নগরীর তেররতনে সন্ত্রাসী হামলায় চার জন আহত,আটক ২

স্টাফ রিপোর্টার::

সিলেট নগরীর তেররতনে সন্ত্রাসী হামলায় ছাত্রদলের উমেদ গ্রুপের কর্মী আং সামাদের নেতৃত্বে গুরুতর আহত হয়েছেন চার যুবলীগ কর্মী,এদের মধ্যে বাদল(২২)এর অবস্থা আশঙ্কাজনক তাকে বর্তমানে ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে অস্ত্রোপাচার করা হচ্ছে বলে জানিয়েছে স্থানীয় সূত্র । গতকাল বৃহস্পতিবার (৬ই আগষ্ট) রাত সাড়ে ১১ টায় পশ্চিম তেররতনে বাজার এলাকায় এ ঘটনা ঘটেছে বলে জানিয়েছেন একাধিক সূত্র।

স্থানীয় সূত্র জানায়, বৃহস্পতিবার রাতে তেররতনে এলাকায় ছাত্রদলের উমেদ গ্রুপের কর্মী আং সামাদ বাদল ও হিরণকে বিচারের কথা বলে পশ্চিম তেররতনের তার মুদি দোকানে ডেকে পাঠায়। সামাদের কথামতো বাদল, হিরণ, অন্তর, টিপু সামাদের দোকানের সামনে পৌছামাত্র সামাদের নির্দেশে ৪/৫ জন সন্ত্রাসী মিলে তাদেরকে ছুরিকাঘাত ও দা দিয়ে কুপিয়ে পালিয়ে যায়। পরে স্থানীয়রা তাদেরকে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যান।

আহতরা হলো ১) বাদল (২২) পিতা: জিয়াউল হক,সাং ছাতক, দোয়ারাবাজার, সুনামগঞ্জ। বর্তমানে লাভলু মিয়ার কলোনী, পশ্চিম তেররতন,উপশহর।

২) হিরন মাহমুদ ( ২০ ), পিতা: রফিকুল ইসলাম, সাং: চেঙ্গাইয়া, দোয়ারাবাজার, সুনামগঞ্জ। বর্তমানে উপশহর জে ব্লক, ১নং রোড়, শিপলু মিয়ার কলোনী ।

৩) অন্তর খাঁন (২০ ) পিতা: তরমুজ খাঁন, সাং : অষ্টগ্রাম, কিশোরগঞ্জ। বর্তমানে রমজান মিয়ার কলোনী, পশ্চিম তেররতন,উপশহর।

৪) টিপু মিয়া (২১) পিতা: সবুজ মিয়া, সাং : অষ্টগ্রাম, কিশোরগঞ্জ। বর্তমানে রফিক মিয়ার কলোনী , শিবগঞ্জ।

এদের মধ্যে বাদলের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

এব্যপারে এসএমপি’র শাহপরাণ (রহ.) থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আং কাইয়ুম চৌধুরী সুরমা টাইমসকে বলেন,

নগরীর উপশহর এলাকার তেররতনে মারপিটের খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়েছেন। এবং আহত বাদল মিয়ার পিতা বাদী হয়ে শাহপরাণ (রহ.)থানায় ১১ জনকে আসামী করে একটি মামলা দায়ের করেন। পরবর্তীতে এঘটনার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে মামলার ১নং আসামী আং সামাদ (৩৫ ) কে রাত আনুমানিক ২ ঘটিকায় এবং ২নং আসামী শফিক মিয়ার পুত্র রুবেল মিয়াকে, সকাল আনুমানিক ৭.৩০ ঘটিকায় নগরীর উপশহর এলাকার এইচ ব্লকের ৪নং রোড় থেকে গ্রেফতার করা হয়। এবং এই মামলার অন্যান্য আসামীদেরকে ধরতে পুলিশি অভিযান অব্যাহত আছে বলে তিনি জানান ।

Sharing is caring!

Loading...
Open

Close