সন্তানের মুখ দেখা হলো না বিমানের কো-পাইলট অখিলেশের!

সুরমা টাইমস ডেস্ক::

পাইলট যা নির্দেশ দেবেন তা অক্ষরে অক্ষরে পালন করতে হবে কো-পাইলটকে, এমনটাই নিয়ম। তাই ভারতীয় বিমানবাহিনীর পোড় খাওয়া পাইলট অবসরপ্রাপ্ত উইং কমান্ডার দীপক বসন্ত সাঠে যখন দু’বার ব্যর্থ হয়েও শেষমেশ অবতরণের সিদ্ধান্ত জানান, তখনো নিজের দায়িত্ব পালন করে গেছেন কো-পাইলট অখিলেশ কুমার। 

তার পরের ঘটনা তো এখন সবার জানা। কোজিকড় বিমান দুর্ঘটনা কেড়ে নিয়েছে ২০টি তাজা প্রাণ। তার মধ্যে রয়েছেন বিমানের পাইলট দীপক বসন্ত সাঠে ও কো-পাইলট অখিলেশও। অখিলেশের স্ত্রী ছিলেন সন্তানসম্ভাবনা। শুক্রবার সন্ধ্যার ঘটনায় চোখের পলকে তাঁর সব স্বপ্ন শেষ।

এদিন সংবাদমাধ্যমের সামনে আসেন অখিলেশের ভাই বাসুদেব। তিনিই জানান, ‘আমার বউদি সন্তানসাম্ভবা, আগামী ১৫-১৭ দিনের মধ্যেই তিনি প্রথম সন্তান প্রসব করবেন। আমাদের যে কত বড় ক্ষতি হলো তা বোঝাতে পারব না।’

কান্নায় ভেঙে পড়েন অখিলেশের ভাই, গলার স্বর বুজে আসে, তবু বলে চলেন, ‘দাদা খুব নম্র স্বভাবের ছিলেন। বছর তিনেক আগে তিনি এয়ার ইন্ডিয়ায় যোগ দেন। শেষবার বাড়ি এসেছিলেন লকডাউন শুরু হওয়ার আগে। তারপর টানা ‘বন্দে ভারত’ মিশনের কাজ করে গেছেন।’

কোজিকড় দুর্ঘটনা সামনে আসতেই একাধিক তত্ত্ব সামনে আসছে। কেউ বলছেন টেবলটপ তত্ত্বের কথা, কেউ আবার পাইলটের ঘাড়ে দোষ চাপাচ্ছেন। কিন্তু এনডিআরএফ- এর ডিজি এস এন প্রধানের কথায় পরিষ্কার, নিজে মরেও বহু মানুষকে বাঁচিয়ে দিয়ে গেছেন পাইলট এবং কো-পাইলট।

এনডিআরএফ-এর ডিজি বলেছেন, দুর্ঘটনার আগ মুহূর্ত পর্যন্ত বিমানের গতি কমানোর একাধিক চেষ্টা করেন পাইলট দীপক বসন্ত সাঠে৷ শেষ পর্যন্ত দুর্ঘটনা এড়ানো না গেলেও বিমানের গতি কমে যাওয়ায় আরো বেশি ক্ষয়ক্ষতি এড়ানো সম্ভব হয়েছে৷ একই সঙ্গে তিনি বলছেন, ইঞ্জিন বন্ধ করায় বিমানটিতে আগুন ধরে যায়নি। এখনো পর্যন্ত এই দুর্ঘটনায় ২০ জনের মৃত্যু হয়েছে। ১২৭ জন আহত হয়েছেন বটে, তবে বিমানে আগুন লেগে গেলে কাউকেই বাঁচানে সম্ভব হত না বলেই মনে করছেন তিনি।

সূত্র : নিউজ ১৮।

Sharing is caring!

Loading...
Open

Close