‘শিক্ষার্থীদের সাথে এমন আচরণ করা যাবে না যাতে তাদের মন ভেঙ্গে যায়’—জৈন্তাপুরে জেলা প্রশাসক

জৈন্তাপুর প্রতিনিধি ::

‘মানুষের হৃদয় ভাঙলে দেখা যায়না, কিন্তুু কারো শরীরের কোন অঙ্গ ভাঙ্গলে সবাই দেখতে পায়। আমরা সন্তানদের স্কুলে পাঠাই সুন্দর মানুষ হিসেবে গড়ে তোলার জন্য। শিক্ষার্থীদের সাথে এমন আচরণ করা যাবে না যাতে তাদের মন ভেঙ্গে যায়। কোন কারনে একজন শিক্ষার্থীর  মন ভেঙ্গে গেলে হয়তো সে আর শিক্ষা গ্রহন না করে স্কুল ত্যাগ করে চলে যায়।  এতে ক্ষতি হয় দেশ ও জাতির। পূর্ব পুরুষরা যে ভাবে শিক্ষা দিয়ে গেছেন, আমাদের সে ভাবে শিক্ষা দিতে হবে, শিক্ষার্থীদের সাথে সৌহার্দ্যপূর্ন আচরনই হতে পারে একজন শিক্ষক ও শিক্ষার্থীর মধ্যে অভিভাবকের সেতুবন্ধন।’

জৈন্তিয়াপুর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের বার্ষিক ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অথিতির বক্তব্যে সিলেটের জেলা প্রশাসক এম কাজী এমদাদুল ইসলাম আরো বলেন- ‘কোন শিক্ষার্থী অপরাধ করলে  আলোচনার মাধ্যমে বিষয়টি সমাধান করে নিতে হবে, কখনো তাদেরকে অপমান করা যাবে না। আপনার যদি কোন কিছু করার নাই বা থাকে তবে শিক্ষার্থীদের কোন ক্ষতি করা যাবে না। আমাদেরকে এমন আচরণ শিক্ষার্থীর নিকট থেকে বিরত থাকতে হবে যেন কোন শিক্ষার্থী স্বর্ণ কিশোরী ফাউন্ডেশনের কাছে যেতে না হয়।

বৃহস্পতিবার (১২ মার্চ) আয়োজিত অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জৈন্তাপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কামাল আহমদ, ১৭ পরগনা সালিশ সমন্বয় কমিটির সভাপতি আবু জাফর আবুল মৌলা চৌধুরী, স্বর্ণ কিশোর-কিশোরী নেটওয়ার্ক ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান ফারজানা ব্রাউনিয়া।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাহিদা পারভীনের সভাপতিত্বে এবং স্কুলের সাবেক ছাত্রী তৃপ্তির পরিচালনায় আরো বক্তব্য রাখেন সহকারি কমিশনার (ভূমি) ফারুক হোসেন, জৈন্তাপুর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ শ্যামল বণিক , জৈন্তাপুর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান বশির উদ্দিন, জৈন্তাপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি শাহেদ আহমদ, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা সোলায়মান হোসেন, একাডেমিক সুপারভাইজার আজিজুল হক খোকন, জৈন্তিয়াপুর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি হায়দার আলী, উপজেলা শ্রমিক লীগের সভাপতি ফারুক আহমদ, সমাজসেবী আব্দুল মতিন শাহীন।

Sharing is caring!

Loading...
Open

Close