সিনহা হত্যা: ১০ আসামির সাত দিনের রিমান্ড

সুরমা টাইমস ডেস্ক::

চাঞ্চল্যকর সিনহা হত্যা মামলায় পৃথক রিমান্ড আবেদন শুনানি করে আজ বুধবার (১২ আগস্ট) চার পুলিশ সদস্যের আরো সাত দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

একইসঙ্গে মামলায় গতকাল মঙ্গলবার (১১ আগস্ট) গ্রেপ্তার তিন স্থানীয় ব্যক্তিসহ সাতজনের প্রত্যেককে সাত দিন করে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য রিমান্ড মঞ্জুর করা হয়েছে।

আসামিদের জিজ্ঞাসাবাদের জন্য র‍্যাবের তদন্তকারী কর্মকর্তার ১০ দিন করে রিমান্ড আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে আজ জ্যেষ্ঠ বিচারক হাকিম আদালতের বিচারক তামান্না ফারাহ এ নির্দেশ দেন।

আদালতের নির্দেশনায় আজ যে সাতজনকে রিমান্ডে নেওয়া হবে তারা সবাই বর্তমানে কারাগারে আটক রয়েছেন। এর  হলেন টেকনাফের বাহারছড়া তদন্ত কেন্দ্রের পুলিশ কনস্টেবল সাফানুর করিম, কনস্টেবল কামাল হোসেন, কনস্টেল মো. আবদুল্লাহ আল মামুন, সহকারী পুলিশ পরিদর্শক (এএসআই) লিটন মিয়া এবং বাহারছড়া ইউনিয়নের মারিসবনিয়া গ্রামের বাসিন্দা মুদি দোকানি নুরুল আমিন, ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী মোহাম্মদ আয়াছ ও নিজাম উদ্দিন।

শেষোক্ত তিন গ্রামবাসীকে র‍্যাব সদস্যরা মঙ্গলবার ভোরে আটক করেন। ওইদিন বিকেলেই আদালতে সোপর্দ করে ১০ দিনের রিমান্ডের আবেদন করা হয়। আদালত সেই আবেদনটি আজ শুনানির জন্য রেখেছিলেন। গ্রেপ্তার স্থানীয় তিন বাসিন্দা গত ৩১ জুলাই রাতে পুলিশের গুলিতে মেজর (অব.) সিনহা নিহতের ঘটনা নিয়ে উপপরিদর্শক নন্দ দুলাল বাদী হয়ে টেকনাফ থানায় যে হত্যা মামলা দায়ের করেছিলেন সেই মামলার এজাহার নামীয় স্বাক্ষী ছিলেন।

অপরদিকে নিহত সিনহার বোন শারমিন শাহরিয়া ফেরদৌস আদালতে যে মামলা দায়ের করেন ওই মামলার আসামি  কারাগারে আটক চার পুলিশ সদস্য কনস্টেবল সাফানুর করিম, কনস্টেবল কামাল হোসেন, কনস্টেবল মো.  আবদুল্লাহ আল মামুন ও সহকারী পুলিশ পরিদর্শক (এএসআই) লিটন মিয়াকে এর আগে আদালত কারাফটকে দুই দিনব্যাপী জিজ্ঞাসাবাদের নির্দেশনা দিয়েছিলেন। র‍্যাবের তদন্তকারী কর্মকর্তা সেই দুই দিন কারাফটকে জিজ্ঞাসাবাদের  পর আরো ১০ দিনের রিমান্ড চেয়েছিলেন। সেই আবেদনটির ওপর আজ শুনানি শেষে তাদের আরো সাত দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

মেজর (অব.) সিনহা হত্যা মামলায় কারাগারে থাকা প্রধান তিন আসামি টেকনাফ থানার সাময়িক বহিষ্কৃত ওসি প্রদীপ কুমার দাশ, পরিদর্শক লিয়াকত আলী ও উপপরিদর্শক নন্দ দুলাল রক্ষিতকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য সাত দিনের রিমান্ড আগেই আদালতের মঞ্জুর করা আছে। এখন একসঙ্গে ১০ জনকেই র‍্যাবের তদন্তকারী কর্মকর্তা সাত দিনের রিমান্ডে নেওয়ার অনুমতি পেলেন।

গত ৩১ জুলাই রাত ১০টার দিকে কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভের বাহারছড়া ইউনিয়নের শামলাপুর চেকপোস্টে পুলিশের গুলিতে নিহত হন বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর মেজর (অব.) সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান।

পুলিশের গুলিতে সাবেক সেনা কর্মকর্তা সিনহা মো. রাশেদ নিহতের ঘটনায় ৯ পুলিশ সদস্যকে আসামি করে বুধবার মামলা করেন তার বড় বোন শারমিন শাহরিয়া ফেরদৌস। টেকনাফ উপজেলা জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট তামান্না ফারহার আদালতে মামলাটি করা হয়।

পরে মামলাটি আদালত আমলে নিয়ে টেকনাফ থানার ওসিকে এজাহারের ধারা অনুযায়ী হত্যা মামলা হিসেবে রেকর্ড করার নির্দেশ দেন। পাশাপাশি মামলাটি রেকর্ড করে সাত দিনের মধ্যে আদালতকে অবগত করার আদেশও দেন আদালত।

Sharing is caring!

Loading...
Open

Close