নিবিড় সম্পর্কের প্রবাসীরা এখন আতঙ্ক !

করোনাভাইরাসের কারণে সুনামগঞ্জের প্রবাসী অধ্যুষিত জগন্নাথপুর উপজেলার প্রবাসীরা এখন আতঙ্কের নাম! প্রবাসীদের দেখলেই আগে লোকজন কাছে গিয়ে কুশল বিনিময় করতো আর এখন প্রবাসীদের দেখলে লোকজন এড়িয়ে চলছেন। এমনকি প্রবাসীরা এগিয়ে এসে কুশল বিনিময় করতে চাইলে বাধার সম্মুখীন হচ্ছেন। উপজেলার কয়েকটি ব্যাংক ব্যাংকের সামনে প্রবাসীদের ব্যংকে না আসতে কাগজ সাঁটিয়েছে।


সংশ্লিষ্টদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, একটি পৌরসভা ও আটটি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত এ উপজেলার প্রবাসীদের সঠিক পরিসংখ্যান না থাকলেও উল্লেখযোগ্য সংখ্যক প্রবাসী রয়েছেন এ উপজেলায়। প্রবাসীদের ভালোবেসে জনপ্রতিনিধি নির্বাচিত করা হয়েছে। উপজেলার আট ইউনিয়নের মধ্যে সাতজন নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিও রয়েছেন প্রবাসী।


জগন্নাথপুর উপজেলা নাগরিক ফোরাম আহ্বায়ক নুরুল হক বলেন, প্রবাসীদের সাথে আমাদের নাড়ীর নিবিড় সম্পর্ক রয়েছে। দেশের সকল দুর্যোগে তাদের অবদান অনস্বীকার্য। যেহেতু প্রবাসীদের মাধ্যমে আমাদের দেশে করোনাভাইরাস ছড়াচ্ছে তাই প্রবাসীরা বর্তমান সময়ে কিছুটা আতঙ্ক। তিনি বলেন প্রবাসীরা আমাদের ভালোবাসার নাম। দেশের বৃহত্তর স্বার্থে তাদের উচিত দেশে আসার পর হোম কোয়ারেন্টিন মেনে চলা। কিন্তু তারা তা না মানায় বিপত্তি দেখা দিয়েছে।


যুক্তরাজ্য প্রবাসী লুৎফুর রহমান বলেন, আমি তিন মাস আগে দেশে এসেছি। যারা সম্প্রতি এসেছেন এলাকার মানুষ, স্বজন ও দেশের স্বার্থে হোমকোয়ারেন্টিন মেনে চলা দরকার। এবিষয়কে প্রবাসীদের ভিন্নভাবে দেখার সুযোগ নেই।


নাম প্রকাশ না করার শর্তে একজন যুক্তরাজ্য প্রবাসী বলেন, আমি একজন সুস্থ মানুষ। সম্প্রতি দেশে এসেছি। ঘর থেকে বের হলে লোকজন মনে করে আমার শরীরে যেন করোনা ভাইরাসের জীবাণু। তাদের আচরণে আমরা হতাশ।


জগন্নাথপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা মধু সুধন ধর জানান, জগন্নাথপুর উপজেলায় সাম্প্রতিককালে ৫৫০ জন প্রবাসী দেশে এসেছেন। তার মধ্যে হোম কোয়ারেন্টিনে গতকাল পর্যন্ত ২৮৫ জন রয়েছেন। অনেক প্রবাসীদের বাড়িতে গিয়ে পাওয়া যাচ্ছে না তাঁরা আত্বীয় স্বজনদের বাড়িতে আশ্রয় নিয়েছেন।
জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহ্ফুজুল আলম জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম কে বলেন, জগন্নাথপুর একটি প্রবাসী অধ্যুষিত উপজেলা। অনেক প্রবাসী দেশে এসে হোম কোয়ারেন্টিন না মেনে ঘুরাফেরা করছেন। তাই তাদের কে নিয়ে আমরা চিন্তিত।

Sharing is caring!

Loading...
Open

Close