হৃদরোগের সর্বাধুনিক চিকিৎসা পদ্ধতির নাম সাওল : সিভিল সার্জন ডা. প্রেমানন্দ মণ্ডল

বিশ্বের বৃহত্তম নন-সার্জিক্যাল চেইন হার্ট কেয়ার– সাওল হার্ট সেন্টার লি.-এর সিলেট শাখা উদ্বোধন হয়েছে। শনিবার (২৩ জানুয়ারি) সকালে মীরবক্সটুলা, খয়রুন ভবনের দ্বিতীয় তলায় সাওল হার্ট সেন্টার লি.-এর ১০০তম ও সাওল হার্ট সেন্টার (বিডি) লি.-এর ৩য় শাখাটি ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে উদ্বোধন করেন সিলেটের জেলা প্রশাসক এম কাজী এমদাদুল ইসলাম।

উদ্বোধন শেষে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় জেলা প্রশাসক এম কাজী এমদাদুল ইসলাম বলেন, হৃদরোগ চিকিৎসায় সাওল (SAAOL- Science And Art Of Living) কেবল একটি মেডিকেল পদ্ধতি নয়, এটি একটি সামাজিক আন্দোলন। তিনি বলেন, সিলেটবাসীর জন্য অত্যন্ত সুখবর যে- এখানে সাওলের শাখা প্রতিষ্ঠা হলো। এ মহতি উদ্যোগকে এগিয়ে নিতে সাওলকে সর্বাত্মক সহায়তা করবে জেলা প্রশাসন।

সাওল হার্ট সেন্টারের প্রতিষ্ঠাতা ও চেয়ারম্যান- কবি মোহন রায়হান বলেন, ১৯৭১-এর মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় মানুষকে হৃদরোগ মুক্ত রাখার স্বাস্থ্য আন্দোলন হিসেবেই বাংলাদেশে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে সাওল হার্ট সেন্টার। তিনি বলেন, ৬০ বছরের প্রচলিত বাইপাস সার্জারি পদ্ধতির পরিবর্তে বিনা অপারেশনে হৃদরোগ মুক্তি কথাটা শুনে এক সময় আমার বন্ধুরাও চমকে উঠতেন! গত ১২ বছরে আমরা তাদের কাছে সেটা বিশ্বাসযোগ্য করে তুলতে পেরেছি।

মোহন রায়হান বলেন, সাওল হার্ট সেন্টার একটি ছোট্ট প্রতিষ্ঠান। কিন্তু আমাদের স্বপ্ন- বাংলাদেশে প্রথম নন সার্জিক্যাল হার্ট ট্রিটমেন্ট এবং লাইফস্টাইল হাসপাতাল ও মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় গড়ে তোলা।

অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন উপ-পুলিশ কমিশনার (সদর ও প্রশাসন) তোফায়েল আহমেদ, জেলা সিভিল সার্জন ডা. প্রেমানন্দ মণ্ডল এবং এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজের সহকারী অধ্যাপক ও সিলেট বিএমএ-এর সাংগঠনিক সম্পাদক ডা. আজিজুর রহমান রোমান, ডা. কেএম জিল্লুর হাসান প্রমুখ।

উপ-পুলিশ কমিশনার তোফায়েল আহমেদ বলেন, সিলেটে সাওলের শাখা প্রতিষ্ঠা আমার জন্য বিরাট আনন্দের খবর। আমার পরিবারে কয়েকজন হার্টের রোগী আছে। এখন থেকে আমি এবং আমার পরিবার সাওলের চিকিৎসা সেবা নেওয়ার সুযোগ পাব।

জেলা সিভিল সার্জন ডা. প্রেমানন্দ মণ্ডল বলেন, সাওল কেবল হৃদরোগের চিকিৎসা করে না, সেইসাথে জীবনধারা ও খ্যাদ্যাভ্যাস পরিবর্তনের মাধ্যমে মানুষকে নীরোগ করে তোলে। তাই এটা কেবলমাত্র হৃদরোগের চিকিৎসা নয়, এটা একটা পূর্ণাঙ্গ চিকিৎসা ব্যবস্থা। এবং এটাই হলো হৃদরোগের সর্বাধুনিক বিজ্ঞানভিত্তিক চিকিৎসা। তিনি বলেন, সিলেটবাসীর জন্য দিনটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এখন থেকে নতুনধারার এই চিকিৎসার সুফল পাবে সিলেটও।

এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজের সহকারী অধ্যাপক ও সিলেট বিএমএ-এর সাংগঠনিক সম্পাদক ডা. আজিজুর রহমান রোমান বলেন, সাওল চিকিৎসা পদ্ধতির সঙ্গে প্রচলিত অ্যালোপ্যাথি চিকিৎসা কোনোভাবেই সাংঘর্ষিক নয়। বরং একে অপরের পরিপূরক।

তিনি আরো বলেন, জাতীয় বাজেটের প্রায় অর্ধেক পরিমাণ টাকা আমরা বিদেশে গিয়ে চিকিৎসার জন্য ব্যয় করি। কিন্তু সাওল চিকিৎসা পদ্ধতির বিস্তার হলে, হৃদরোগ চিকিৎসার জন্য কাউকে আর বিদেশে যেতে হবে না।

সাওল হার্ট সেন্টার (বিডি) লিমিটেডের সিলেট শাখা উদ্বোধন উপলক্ষে ২৩, ২৪ ও ২৫ জানুয়ারি ৩ দিন সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত ফ্রি চিকিৎসা পরামর্শ দেয়া হচ্ছে।

করোনাকালীন স্বাস্থ্যবিধি মেনে সীমিতআকারে সিলেট শাখা উদ্বোধন অনুষ্ঠানে ভিডিও বার্তা পাঠিয়ে শুভেচ্ছা জানান- সাওল হার্ট সেন্টার, ভারতের প্রতিষ্ঠাতা ডা. বিমল ছাজেড়।

— বিজ্ঞপ্তি ।।

Sharing is caring!

Loading...
Open

Close