নিউইয়র্কে বাংলাদেশী উবার চালক আসাদ উজ জামান রিপন সন্ত্রাসী হামলার শিকার

নিউইয়র্ক থেকে সংবাদদাতাঃঃ

নিউইয়র্কের ব্রঙ্কসে বাংলাদেশী উবার চালক মো. আসাদ উজ জামান রিপন সন্ত্রাসী হামলার শিকার হয়েছেন। তিনি পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে গত রোববার গভীর রাতে দুর্বৃত্তদের হামলায় মারাত্মকভাবে জখম হন। হামলার পর তাকে ব্রঙ্কসের মান্টিফিউর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।
ভিকটিম আসাদ উজ জামান রিপন এ প্রতিবেদককে জানান, স্থানীয় সময় গত রোববার রাত প্রায় পৌনে ১২টার দিকে তিনি ব্রঙ্কসের ২০৭ স্ট্রিট এবং ডিকেটর এলাকায় অতর্কিত হামলার শিকার হন।

যাত্রী পিকআপে যাওয়ার পথে ওই এলাকায় স্টপ সাইনে দাঁড়ানো অবস্থায় পেছন থেকে অন্য একটি তার গাড়িতে প্রচন্ডভাবে ধাক্কা মারে। তিনি তার গাড়ীর দরজা খুলে ক্ষয়-ক্ষতি হয়েছে কিনা দেখতে নামলে ধাক্কা মারা গাড়ি থেকে বলা হয় ’তোর গাড়ির কিছুই হয়নি’, তাড়াতাড়ি মোভ কর। এ সময় তিনি পুলিশে কল করার কথা বলা মাত্রই তার চোকে-মুখে এলোপাতাড়ি কিল-ঘুষি মারেন দু’সন্ত্রাসী।

রক্তাক্ত অবস্থায় তাকে ফেলে দিয়ে সন্ত্রাসীরা তাদের গাড়ি নিয়ে পালিয়ে যায়। এসময় আসাদ উজ জামান রিপন ৯১১ এ কল দিলে পুলিশ সাথে সাথে এসে তাকে রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করে ব্রঙ্কসের মান্টিফিউর হাসপাতালে নিয়ে যায়। হাসপাতালে চিকিৎসা শেষে তাকে সোমবার সকাল ৭টায় রিলিজ দেয়া হয়। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত এ ঘটনায় কেউ গ্রেফতার হয়নি বলে জানা গেছে।
আসাদ উজ জামান রিপন জানান, তিনি ২০১৪ সালে যুক্তরাষ্ট্র অভিবাসী হন। বর্তমানে স্ত্রী, ১ ছেলে ও ১ মেয়ে নিয়ে ব্রঙ্কসের ২৭৬১ ব্রিগস এভিনিউ এলাকায় বসবাস করছেন। তাদের দেশের বাড়ি নাটোরের শিংড়ায়।

তিনি নিউইয়র্কের বিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনের সাথে সম্পৃক্ত।
এদিকে, এ হামলার খবর পেয়ে আসাদ উজ জামান রিপনের বাসায় ছুটে যান কমিউনিটির নেতারা। তার ওপর সন্ত্রাসী হামলার ঘটনায় ক্ষোভ, নিন্দা প্রকাশ ও হামলাকারীদের অবিলম্বে গ্রেফতারের দাবি জানিয়েছেন নিউইয়র্ক সিটি কাউন্সিলে আসন্ন ডেমোক্র্যাটিক প্রাইমারী নিবার্চনে ডিস্ট্রিক্ট ১৮ এর প্রার্থী মোহাম্মদ এন মজুমদার, বৃহত্তর রাজশাহী সমিতির সাধারণ সম্পাদক মোজাফফর হোসেন, বাংলাদেশী-আমেরিকান ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক সোসাইটি-ব্যান্ডস’র সাধারণ সম্পাদক মো. শামীম মিয়া ও জালালাবাদ এসোসিয়েশনের সহ সভাপতি মঞ্জুর চৌধুরী জগলুল। নেতৃবৃন্দ বলেন, এর আগেও নিউইয়র্কে সন্ত্রাসী হামলার শিকার হয়েছেন বেশ ক’জন প্রবাসী বাংলাদেশী। সকল সন্ত্রাসী ঘটনার সুষ্ঠু বিচার দাবি করেন তারা।

Loading...