সিলেটের সংস্কৃতিকর্মীদের পিপিই, সুরক্ষা চশমা ও মাস্ক প্রদান

নিজস্ব প্রতিবেদক::

সিলেটের সংস্কৃতিকর্মীদের ৫০টি ব্যক্তিগত সুরক্ষা পোশাক (পিপিই), দশটি সুরক্ষা চশমা ও দেড় শত মাস্ক হস্তান্তর করা হয়েছে।

রোববার (১৭ মে) রাত ৯ টায় সিলেট জেলা অডিটোরিয়ামে এসব নিরাপত্তা সামগ্রী হস্তান্তর করেন সুরমা রিভার ওয়াটারকিপার ও বাপা সিলেট শাখার সাধারণ সম্পাদক আব্দুল করিম কিম।

জানা যায়, করোনাভাইরাসের মহামারীর সময়ে ওয়াটারকিপার্স বাংলাদেশ ও বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা)’র আহ্বানে সাড়া দিয়ে চীনের কুয়ানতাং রিভার ওয়াটারকিপার, গ্রিনঝেজাং রিভার ওয়াটারকিপার ও চীনের কয়েকটি বেসরকারি সংস্থার পক্ষ থেকে বাংলাদেশের স্বাস্থ্যকর্মী ও জরুরি-সেবা দানকারীদের জন্য স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী উপহার হিসাবে প্রেরণ করে। যা গেলো ১৩ মে বাংলাদেশ রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইন্সটিটিউটে (আইইডিসিআর)-এর মাধ্যমে দেশে এসে পৌঁছে।

এরপর সেখান থেকে ওয়াটারকিপার্স বাংলাদেশ ও বাপা’র পক্ষ থেকে সুরমা রিভার ওয়াটারকিপার আব্দুল করিম কিমের কাছে সিলেট অঞ্চলের জন্য চারশত ব্যক্তিগত সুরক্ষা পোশাক (পিপিই), একশত সুরক্ষা চশমা ও দেড় হাজার মাস্ক প্রেরণ করা হয়। এরমধ্যে থেকে গতকাল রোববার রাতে এসব সামগ্রী তিনি সিলেটের সংস্কৃতিকর্মীদের হাতে তুলে দেন।

এসময় সামগ্রী গ্রহণকালে উপস্থিত ছিলেন সম্মিলিত নাট্য পরিষদের সভাপতি মিশফাক আহমেদ মিশু, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক আমিনুল ইসলাম লিটন, সম্মিলিত নাট্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক রজত কান্তি গুপ্ত।

সুরমা রিভার ওয়াটারকিপার ও বাপা সিলেট শাখার সাধারণ সম্পাদক আব্দুল করিম কিম বলেন, সিলেটের সংস্কৃতিকর্মীরা কোভিট-১৯ মহামারি শুরুর পর দেশজুড়ে শুরু হওয়া লকডাউনকালে নজিরবিহীন দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। দিনরাত বিপন্ন মানুষের ডাকে সাড়া দিয়ে কলের গাড়িতে করে খাদ্য সামগ্রী নিয়ে ছুটে গেছে মানুষের বাড়ি বাড়ি।

তিনি আরও বলেন, সিলেটের সংস্কৃতিকর্মীদের এই প্রশংসনীয় উদ্যোগে ওয়াটারকিপার্স বাংলাদেশ ও বাপা’র পক্ষ থেকে সংহতি প্রকাশ করছি। সংস্কৃতিকর্মীদের মহতী কাজে এই স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী কাজে লাগবে।

Sharing is caring!

Loading...
Open

Close