টুকেরবাজারে আল-ইত্তেহাদ ইসলামী সমাজ কল্যাণ পরিষদের বিক্ষোভ মিছিল

ফ্রান্সে রাষ্ট্রীয় মদদে মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা:) এর ব্যঙ্গাত্মক কার্টুন প্রদর্শন করার প্রতিবাদে আল-ইত্তেহাদ ইসলামী সমাজ কল্যাণ পরিষদের উদ্যোগে বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়েছে।

শুক্রবার বাদ জুম্মা সিলেট সদর উপজেলা টুকেরবাজারে এক বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

আল- ইত্তেহাদ ইসলামী সমাজ কল্যাণ পরিষদের সভাপতি হাফিজ জুনাইদ আহমদের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক মুফতি জাকারিয়া আহমদ এর পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন- মাওলানা গোলাম রাব্বানী, হাফিজ মাওলানা জসিম উদ্দিন, মাওলানা শাফীর হারুন রশিদ, মাওলানা রায়হান আহমদ, মাওলানা দিলোয়ার হুসাইন ইউনুসিয়া, মাওলানা আব্দুল, খালিক হাবিবী, মাওলানা শরিফ উদ্দিন, মাওলানা বেলাল আহমদ, মাওলানা হাবীবুর রহমান, মাওলানা হুসাইন আহমদ, মাওলানা আব্দুর রহমান, মাওলানা জুবাইর বিন এরশাদ, মাওলানা আরিফুজ্জামান রহমানী, সিলেট জেলা ছাত্রদলের সভাপতি আলতাফ হোসেন সুমন, হাজী নজীর হোসেন, জেলা যুবলীগ নেতা রেজাউর রহমান মোস্তাক, মেম্বার আাব্দুল মালেক, টুকেরবাজার নয়গ্রাম সমাজ কল্যাণ যুব পরিষদের সভাপতি আব্দুস সালাম, মাওলানা ফরিদ উদ্দিন, মাওলানা এনাম আহমদ, মাওলানা কাবুল আহমদ, মোঃ ময়নলু প্রমূখ।

শুরুতে কোরআন তেলাওয়াত মাওলানা জাহিদ আহমদ।

এসময় প্রতিবাদ সভায় মিছিল সহকারে যোগদান করেন তেমুখী বাসস্টান্ডের সর্বস্তরের জনতা, শাহপুর মসজিদের মুসল্লিয়ানে কেরাম, হায়দরপুর মসজিদের মুসল্লি, পীরপুর মসজিদের মুসল্লি, চরুগাঁও মসজিদের মুসল্লি, টুকেরগাঁও মসজিদের মুসল্লি, এবং টুকেরগাঁও (হাজীবাড়ী), গোফাল, শাহপুর দক্ষিণপাড়া, জাঙ্গাইল, গৌরিপুর মসজিদের মুসল্লিরা এবং একটির পর একটি মিছিলে লোকে লোকারণ্য হয়ে পড়ে সিলেট সুনামগঞ্জ রোডের টুকেরবাজার এলাকা। সমাবেশে প্রতিবাদী ইসলামী সংগীত পরিবেশন করে অনুনয় শিল্পীগোষ্ঠী।

হাফিজ আশিকুর রহমানে মোনাজাতের মাধ্যমে বিক্ষোভ সমাবেশ সমাপ্ত হয়।

প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তারা বলেন, ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রো রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায় বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মদ সাঃ’র ‘ব্যাঙ্গচিত্র’ প্রদর্শন করে ইতিহাতে কু-দুষ্টান্ত উপস্থাপন করেছে। তার এই ন্যাক্কারজনক কাজের কারণে সারা বিশ্বে হিংসা ও বিদ্বেষ ছড়িয়ে পড়বে। অবিলম্বে ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ম্যাক্রোকে মুসলমানদের কাছে নিঃশর্ত ক্ষমা চাইতে হবে। নতুবা ফ্রান্সের সাথে মুসলিম রাষ্ট্রগুলোকে সম্পর্ক ছিন্ন করে তাকে একঘরে করতে হবে।

বক্তারা ফ্রান্সের সকল পণ্য বর্জনের আহবান জানান।

— বিজ্ঞপ্তি ।।

Sharing is caring!

Loading...
Open

Close