইবার ক্লাবের সাহিত্য ও সংস্কৃতি বিষয়ক সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছি। হামলায় শারীরিক আঘাতের চাইতেও মানসিক যন্ত্রণা বেশি হচ্ছে। আমাকে যেভাবে লাঞ্ছিত করা হয়েছে, একজন নারীর জন্য তা অবমাননাকর। আমি এই হামলার বিচার চাই।’’

 

আর্টিকেল নাইনটিন বাংলাদেশ ও দক্ষিণ এশিয়ার আঞ্চলিক পরিচালক ফারুখ ফয়সল বলেন, ‘’সরকার জাতিসংঘসহ বিভিন্ন আন্তর্জাতিক পরিসরে গণমাধ্যমের স্বাধীনতা ও সাংবাদিকদের সুরক্ষা প্রদানের অঙ্গীকার করলেও বাস্তবতা বদলায়নি। বাংলাদেশে বিচারহীনতার একটা সংস্কৃতি চলছে। এতে ধারণা জন্মেছে যে, সাংবাদিকদের নির্যাতন করলে কিছু হয় না। এই প্রবণতা গণমাধ্যমের স্বাধীনতা ও এর কর্মীদের সুরক্ষার বিষয়টিকে নাজুক করে দিয়েছে, যা অত্যন্ত উদ্বেগজনক।’’ তিনি রংপুরে এ হামলার ঘটনাসহ সাংবাদিকদের প্রতি সহিংসতার প্রত্যেকটি ঘটনায় জড়িতদের দ্রুত বিচার নিশ্চিত করার পাশাপাশি আন্তর্জাতিক মানদণ্ড অনুসরণ করে সাংবাদিক ও মতপ্রকাশকর্মীদের সুরক্ষা নিশ্চিত করতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান।

 

 

 

 

সংবাদ বিবৃতি ।।

Loading...