ছাতকে আজব বাহিনীর সন্ত্রাসী হামলা: তিনদিনেও গ্রেফতার নেই

ডেস্ক রিপোর্ট ::

সুনামগঞ্জে ছাতকে সন্ত্রাসী আজব বাহিনীর হামলায় ৬জন গুরুতর আহত হয়েছেন। আহতদের সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হলে কয়েকজনের আশঙ্কাজনক। জোর করে স্কুলের গভর্ণিং বডির সভাপতি পদ ছিনিয়ে নেওয়ার জন্য এ হামলা চালানো হয়। মঙ্গলবার (৪আগস্ট) বিকেলে উপজেলার জাহিদুল বাজারে স্কুল মাঠে হামলার এ ঘটনা ঘটে।
আহতরা হলেন উপজেলার দোলারবাজার জাহিদপুর গ্রামের নুরুল ইসলাম (৫০), এনামুল হক (২০) আমিনুল হক (১৬), সাইদুল হক ( ১৯), আব্দুল খালিক (৬০) ও একই গ্রামের নুর ইসলাম (৫০)।
ঘটনা ও মামলার ৩ দিন অতিবাহিত হয়ে গেলেও হামলাকারীদের গ্রেফতার করছে না পুলিশ। অজ্ঞাত কারণে পুলিশ সন্ত্রাসীদের গ্রেফতারে অনীহা প্রকাশ করছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।
স্থানীয় সংবাদ সূত্র জানায়, ছাতক উপজেলার জাহিদপুর উচ্চবিদ্যালয় পরিচালনা কমিটি গঠন নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল সাবেক সভাপতি আজব আলীর সাথে। আজব আলী পুনরায় সভাপতি পদ আঁকড়ে ধরে রাখতে চাইলে নানা কারণে তা মানছিলেন না স্থানীয়রা। স্থানীয়রা অন্যকে সভাপতি করে কমিটি গঠন করেন। এই বিরোধের জের ধরে মঙ্গলবার বিকেল ৪টার দিকে আজব আলীর নেতৃত্বে ১০/১৫জন সন্ত্রাসী দেশীয় অস্ত্র নিয়ে স্থানীয়দের উপর অতর্কিত হামলা চালায়। এ ঘটনায় অনেক আহত হন। গুরুতর আহত ৬ জনকে উদ্ধার করে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বর্তমানে আশঙ্কাজনক অবস্থায় তারা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।
স্থানীয়রা আরো জানান, আজব আলী বিদ্যালয়ের পরিচালনা পর্ষদের সাবেক সভাপতি। গভর্নিং বডির এবারের নির্বাচনেও তিনিও সভাপতি প্রার্থী ছিলেন। শিক্ষা বিমুখতা ও উশৃঙ্খল আচরণ সহ নানাবিধ কারনে নির্বাচনে পরাজিত হন তিনি। সভাপতি পদ হারানোর পর শুরু করেন নানা জটিলতা। পদ হারানোর এ ক্ষোভেই তাদের উপর হামলা চালান তিনিও তার দলভুক্তরা।
এদিকে এর আগে কমিটি গঠন নিয়ে সংবাদ প্রকাশের জেরে জাতীয় দৈনিক ‘ঢাকা প্রতিদিন’-এর সুনামগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি শামীম আহমদ তালুকদারকে প্রাণনাশের হুমকি দেন আজব আলী। এঘটনায় সোমবার ছাতক থানায় আজব আলীর বিরুদ্ধে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন সাংবাদিক শামীম তালুকদার।
ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে ছাতক থানার ওসি মোস্তাফা কামাল সাংবাদিকদের জানান, ঘটনায় বুধবার রাতেই
জাহিদপুরের আব্দুল খালিক বাদী হয়ে আজব আলীসহ ১৫ জনকে আসামী করে থানায় মামলা করেছেন। পুলিশ আসামীদের গ্রেফতারে তল্লাশী অভিযান অব্যাহত রেখেছে। তবে এখনো কেউ গ্রেফতার হয়নি বলে জানান তিনি।

Sharing is caring!

Loading...
Open

Close