করোনার সুযোগে চীনের রমরমা পিপিই, মাস্ক বাণিজ্য!

সুরমা টাইমস ডেস্ক::

মহামারি করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ায় বিশ্বজুড়ে হু হু করে বাড়ছে জীবন রক্ষাকারী মেডিক্যাল সরঞ্জামের চাহিদা। এটাকেই ব্যবসার নতুন সুযোগ হিসেবে লুফে নিয়েছে বিশ্বের বৃহত্তম উৎপাদক ও সরবরাহকারী দেশ চীন। দেশে দেশে লকডাউনের সুযোগে একচেটিয়া ব্যবসা করছে চীনা কম্পানিগুলো।

চীনের বিরুদ্ধে করোনা মহামারিকে ‘লাভজনক বাণিজ্যে’ রূপান্তরের অভিযোগ এনেছেন হোয়াইট হাউসের হোয়াইট হাউসের উপদেষ্টা পিটার নাভারো। তিনি বলেছেন, করোনা মহামারির সুযোগে প্রয়োজনীয় মেডিক্যাল সরণ্জাম সরবরাহের নামে বিপুল ব্যবসা করছে চীন।

মার্কিন এই অর্থনীতিবিদ রবিবার বলছেন,কমিউনিস্ট শাসনব্যবস্থা অন্যদের ‘প্রতিরক্ষাহীন’ রেখে বিশ্বজুড়ে ভাইরাসের আড়ালে পিপিই ব্যবসায় মেতেছে। তিনি বলেন, চীনে তৈরি ৫০ সেন্টের একটি মাস্ক এখন আমেরিকার হাসপাতালে ৮ ডলারে বিক্রি হচ্ছে।

নাভারো ফক্স নিউজকে বলেছিলেন, আমি অর্থনীতিতে ডক্টরেট ডিগ্রি অর্জনকারী কিন্তু চিকিৎসা বিষয়ে কোন প্রশিক্ষণ নেই। তবে চীন যে বিশ্বে জিন্মি করে ব্যবসা করছে সেটা বুঝতে পারছি। চীন এই ব্যবসার জন্য ভাইরাসটি ছড়িয়েছে। ফলে বিশ্বব্যাপী বহু লোক মারা গেছে।

এমন অভিযোগের পেছনে তিনটি কারণ উল্লেখ করেছে নভেরো। প্রথমত, ভাইরাসটি চীনে ছড়িয়ে পড়েছিল। দ্বিতীয়ত, তারা বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার দেয়ালের পিছনে ভাইরাসটি লুকিয়ে রেখেছিল। তৃতীয় জিনিসটি তারা মূলত ব্যক্তিগত প্রতিরক্ষামূলক সরঞ্জাম সংগ্রহ করছিল এবং এখন তারা এটি থেকে বিপুল লাভ করছে।

দেশটিতে নতুন নতুন কোম্পানি গড়ে উঠছে। সরবরাহ নিশ্চিত করতে রাত-দিন ২৪ ঘণ্টা চলছে ফ্যাক্টরি। টাকা ছাপার মেশিনের মতো অবিরাম তৈরি হচ্ছে সার্জিক্যাল মাস্ক। উৎপাদন হচ্ছে চিকিৎসক ও নার্সদের জন্য ব্যক্তিগত সুরক্ষা সামগ্রী পারসোনাল প্রোটেকটিভ ইকুইপমেন্ট (পিপিই), করোনা টেস্টিং কিট ও কৃত্রিম শ্বাসপ্রশ্বাস দেয়ার মেশিন ভেন্টিলেটর।

শত শত বিমান ও জাহাজে এসব সরঞ্জাম বিশ্বের বিভিন্ন দেশে পাঠাচ্ছে চীনের হাজার হাজার কম্পানি। রফতানি হচ্ছে আমেরিকা, ব্রিটেন, ইতালি, স্পেন, মঙ্গোলিয়া, ইউক্রেনের মতো বিশ্বের শতাধিক দেশে। এই মুহূর্তে পোয়াবারো চীনের ব্যবসায়ীদের।

মহামারীর প্রাদুর্ভাবে সবচেয়ে লাভজনক হিসেবে হাজির হয়েছে পিপিই, সার্জিক্যাল মাস্ক ও মেডিক্যাল সরঞ্জামের ব্যবসা। আকাশছোঁয়া চাহিদা পূরণে নতুন করে হাজার হাজার কোম্পানি গড়ে উঠেছে। পুরোদমে উৎপাদন চলছে এসব কোম্পানিতে।

সূত্র::— ডেইলি মেইল।

Sharing is caring!

Loading...
Open

Close