কিশোরী ধর্ষণ মামলায় মাদরাসা শিক্ষক গ্রেপ্তার

কুমিল্লার দেবীদ্বারে এক মাদরাসা শিক্ষকের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগে মামলা হয়েছে। বুদ্ধি প্রতিবন্ধী এক কিশোরীকে (১৫) মঙ্গলবার তিনি ধর্ষণ করেন বলে অভিযোগ মিলেছে। পুলিশ মাওলানা বদিউল আলম মুন্সী (৫২) নামের অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করেছে। কিশোরী অভিযুক্তের নিকট আত্মীয় ও তাদের জমি নিয়ে বিরোধ আছে বলে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা জানান।

সূত্র জানায়, অভিযুক্ত মাওলানা বদিউল আলম মূন্সী রাজামেহার ফাজিল মাদরাসার শিক্ষক। তিনি রাজামেহার গ্রামের মৃত: কফিল উদ্দিন মুন্সীর ছেলে। প্রতিবেশির প্রতিবন্ধী মেয়েকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে বদিউলের বিরুদ্ধে। মঙ্গলবার সকাল ৮টা থেকে বেলা সাড়ে ১১টার মধ্যে এ ধর্ষণের ঘটনা ঘটে বলে কিশোরীর মা দাবি করেছেন। এ বিষয়ে মাওলানা বদিউল আলম মুন্সীকে একমাত্র আসামি করে দেবীদ্বার থানায় মামলা হয়েছে।

কিশোরীর মা জানান, মঙ্গলবার সকাল ৮ টার দিকে তিনি রাজামেহার বাজারে যান প্রতিবন্ধী মেয়েকে বাড়ি রেখে। বেলা সাড়ে ১১টায় ফিরে দেখতে পান মেয়ে বিবস্ত্র এবং ঘর থেকে দৌড়ে পালিয়ে যান বদিউল।

এ বিষয়ে মামলা গ্রহণের পর দেবীদ্বার থানা পুলিশ বুধবার সকালে মাওলানা বদিউল আলম মুন্সীকে নিজ বাড়ি থেকে আটক করে।

রাজামেহার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এডভোকেট জাহাঙ্গীর আলম সরকার বলেন,’অভিযুক্ত বদিউল আলম মুন্সী ধার্মিক লোক। তার সাথে জমিজমা নিয়ে বিরোধ আছে কিশোরীর মায়ের। মামলার বাদিকে নানা অপরাধে একাধিকবার সালিসে সাজা দেয়া হয়েছে। এজন্য তার অভিযোগ বিশ্বাস করা কঠিন। তবে সবকিছু নির্ভর করছে ঘটনার তদন্তের উপর।’

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই মিঠুন সিংহ বলেন, ‘বাদির অভিযোগের ভিত্তিতে মামলা রুজু হয়েছে। ঘটনা তদন্তে কিশোরীকে ডাক্তারী পরীক্ষার জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এ মূহূর্তে ঘটনার ব্যাপারে কোনও মন্তব্য করা সম্ভব নয়।

Sharing is caring!

Loading...
Open

Close