ওসমানীনগরে বাসচাপায় ৬ জনের মৃত্যু

নিজস্ব প্রতিবেদক::

ওসমানীনগর উপজেলায় মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৬ জনে দাঁড়িয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার (১৩ই আগস্ট) সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের ভাঙ্গা নামক স্থানে মর্মান্তিক ওই দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন- ওসমানীনগর উপজেলাধীন পশ্চিম ব্রাহ্মণগাঁও গ্রামের কামরুজ্জামানের দুই শিশুকন্যা খাদিজা (২) ও করিমা (৪), একই গ্রামের ফজলু মিয়ার শিশুকন্যা আরিফা (১২), মৌলভীবাজার সদর উপজেলার ভাদ্র গ্রামের আওয়াল মিয়ার স্ত্রী হামিদা (২৮) ও ওসমানীনগর উপজেলার মোবারকপুর গ্রামের আলাউদ্দিনের ছেলে অটোরিকশা চালক জুনেদ (২৮)। এছাড়া একজনের নাম জানা জানা যায়নি।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সিলেটগামী মামুন বাস শেরপুরগামী অটোরিকশা (সিএনজি) কে চাপা দিলে অটোরিকশার ২ যাত্রী ঘটনাস্থলেই নিহত হন। গুরুতর আহত আরো ৪ জনকে উদ্ধার করে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হলে সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক আরও দুজনকে মৃত ঘোষণা করেন। এর কিছুসময় পর চিকিৎসাধীন অবস্থায় আরও দুজনের মৃত্যু হয়।

এদিকে সন্ধ্যার পর মর্মান্তিক এ ঘটনায় খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিস ও পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে হতাহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে প্রেরণ করে। তবে দুর্ঘটনায় স্থানীয় জনতার মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছে। আটকে পড়ে শত শত যানবাহন।

এর আগে ওসমানীনগর থানার ওসি শ্যামল বণিক ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের ভাঙ্গা নামক স্থানে সড়ক দুর্ঘটনায় ঘটনাস্থলেই ২ জন নিহতের খবর নিশ্চিত করলেও হাসপাতালে নেয়ার পর আরও ৪ জন মারা যান। ওসমানী হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. কায়সার খোকন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এব্যাপারে তাজপুর ফায়ার সার্ভিস ষ্টেশনের ভারপ্রাপ্ত ইনচার্জ জসিম উদ্দিন বলেন, আমরা ঘটনাস্থল গিয়ে হাইওয়ে পুলিশের সহযোগিতায় এক জনের লাশ উদ্ধারসহ গুরুত্ব আহত ৭ জনকে হাসপাতালে প্রেরন করেছি।

শেরপুর হাইওয়ে পুলিশের অফিসার ইনচার্জ মোঃ এরশাদুল হক ভূইয়া বলেন, ঘটনাস্থল থেকে সিএনজি চালিত অটোরিকশা চালকের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। গুরুত্ব আহত ৭জনকে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠানো হলে হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক আহতদের মধ্যে আরও চারজনকে মৃত ঘোষনা করেছেন বলে জেনেছি। মহাসড়কে যান চলাচল স্বাভাবিক করতে আমরা কাজ চালিয়ে যাচ্ছি। এ বিষয়ে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

Sharing is caring!

Loading...
Open

Close