করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে গোয়াইনঘাট উপজেলা প্রশাসনের বাড়তি নজরদারি

গোয়াইনঘাট প্রতিনিধি ::

বিশ্বব্যাপি ছড়িয়ে পড়া প্রাণঘাতি করোনা ভাইরাস জনিত স্বাস্থ্য সচেতনতায় সিলেটের গোয়াইনঘাট প্রশাসনের পক্ষ থেকে বাড়তি নজরধারী চলছে।

সদ্য সমাপ্ত উপজেলা পরিষদ আইনশৃংখলা সভার সিদ্ধান্ত মোতাবেক এরই ধারাবাহিকতাায় সিলেটের ব্যস্ততম তামাবিল স্থলবন্দর পরিদর্শন করেছেন পরিদর্শন করেছেন গোয়াইনঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. নাজমুস সাকিব।

গোয়াইনঘাট উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ফারুক আহমদকে সাথে নিয়ে তিনি বুধবার সকাল ১১টায় তামাবিল স্থল বন্দর পরিদর্শন করেন।

এসময় তিনি তামাবিল কাষ্টমস ইমিগ্রেশনে কাষ্টমস বিভাগ, ইমিগ্রেশন পুলিশ, বিজিবি, চিকিৎসক,গণমাধ্যম কর্মী, স্থানীয় ব্যবসায়ীসহ সুধি সমাজের সাথে বৈঠক করেন।

এসময় করোনা ভাইরাস থেকে বাংলাদেশের মানুষদের বাঁচাতে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে গণসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষে লিফলেট বিতরণ, সীমান্তে ভারতীয় মানুষজনসহ আগতদের আনাগোনা, অনুপ্রবেশ ঠেকাতে নজরদারি গুরুত্বারোপ করা হয়। ভারতীয় পাথর, কয়লাবাহী গাড়ির চালকদের স্কীনিংসহ করোনা সনাক্তকরণ প্রক্রিয়ায় গৃহিত মেডিকেল টিমের মাধ্যমে পরীক্ষা শেষে প্রবেশের বিষয়টি আলোচনা সভায় সিদ্ধান্ত হয়।

সভায় ব্যবসায়ী ও রাজস্ব কর্মকর্তারা আমাদানিকৃত পাথর কয়লার বিপরীতে প্রচুর রাজস্ব আদায় হয়ে থাকে। যে কারণে ভারতীয় চালকদের স্বাস্থ্য পরীক্ষার সময় বিনষ্টের দ্বারা রাজস্ব আদায় প্রতিবন্ধকতায় গঠিত মেডিকেল টিমে আরও কজন ডাক্তার নিয়োগদানে দৃষ্টি আকর্ষন করলে উপজেলা নির্বাহী অফিসারি বষয়টি জেলা প্রশাসক ও সিভিল সার্জনের সাথে আলাপ করে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস দেন।

এসময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- তামাবিল কাষ্টমসের রাজস্ব কর্মকর্তা সজিব মিয়া, মো. ইব্রাহিম খলিল, পর্যটন পুলিশ জাফলং জোনের ইন্সপেক্টর রতন শেখ, তামাবিল ইমিগ্রেশন ফাড়ি ইনচার্জ এস আই মওদুদ আহমেদ রুমি, বিজিবি তামাবিল ফাড়ির নায়েব সুবেদার রবিউল ইসলাম মেডিকেল টিমের ডাক্তারগণ, আমদানিকারক ব্যবসায়ী জালাল উদ্দিন, ইসমাইল হোসেন প্রমুখ।

Sharing is caring!

Loading...
Open

Close