গোলাপগঞ্জে পশ্চিম মদন গৌরী ও দাউদপুর সংযোগ রাস্তার মুখ পরিবর্তন না করতে এলাকাবাসীর আবেদন

গোলাপগঞ্জ প্রতিনিধি: 

গোলাপগঞ্জের ফুলবাড়ি ইউনিয়নের দড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সম্মুখ হতে পশ্চিম মদন গৌরী ও দাউদপুর সংযোগ রাস্তা (এলজিইডি আইডি নম্বর-৬৯১৩৮৫০৮৮)এর সম্মুখ অংশের মোড় পরিবর্তন না করতে ইউপি চেয়ারম্যানের বরাবর এলাকাবাসী আবেদন করেছেন। বুধবার ফুলবাড়ি ইউনিয়নের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান মজনু মিয়ার নিকট এ আবেদনটি এলাকাসীর পক্ষে করেন মোঃ হাবিবুর রহমান। 

আবেদন সূত্রে জানা যায়, উপজেলার ৩নং ফুলবাড়ী ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের অন্তর্গত দড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় হতে পশ্চিম মদন গৌরী ও দাউদপুর সংযােগ রাস্তাটি যুগ যুগ ধরে জনচলাচলের জন্য ব্যবহৃত হচ্ছে। এ রাস্তা দিয়ে (মৌজা- দড়া, এজএল নং ৩৮, সাবেক দাগ ৩৫৯২ এর মধ্য দিয়ে, হাল দাগ ৫৪৩৩ এর উত্তর সীমা) দক্ষিণ সুরমা ও গােলাপঞ্জের উভয় উপজেলার শত শত লােক চলাচল করে যাচ্ছেন। রাস্তা পাকা করণ হওয়ার জন্য স্কীম গ্রহণ করা হয়েছে।  রাস্তাটির সম্মুখ অংশে প্রায় ২০০/৩০০ ফুট রাস্তা  ভূমির উপর দিয়ে অবস্থিত হওয়ায় রাস্তার দক্ষিণ দিকের দাগের মালিক আং আহাদ গং এর প্রতিনিধি হিসাবে কুতুব উদ্দিন (কটাই) ও মজমিল আলী তাদের ব্যক্তি স্বার্থে রাস্তার অংশটুকু কেটে  রাস্তাটির মােড় অন্যদিকে নেওয়ার জন্য অপচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।

স্থানীয় জনগণ ও স্থানীয় ইউপি সদস্যের সহযোগিতার মাধ্যমে তারা যে কোন সময় রাস্তা কেটে রাস্তাটির মােড় তাদের সুবিধামত অন্যদিকে নিয়ে যাবেন বলে বিভিন্ন সূত্রে জানা যাচ্ছে। 

রাস্তাটিতে বারবার সরকারী মাটি দ্বারা সংস্কারের কাজ হয়েছে। জন চলাচলের রাস্তা জনগনের মতামত ও সরকারের অনুমতি ছাড়া রাস্তা মোড় পরির্তনের সিদ্ধান্ত বেআইনি বলে এলাকাবাসী আবেদনে উল্লেখ করেন।  

আবেদনে আরো উল্লেখ করা হয়, রাস্তার এ অংশের মােড় অন্যদিকে নিয়ে গেলে পার্শ্ববর্তী অন্য মালিকদের ভূমি ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। এছাড়াও নব-নির্মিত রাস্তায় পাকা করন কাজ টেকসই হবে না। এতে পাকাকরণ কাজে বিলম্ব ঘটবে এবং এলাকা বাসী দীর্ঘদিন পাকা রাস্তা থেকে বঞ্চিত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

এ ব্যাপারে এলাকাবাসীর পক্ষে আবেদনকারী মোঃ হাবিবুর রহমান জানান,  পেশীশক্তির বলে আইন কানুন বা জনমতের তোয়াক্কা না করে পূর্ব মদন গৌরী গ্রামের মৃত আহমদ আলীর পুত্র কুতুব উদ্দিন (কটাই) ও মজম্মিল আলীর এ রাস্তাটির মুখ পরিবর্তনে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

অভিযুক্ত কটাই মিয়ার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি অভিযোগটি অস্বীকার করে বলেন, আমি আমার জায়গায় মাটি ভরাট করছি। কোন দিকে রাস্তার মোড় যাবে সেটা কর্তৃপক্ষ বুঝবে।

ফুলবাড়ি ইউনিয়নের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান মজনু মিয়ার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি  আবেদনের বিষয়টি নিশ্চিত করেন। 

Sharing is caring!

Loading...
Open

Close