চীনকে জবাব দেয়ার সময় এসে গেছে : মার্কিন কংগ্রেসম্যান

সুরমা টাইমস ডেস্ক::

গালওয়ান উপত্যকায় চীনা সেনাদের সঙ্গে সংঘর্ষে অন্তত ২০ ভারতীয় সেনা নিহত হওয়ার জেরে লাদাখ সীমান্ত যুদ্ধাবস্থা বিরাজ করছে। সীমান্তে বিপুল সেনা জড়ো করেছে উভয় দেশ। এশিয়ায় চীনের এমন ‘রণং দেহি’ মনোভাব মোটেই বরদাস্ত করা হবে না বলে জানিয়েছেন মার্কিন কংগ্রেসম্যান টেড ইয়োহো। তার কথায়, শান্তিপূর্ণ সহাবস্থানের চুক্তি ভেঙে প্রতিবেশ‌ী দেশের উপর সামরিক আস্ফালন কিছুতেই মেনে নেবে না আমেরিকা। চীনকে জবাব দেয়ার সময় এসে গেছে।

শুক্রবার এক টুইট বার্তায় টেড বলেন, ‘গোটা বিশ্বই এবার চীনকে বলছে, যথেষ্ট হয়েছে আর আগ্রাসন বরদাস্ত করা হবে না।’

প্রভাবশালী এই মার্কিন কংগ্রেসম্যানের অভিযোগ, করোনা মহামারির পরিস্থিতিতে বেসমাল হয়ে পড়েছে গোটা পৃথিবী। এই পরিস্থিতিকেই ব্যবহার করতে চেয়েছে চীন।

টেডের অভিযোগ, ‘প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখায় চীনের কমিউনিস্ট পার্টি সামরিক আগ্রাসন চালানোর জন্য কভিড-১৯ পরিস্থিতিকে ঢাল হিসেবে ব্যবহার করেছে।

রিপাবলিকান এই কংগ্রেসম্যান আরো লেখেন, শান্তিপূর্ণ দেশগুলোকে ভয় দেখানোর জন্য এই পূর্বপরিকল্পিত আগ্রাসন কখনো বরদাস্ত করবে না আমেরিকা।

এর আগে হাউজ অফ রিপ্রেসেনটেটিভের সদস্য ড. অ্যামি বেরাও গালওয়ান উপত্যকায় চীনা সামরিক আগ্রাসন নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছিলেন। এশিয়া বিষয়ক উপকমিটির চেয়ারম্যান টুইটারে লিখেছিলেন, ভারতীয় সীমান্তে চীনের আগ্রাসন নিয়ে তিনি উদ্বিগ্ন। তিনি আরো লেখেন, ‘আমি চাই শক্তি প্রদর্শনের পথে না গিয়ে কূটনৈতিক ক্ষমতাকে ব্যবহার করে উত্তেজনা প্রশমনের পথে এগোক চীন।’

এর আগে, চীনের সামরিক আস্ফালন বন্ধে এশিয়ায় মার্কিন সেনা মোতায়েনের ঘোষণা দেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও। বৃহস্পতিবার ব্রাসেলসে এক ভিডিও কনফারেন্সে এ কথা জানান তিনি। পম্পেও বলেন, চীন যেভাবে উত্তরোত্তর ভারত, মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়া, ফিলিপিন্সের নিরাপত্তার ক্ষেত্রে বিপজ্জনক হয়ে উঠছে, তাতে পিপলস লিবারেশন আর্মির (পিএলএ) যথাযথ মোকাবেলার জন্য সব রকম ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

তিনি আরো বলেন, ‘পিএলএ-র মোকাবেলায় আমরা সব রকমভাবে প্রস্তুত কিনা, সে ব্যাপারে আমরা নিশ্চিত হতে চাইছি। আমরা এই সময়ের বড় চ্যালেঞ্জ নিয়ে ভাবছি। যদিও জানি, পিএলএ-র মোকাবেলার মতো পর্যাপ্ত ব্যবস্থা নিতে কোনো অসুবিধা হবে না।’

চীনের কমিউনিস্ট পার্টির সমালোচনা করে তিনি বলেন, চীনের কমিউনিস্ট পার্টির পদক্ষেপ শুধু ভারতের জন্য হুমকি নয়। ভিয়েতনাম, ইন্দোনেশিয়া, মালয়েশিয়া, ফিলিপাইনও চীনের হুমকির মুখে। দক্ষিণ চীন সাগরে চীনের তৎপরতা নিয়েও ক্ষুব্ধ যুক্তরাষ্ট্র।

সূত্র::— ইকোনমিক টাইমস।

Sharing is caring!

Loading...
Open

Close