সম্ভাব্য এইচএসসি পরীক্ষার সময়

সুরমা টাইমস ডেস্ক::

করোনাভাইরাস পরিস্থিতি চলতি বছরের সব ধরনের শিক্ষা কার্যক্রম পিছিয়ে পড়েছে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো বন্ধ থাকায় বার্ষিক পরীক্ষা ও বোর্ড পরীক্ষাও নেয়া সম্ভব হয়নি। এ অবস্থায় সবচেয়ে দুশ্চিন্তায় উচ্চ মাধ্যমিক ও সমমানের পরীক্ষার্থীরা। এই শ্রেণিতে বর্তমান পরীক্ষার্থী সংখ্যা রয়েছে প্রায় ১৩ লাখ।

করোনার মধ্যে বিভিন্ন দেশে অটো পাস করানোর নজির দেখা গেছে। কোনো কোনো দেশে অনলাইনে পরীক্ষার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতের গুজরাটে পূর্ববর্তী পরীক্ষার ফলাফল অনুযায়ী বর্তমান শ্রেণির ফলাফল ঘোষণা করে অটো পাস করানো হয়েছে।

তবে বিগত ছয় মাসে বাংলাদেশে এইচএসসি পরীক্ষা নিয়ে নির্দিষ্ট কোনো সিদ্ধান্ত আসেনি। ফলে নানা রকম খবর ডাল-পালা ছড়িয়েছে। কখনো করোনার মধ্যে পরীক্ষা নয়, আবার কখনো পরীক্ষার ১৫ দিন আগে নোটিশ দেয়ার কথা বলা হয়েছে।

এমন পরিস্থিতি করোনার মধ্যে এইচএসসি পরীক্ষা না নিতে একজন হয়েছে বহু শিক্ষার্থী। সামাজিকমাধ্যম ফেসবুকে তারা ‘করোনার মধ্যে এইচএসসি নয়’ ব্যানারে গ্রুপও করেছে। সেখানে প্রায় ৩ লাখ সদস্য হয়েছে।

তবে শিক্ষা কার্যক্রম বন্ধ থাকার প্রায় ছয় মাস পর এইচএসসি পরীক্ষার সম্ভাব্য সময় জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। বুধবার (৩০ সেপ্টেম্বর) অনলাইন শিক্ষা কার্যক্রম নিয়ে এক অনলাইন মতবিনিময় সভায় মন্ত্রী এ সময় জানিয়েছেন।

শিক্ষামন্ত্রী জানিয়েছেন, আগামী সপ্তাহে এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষার রুটিন প্রকাশ করা হবে। রুটিন প্রকাশের পর চার সপ্তাহের মতো সময় দেয়া হবে পরীক্ষার প্রস্তুতি নেয়ার। এছাড়া সিলেবাস না কমিয়েই এইচএসসি পরীক্ষা নেওয়া হবে।

মন্ত্রীর দেয়া তথ্য মতে, আগামী সোমবার বা মঙ্গলবার জানিয়ে দেওয়া হবে কবে পরীক্ষা শুরু হবে। রুটিন প্রকাশের এ এক সপ্তাহ ও পরীক্ষার প্রস্তুতির জন্য প্রায় চার সপ্তাহ সময়ের হিসেবে আগামী নভেম্বর মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহে পরীক্ষা শুরু হতে পারে। তবে পরীক্ষা না নেওয়া সম্ভব হলে বিকল্প ভাবনাও রয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘এইচএসসি পরীক্ষা নেওয়ার সব প্রস্তুতি আমাদের রয়েছে। কারণ, পরীক্ষার আগ মুহূর্তে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়েছে। আমাদের প্রশ্নও তৈরি আছে। কিন্তু ১৪ লাখ পরীক্ষার্থীর সঙ্গে একজন করে অভিভাবক কেন্দ্রে গেলেও শিক্ষকসহ ২৫ থেকে ৩০ লাখ লোকের সম্পৃক্ততা থাকে। যারা অধিকাংশই গণপরিবহন ব্যবহার করবে। সেজন্য আমরা এখনও সিদ্ধান্ত নিতে পারিনি।’

শিক্ষামন্ত্রী জানান, এইচএসসির বিষয়ে কী কী পদক্ষেপ নেওয়া যায় সবকিছু আমরা ঠিক করেছি। আগামী সোম ও মঙ্গলবারের মধ্যে পরিপূর্ণ পরিকল্পনা তারিখসহ ঘোষণা করতে পারবো। কতটুকু পরীক্ষা নেবো, কী পদ্ধতিতে নেবো সেটি সেদিন জানাতে পারবো। তবে পরীক্ষার্থীদের আমরা অন্তত চার সপ্তাহ সময় দেবো। চেষ্টা করবো দ্রুততম সময়ের মধ্যে কত নাম্বারের মধ্যে পরীক্ষা নিয়ে এটি সম্পন্ন করতে পারি। আর জেএসসি পরীক্ষার ফলাফলও আমরা মূল্যায়নে নিয়ে আসতে পারি।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘শীতে করোনার সেকেন্ড ওয়েব আসতে পারে, সেটিও আমরা মাথায় রেখেছি। তবে কেউ কেউ নাকি পরীক্ষা ছাড়াই মূল্যায়ন চাইছেন। সেক্ষেত্রে আমরা সেটি নাকচ করছি না। কারণ, সব চেষ্টার পরও পরীক্ষা নেওয়া গেলো না, তাহলে কি আমাদের শিক্ষার্থীরা এগিয়ে যাবে না? সেক্ষেত্রে পরীক্ষা ছাড়া মূল্যায়নের সম্ভাবনা থেকেই যাচ্ছে, আমাদের সেটিও ভাবতে হবে।’

অনুষ্ঠানে শিক্ষা উপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল এইচএসসি পরীক্ষা অনুষ্ঠানের বিষয় এবং শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা না খোলার বিষয়ে জনমতের গুরুত্ব উল্লেখ করেন। এ সময় জনমত সৃষ্টিতে গণমাধ্যমের সহযোগিতাও চান।

এই সভায় উপস্থিত ছিলেন মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মাহাবুব হোসেন, কারিগরি ও মাদরাসা বিভাগের সচিব মো. আমিনুল ইসলাম খান, মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক সৈয়দ গোলাম ফারুক।

Sharing is caring!

Loading...
Open

Close