বালাগঞ্জে যৌতুকের জন্য তিন সন্তানের জননীকে অগ্নিদগ্ধ করলো পাষণ্ড স্বামী

বালাগঞ্জ প্রতিনিধি::

সিলেটের বালাগঞ্জ উপজেলার ২নং বোয়ালজুর ইউনিয়নের নসিরপুর গ্রামের ৩ সন্তানের জননী তাসলিমা আক্তার সাকীর শরীর আগুন দিয়ে ঝলসে দিয়েছে পাষন্ড স্বামী আমির আলী ও শ্বশুড় বাড়ীর লোকজন। গতকাল বুধবার (২৭শে মে ) রাত অনুঃ১০.৩৫ ঘটিকায় এ ঘটনাটি ঘটে ।

স্হানীয় সূত্রে জানা যায় প্রায় ১০ বছর পূর্বে সিলেট শহরতলীর শাহপরান উপশহর এলাকার মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সন্তান আবুল কাশেমের কন্যা তাসলিমা আক্তার সাকীর বিয়ে হয় বিশ্বনাথের বালাগঞ্জ উপজেলার ২নং বোয়ালজুর ইউনিয়নের নসিরপুর গ্রামের আমির আলীর সঙ্গে। বিয়ের বছর খানেক তাদের দাম্পত্য জীবন বেশ ভালই যায়। কিন্তু সাকীর প্রথম সন্তান জন্মের পর থেকেই তাদের পরিবারে শুরুহয় অশান্তির আগুন।

সাকীর স্বামী আমির আলী ও তার মা সাহেদা বেগম সাকীকে প্রতিনিয়ত যৌতুকের জন্য চাঁপ দিতে থাকে । মেয়ের সুখের কথা চিন্তাকরে সাকীর পিতা কেয়কদফায় কিছু টাকা আমীর আলীকে প্রদান করেন। পরবর্তীতে সাকীর গর্ভে আরো দুই সন্তানের জন্ম হয়।

এতোকিছুর পরও ক্ষান্ত হয়নি সাকীর শ্বশুড় বাড়ীর লোকজন। তারা প্রায়ই যৌতুকের জন্য সাকীকে মারপিট করতো। এনিয়ে তাদের গ্রামে বেশ কয়েকবার বিচার শালিষও হয়। বিচারে স্থানীয় মেম্বার ও এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গের উপস্থিতিতে আমীর আলীর পরিবার আর এধরণের আচরন করবেনা বলেও অঙ্গিকার করে।

এব্যাপারে ২নং বোয়ালজুর ইউনিয়নের সাবেক ইউপি মেম্বার আনার আলী এ প্রতিবেদককে জানান , সাকীর বিষয়নিয়ে আমরা বেশ কয়েকবার শালিষ বৈঠক করে বিষয়টি নিশ্পত্তির চেষ্ঠা করেছি,এমনকি গত বছর শ্বশুড়বাড়ীর নির্যাতনে সাকী তার বাবার বাড়ীতে চলে আসলে আমরা সেখানে গিয়ে সন্তানদের ভবিষ্যতের কথা চিন্তাকরে পরবর্তীতে আর এধরণের ঘটনা ঘটবেনা বলে সাকীকে তার স্বামীর বাড়ী ফিরিয়ে নিয়ে আসি।

তাসলিমা আক্তার সাকী জানান গতকাল বুধবার (২৭শে মে ) রাত অনুঃ১০.৩৫ ঘটিকায় তাকে তার স্বামী আমির আলী ও শাশুড়ী সাহেদা বেগমসহ পরিবারের কয়েকজন মিলে জ্বলন্ত লাকড়ী( কাঠ) দিয়ে তার পরনের কাপড়ে আগুন ধরিয়ে দেয় । প্রাণরক্ষার্থে সাকী দৌড়ে তাদের পুরাতন বাড়ীতে আশ্রয় নেয়। সাকীর আর্তচিৎকারে এলাকার লোকজন সাবেক মেম্বার আনার আলী ও বর্তমান ২নং বোয়ালজুর ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের মেম্বার নজরুল ইসলামের সহযায়ীতায় গৃহবধু তাসলিমা আক্তার সাকীকে উদ্ধার করে রাত তিনটায় সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। আগুনে গৃহবধু তাসলিমা আক্তার সাকীর শরীরের দুই পা সহ বিভিন্ন অংশ পুড়ে গেছে।

সাকী বর্তমানে ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটের ৪র্থ তলায় ৬নং ওযার্ডে ভর্তি আছে।

এব্যাপারে সাকীর পিতা আবুল কাশেম জানান গতকাল বুধবার রাত দশটার দিকে বালাগঞ্জ উপজেলার বোয়ালজুর ইউনিয়ন নসিরপুর গ্রামে তার মেয়ের শ্বশুরালয়ে এ ঘটনা ঘটে। গৃহবধুর স্বামী আমির আলী ও শ্বাশুড়ী সাহেদা সহ পরিবারের কয়কজন মিলে জ্বলন্ত লাকড়ী( কাঠ) দিয়েে সাকীর পরনের কাপড়ে আগুন ধরিয়ে দেয় পাষন্ডরা। তারা তার মেয়েকে পুড়িয়ে মারার জন্যই এঘটনা ঘটায় বলে দাবী করেন সাকীর পিতা আবুল কাশেম।

এব্যাপারে বালাগঞ্জ উপজেলার ২নং বোয়ালজুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যন আনহার আলী বলেন ,সাবেক মেম্বার আনার আলী আমাকে ঘটনাটি অবহিত করেছেন । উনারা এব্যপারে সার্বক্ষনিক খোঁজ খবর রাখছেন । এঘটায় সাকীর পিতা আবুল কাশেম মামলা দায়েরের প্রস্তুতি নিচ্ছেন বলে জানান।

Sharing is caring!

Loading...
Open

Close