তাহিরপুরের পল্লীতে দু’পক্ষের সংঘর্ষে অন্তত ২০ জন আহত

তাহিরপুর প্রতিনিধি ::

সুনামগঞ্জের তাহিরপুরের পল্লীতে তুচ্ছ বিষয়কে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে গর্ভবতী নারীসহ দুই পক্ষের অন্তত ২০ জন আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। শনিবার (১১ এপ্রিল) বিকালে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

উভয়পক্ষের এ সংঘর্ষে আপন মিয়া (২৫), গর্ভবতী নারী নাদিরা বেগম (২৭) ও কবির মিয়ার (৩১) অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় তাহিরপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগের চিকিৎসকরা তাদেরকে উন্নত চিকিৎসার জন্য সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে প্রেরণ করেন। এছাড়াও বাকি আহতদের তাহিরপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

গুরুতর আহতরা হলেন- দুলাল মিয়া (৩৮) লিপন মিয়া (৩০), উজ্জ্বল মিয়া (১৮), আমছু মিয়া (৩৩) মোতালী (৫০) সাদ্দাম হোসেন (২১), মোজ্জামেল (২৮), সুজন মিয়া (২২), কাজল মিয়া (৪৫)।

গ্রামবাসী সূত্রে জানা যায়, শুক্রবার উপজেলার উত্তর বড়দল ইউনিয়নের আমতৈল মধ্যপাড়া গ্রামের জামে মসজিদে নামাজ আদায় করতে যায় আমতৈল গ্রামের দুলাল মিয়ার পক্ষের উজ্জ্বল মিয়া (১৮) ও একই গ্রামের মোতালীর পক্ষের সুজন মিয়া (২২)। এসময় দু’জনের মধ্যে বাকবিতন্ডা হয়। এক পর্যায়ে নামাজ শেষে মসজিদে আসা লোকজন উভয়পক্ষের দুইজনকে মিলিত করে দিলে তারা নিজ নিজ বাড়িতে ফিরে যায়।

শুক্রবার বিকালে দুলাল মিয়ার পক্ষের মনির হোসেন পার্শ্ববর্তী একতা বাজারে যাওয়ার পথে আমতৈল গ্রামের মড়ল বাড়ির পুকুর পাড়ে মোতালী পক্ষের সাদ্দাম ও সুজন নামে দুইজন মনির হোসেনকে মারপিট করে।

এর জের ধরে শনিবার (১১ এপ্রিল) বিকালে দুই পক্ষের লোকজন আমতৈল গ্রামের পিছনে দেশীয় অস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পরে। ঘন্টাব্যাপী এ সংঘর্ষে দুই পক্ষের অন্তত ২০ জন আহত হন।

সংঘর্ষের বিষয়টি নিশ্চিত করে বড়দল (উ.) ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আবুল কাসেম বলেন, মসজিদে দুই কিশোরের ঝগড়াকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষ সংঘর্ষ জড়িয়ে পড়ে। এ ঘটনায় আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য পাঠানো হয়েছে। সংঘর্ষের ঘটনাটি বাদাঘাট ফাঁড়ি পুলিশ ক্যাম্প ইনচার্জ মাহমুদুল হাসানকে অবগত করা হয়েছে এবং পুলিশ সহযোগিতায় আহতদের হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

তাহিরপুরের পল্লীতে সংঘর্ষের ঘটনায় তাহিরপুর থানার ওসি মো. আতিকুর রহমান বলেন, এ ঘটনায় থানায় কেউ এখনো অভিযোগ দায়ের করেনি। বিষয়টি খোঁজ নিয়ে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Sharing is caring!

Loading...
Open

Close