কাউন্সিলর পদ থেকে বরখাস্ত ইরফান সেলিম

সুরমা টাইমস ডেস্ক::

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) ৩০ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর ইরফান সেলিমকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। নৌবাহিনী কর্মকর্তাকে মারধর ও হত্যাচেষ্টা মামলায় অভিযুক্ত এবং ভ্রাম্যমাণ আদালতে এক বছরের কারাদণ্ড পাওয়ায় তাকে বরখাস্ত করা হয়েছে। ইরফান সেলিম ঢাকা-৭ আসনের সংসদ সদস্য হাজী সেলিমের ছেলে।

মঙ্গলবার (২৭ অক্টোবর) সন্ধ্যায় স্থানীয় সরকার বিভাগ থেকে কাউন্সিলর ইরফান সেলিমকে সাময়িক বরখাস্ত করে প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়।

ইরফান সেলিমের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগগুলো তুলে ধরে উপসচিব আ ন ম ফয়জুল হকের সই করা প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, ইরফানের বিরুদ্ধে বাংলাদেশ নৌবাহিনীর একজন কর্মকর্তা ও তার স্ত্রীর ওপর হামলার অভিযোগে ফৌজদারি মামলা দায়ের করা হয়েছে। বিদেশি মদ পানের দায়ে ভ্রাম্যমাণ আদালত তাকে একবছরের কারাদণ্ড এবং ৫০ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও একমাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছেন।

এতে আরও বলা হয়, অবৈধ ওয়াকিটকি রাখা ও ব্যবহারের দায়ে ভ্রাম্যমাণ আদালত তাকে ছয় মাসের কারাদণ্ড দিয়েছেন। তার বিরুদ্ধে অবৈধ অস্ত্র ও মাদক রাখার দায়ের আরও মামলা দায়েরের কার্যক্রম চলছে।

প্রজ্ঞাপনে স্থানীয় সরকার বিভাগ বলছে, ইরফান সেলিমের এসব কর্মকাণ্ড স্থানীয় সরকার (সিটি করপোরেশন) আইনের ২ (৩৭) ও ১৩ (১) (খ) (ঘ) ধারা অনুযায়ী নৈতিক স্খলনজনিত অপরাধ এবং অসদাচরণের সামিল। এদিকে কোনো কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে নৈতিক স্খলনজনিত অপরাধ ও অসদাচরণের অভিযোগে স্থানীয় সরকার (সিটি করপোরেশন) আইনের ১৩ ধারা অনুযায়ী কার্যক্রম শুরু হলে ওই একই আইনের ১২ (১) ধারা অনুযায়ী অভিযুক্ত কাউন্সিলরকে সাময়িক বরখাস্ত করার বিধান রয়েছে।

এসব কারণেই ইরফান সেলিমকে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) ৩০ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলরের পদ থেকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে বলে জানিয়েছে স্থানীয় সরকার বিভাগ।

প্রসঙ্গত, রোববার (২৫ অক্টোবর) সন্ধ্যার পর রাজধানীর কলাবাগান এলাকায় হাজী সেলিমের গাড়ি থেকে নেমে নৌবাহিনীর একজন কর্মকর্তা লেফটেন্যান্ট ওয়াসিফ আহমেদ খানকে মারধরের ঘটনায় সোমবার (২৬ অক্টোবর) ধানমন্ডি থানায় মামলা দায়ের করেন ওয়াসিফ। মামলায় হাজী সেলিমের ছেলে ইরফান সেলিম, প্রোটকল অফিসার এ বি সিদ্দিক দিপু, মোহাম্মদ জাহিদ ও মিজানুর রহমানের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরও তিন জনকে আসামি করা হয়েছে।

মামলার এজাহারে বলা হয়েছে, লেফটেন্যান্ট ওয়াসিফ স্ত্রীকে নিয়ে মোটরসাইকেলে করে কলাবাগানের দিকে যাচ্ছিলেন। ল্যাবএইড হাসপাতালের সামনে সংসদ সদস্যের স্টিকার লাগানো একটি কালো রঙের ল্যান্ড রোভার গাড়ি (ঢাকা মেট্রো-ঘ-১১-৫৭৩৬) পেছন থেকে তার মোটরসাইকেলে ধাক্কা দেয়। ওয়াসিফ ও তার স্ত্রী ধাক্কা সামলে মোটরসাইকেল থেকে নামলে গাড়ি থেকে কয়েকজন তাদের গালিগালাজ করতে করতে নেমে আসেন এবং মারধর শুরু করে। তারা লেফটেন্যান্ট ওয়াসিফ ও তার স্ত্রীকে ‘উঠিয়ে নেওয়া ও হত্যা’র হুমকি দেয় বলেও মামলায় অভিযোগ করা হয়েছে।

পরে সোমবার দুপুর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত চকবাজারে ইরফান সেলিমের বাড়িতে অভিযান চালায় র‌্যাব। অভিযানে ওই বাড়িতে ইরফান সেলিমের ‘টর্চার সেলে’র সন্ধান মিলে। ওই বাড়ি থেকে বিপুল পরিমাণ ওয়াকিটকি, ইলেকট্রনিক ডিভাইস ছাড়াও দেশি-বিদেশি অস্ত্র এবং বিদেশি মদ ও বিয়ার উদ্ধার করে র‌্যাব। পরে র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত ইরফান সেলিম ও তার দেহরক্ষী জাহিদকে অবৈধ অস্ত্র ও মাদক রাখার দায়ে এক বছর করে কারাদণ্ড দেন।

Sharing is caring!

Loading...
Open

Close