দক্ষিণ সুরমায় ডাক্তার কর্তৃক রোগীকে শ্লীলতাহানী থানায় মামলা

সুরমা টাইমস ডেস্ক::

সিলেটের দক্ষিণ সুরমায় রোগীর শ্লীলতাহানীর অভিযোগে এক প্রাথমিক চিকিৎসককে লাঞ্চিত করে পুলিশের হাতে সপোর্দ করেছে জনতা। গত (২৫শে অক্টোবর) শনিবার সন্ধ্যায় দক্ষিণ সুরমার রেলগেইট পয়েন্ট সংলগ্ন ফয়ছল মেডিকেল হলে এ ঘটনাটি ঘটে।
আটক প্রাথমিক চিকিৎসক ডাঃ একরাম হোসেন দুয়েল (৪২) দক্ষিণ সুরমার লাউয়াই গ্রামের মৃত মুখতার হোসেন ফয়ছলের পুত্র। তার বড় ভাই হলেন দক্ষিণ সুরমার আলোচিত ডাঃ মিফতাহুল হোসেন সুইট। এ ঘটনায় নগরীর সোবহানীঘাট এলাকার বাসিন্দা ও শ্লীলতাহানীর শিকার বিবাহীত মহিলার ভাই জালাল আহমদ বাদি হয়ে দক্ষিণ সুরমা থানায় একটি নারী নির্যাতন মামলা দায়ের করেছেন। মামলা নং ২১। তারিখ- ২৬ অক্টোবর ২০২০ ইংরেজী।
জানা যায়, দক্ষিণ সুরমার রেলগেইটে ফয়ছল মেডিকেল হলের প্রাথমিক চিকিৎসক ডাঃ একরাম হোসেন দুয়েলের চেম্বারে নগরীর সোবহানীঘাট এলাকার জালাল আহমদ এর বিবাহীত বোন আরেকজন মহিলা নিয়ে ২৫ অক্টোবর শনিবার বিকেল আড়াইটার দিকে ঐ চেম্বারে যান। ডাক্তারের কাছ থেকে প্রেসক্রিপশন নিয়ে এবং ফার্মেসী থেকে ঔষধ নিয়ে তারা বাসায় চলে যান। সন্ধ্যার দিকে ৩০/৪০টি মটর সাইকেলে শতাধিক লোকজন ফয়ছল মেডিকেলে এসে ডাক্তার দুয়েলের উপর চড়াও হন। তারা তাকে শারীরিক ভাবে লাঞ্চিত করেন। যা সিসি ক্যামেরায় বিস্তারিত তথ্য রয়েছে। খবর পেয়ে পুলিশ এসে ডাঃ দুয়েলকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়। এ সময় মেয়ের ভাই জালাল অভিযোগ করেন, ডাক্তার দুয়েল তাঁর বোনের শ্লীলতাহানী করেনের শ্লীলতাহানী করেছে। কাপড় খুলে শরীরে হাত দিয়েছে। এ ঘটনায় দক্ষিণ সুরমা থানায় নানা নাটকিয়তার পর নারী নির্যাতন আইনে একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। মামলা নং ২১।
অভিযোগ উঠেছে, অভিযুক্ত ডাক্তার দুয়েলের ভাই ডাঃ মিফতাহুল হোসেন সুইট নিজ বাড়ি লাউয়াইয়ে একটি ঔষধ তৈরীর কোম্পানী করে নিম্নমানের ঔষধ ও ভেজাল ঔষধ তৈরী করে বাজারজাত করে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন। তিনি নিজেকে সর্বরোগের চিকিৎসক পরিচয়ে রেলগেইটের পর এবার বঙ্গবীর রোডে ডাঃ সুইট মেডিসিন নামে একটি ফার্মেসী ও ডাক্তারী চিকিৎসা করছেন। তাঁর সার্টিফিকেট নিয়েও রয়েছে নানা অভিযোগ। বাড়ির ভিতরে নিজের আইনজীবি স্ত্রীকে এখন বানিয়েছেন কেমিস্ট। তিনিই মেডিসিন পরীক্ষা-নিরিক্ষা করেন। ডাঃ মিফতাহুল হোসেন সুইটের অপকর্ম ও ভেজাল ঔষধ তৈরীর কারখানা এখনো বাড়িতে রয়েছে। দেশের সুনামধন্য কোম্পানীন বিভিন্ন ব্রান্ডের সিরাপ ও ট্যাবলেট তৈরী করেন ডাঃ সুইট। যা সরেজমিনে গেলে প্রমাণ পাওয়া যাবে।
এ ব্যাপারে দক্ষিণ সুরমা থানার অফিসার ইনচার্জ আখতার হোসেন বলেন, প্রাথমিক চিকিৎসক একরাম হোসেন দুয়েলের উপর নারী নির্যাতনে মামলা হয়েছে। মামলা নং ২১। আমরা আসামীকে রোববার বিশেষ আদালতে প্রেরণ করেছি। আদালত তাকে কারাগারে প্রেরণ করেছেন।

Sharing is caring!

Loading...
Open

Close