দক্ষিণ সুরমার রজবী বেগম রুজি হত্যা মামলায় ০৪ জন গ্রেফতার

সুরমা টাইমস ডেস্ক::

স্বামী-স্ত্রী ও এক শিশু সন্তান নিয়ে সুখেই সংসার করতেন স্ত্রী রজবী বেগম রুজি (২৩)। নিজ বাড়ী নোয়াখালী জেলাধীন হলেও স্বামী-সন্তান নিয়ে থাকতেন দক্ষিণ সুরমা থানাধীন কদমতলী ফল মার্কেটের পাশে তমজিদ মিয়ার বিল্ডিং এর ৩য় তলার ভাড়া বাসায়। কিন্তু রজবী বেগম রুজির কন্যা সন্তান আনিশা (৩) জন্ম হওয়ার পর থেকে স্বামীর পরিবারকে ১,০০,০০০/-টাকা যৌতুক দেওয়ার জন্য বিভিন্ন ভাবে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করতে থাকে বলে অভিযোগ তার পিতা আলী হোসেনের। এরই ধারাবাহিকতায় গত ২৪/০৭/২০২০খ্রি: রাত অনুমান ২৩.০০ ঘটিকায় রজবী বেগম রুজি কে যৌতুকের দাবীতে তার স্বামী, শশুর-শাশুরী ও ননদ মারপিট করিয়া মৃত্যু ঘটাইয়াছে মর্মে অভিযোগ রজবী বেগম রুজির পরিবারের। ২৫/০৭/২০২০খ্রি: তারিখ রাত অনুমান ০২.০০ ঘটিকায় রজবী বেগম রুজির লাশ কদমতলী এলাকার ভাড়া বাসা থেকে উদ্ধার করে পুলিশ। উক্ত ঘটনায় মৃতা রজবী বেগম রুজির পিতা আলী হোসেন বাদী হয়ে ০৪ জনের নাম উল্লেখ পূর্বক এজাহার প্রদান করিলে দক্ষিণ সুরমা থানার মামলা নং-২০, তারিখ-২৫/০৭/২০২০খ্রি: রুজু করা হয়। মামলা রুজু হওয়ার পরপরেই তদন্তকারী অফিসার এসআই/ফায়াজ উদ্দিন ফয়েজ এর নেতৃত্বে অভিযান পরিচালনা করিয়া ঘটনায় জড়িত ১। আলা উদ্দিন আহমদ (২৬), পিতা-দেলোয়ার হোসেন, ২। দেলোয়ার হোসেন (৫০), পিতা-আলম মিয়া, ৩। শাহানা বেগম (৪৭), স্বামী-দেলোয়ার হোসেন, ৪। হুসনে আরা (১৮), পিতা-দেলোয়ার হোসেন, সর্বসাং-রামনাথপুর (আছকিবাড়ী), থানা-সুধারাম, জেলা-নোয়াখালী এ/পি-কদমতলী, ফল মার্কেটের পাশে, তমজিদ মিয়ার বিল্ডিং এর ৩য় তলা, থানা-দক্ষিণ সুরমা, জেলা-সিলেটদের কে গ্রেফতার করা হয়।
আটককৃতদের বিজ্ঞ আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন আখতার হোসেন, অফিসার ইনচার্জ, দক্ষিণ সুরমা থানা, এসএমপি, সিলেট।

Sharing is caring!

Loading...
Open

Close