গভীর রাতে গোপনে চলছে যাত্রীবাহী বাস!

সুরমা টাইমস ডেস্ক::

প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে সরকারিভাবে সারা দেশে গণপরিবহন বন্ধ রাখার ঘোষণা দেওয়া হলেও, সরকারের এই নির্দেশনা অমান্য করে দিনাজপুরের কিছু কিছু জায়গায় গভীর রাতে চলছে যাত্রীবাহী বাস ও ভাড়ায় চালিত মাইক্রোবাস।

গত ২৪ মার্চ সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায় সরকার ২৬ মার্চ থেকে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত সারাদেশে গণপরিবহন বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তবে ট্রাক, কাভার্ডভ্যান, ওষুধ, জরুরি সেবা, জ্বালানি এবং পচনশীল পণ্য পরিবহন নিষেধাজ্ঞার বাইরে থাকবে। পণ্যবাহী যানবাহনে কোনো যাত্রী পরিবহন করা যাবে না বলে উল্লেখ করা হয়। কিন্তু সরকারের এই নির্দেশনা অমান্য করে প্রতিদিন গভীর রাতে গোপনে চলছে যাত্রীবাহী বাসসহ ভাড়ায় চালিত মাইক্রোবাস। এতে করে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার শঙ্কায় তৈরি হয়েছে সাধারণ মানুষের মধ্যে।

সরেজমিনে দিনাজপুরের ফুলবাড়ী উপজেলায় গত ৩ এপ্রিল স্থানীয় নিমতলা ও ঢাকা মোড় নামক স্থানে রাত ১০টা থেকে ১২টা পর্যন্ত ঢাকা-দিনাজপুর মহাসড়কে প্রায় ২০-২৫টি যাত্রীবাহী বাসসহ ভাড়ায় চালিত মাইক্রোবাস চলাচল করতে দেখা যায়।

এদিকে ফুলবাড়ী উপজেলার পার্শ্ববর্তী সীমান্ত এলাকা দেশমা নামক স্থান থেকে ঢাকা মেট্রো (ব-১১-৯৯-২৫) ওয়েলকাম ট্রান্সপোর্ট নামে একটি যাত্রীবাহী বাস ঢাকা বাইপাইল আশুলিয়া যাওয়ার উদ্দেশ্যে ছেড়ে আসলে, উপজেলার বেতদিঘী ইউনিয়নের পাকড়ডাঙ্গা নামক স্থানে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে থানা পুলিশ ওই যাত্রীবাহী বাসটি আটক করে। 

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে ফুলবাড়ী থানার ওসি ফকরুল ইসলাম বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ওই যাত্রীবাহী বাসটি আটক করে। যেহেতু সরকারিভাবে গণপরিবহন বন্ধের ব্যাপারে কোনো লিখিত নির্দেশনা পাওয়া যায়নি তাই মানবিক দিক বিবেচনা করে বাসটি ছেড়ে দেয়া হয়েছে। তবে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে সরকারের পক্ষ থেকে সারা দেশে লকডাউনসহ গণপরিবহন বন্ধ রাখার ঘোষণা দিলেও তা অনেকেই মানছেন না। এতে অনেকটাই হিমশিম খেতে হচ্ছে আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলোর। এমনটিই জানান তিনি।

Sharing is caring!

Loading...
Open

Close