জৈন্তাপুরে ডাকাতির ঘটনায় আরেকজন আটক, মোবাইল উদ্ধার

জৈন্তাপুর প্রতিনিধি :: সিলেটের জৈন্তাপুরে থানা পুলিশের অভিযানে ডাকাতির ঘটনায় দায়ের করা মামলার নতুন করে আরেক ডাকাতকে আটক ও ২টি মোবাইল সেট উদ্ধার করেছে পুলিশ ।এ নিয়ে মোট ৬ ডাকাতকে আটক করা হয়েছে। 

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, ২০ ফেব্রয়ারি রাত আড়াইটার দিকে ১৫-১৬ জনের একটি মুখোশধারী ডাকাতদল উপজেলার নিজপাট ইউনিয়নের পূর্ব লক্ষীপ্রসাদ গ্রামের ডাক্তার সিদ্দিক মিয়ার বাড়ীর ভিতরে প্রবেশ করে দেশীয় লোহার তৈরি পাইপগান দ্বারা বাড়ীর সকলকে জিম্মি করে নগদ ১ লক্ষ ৮১ হাজার ৫ শত টাকা এবং ৩ লক্ষ ২৫ হাজার টাকা মূল্যের স্বর্ণালংকার, ৮টি মোবাইল সেট লুন্ঠন করিয়া নিয়া যায়। ২৩ ফেব্রুয়ারী ভোর রাতে উপজেলার রুপচেং গ্রামের কেরামত আলী উরফে বোদাই মিয়ার বাড়ীতে অভিযান পরিচালনা করে সুনামগঞ্জ জেলার ধর্মপাশা ইউনিয়নের বাদশাগঞ্জ গ্রামের মৃত আলম বেগ’র ছেলে আলকাস বেগ(৩২) কে আটক করা হয়। ডাকত সদস্যের নিকট হতে লুন্ঠিত ২টি (সেম্ফনী ভি-১৫৫ এবং অপো-এ৩এস) মডেলের দুটি মোবাইল সেট উদ্ধার কওে পুলিশ।

প্রসঙ্গত: ডাকাতির ঘটনার ২৪ ঘন্টার মধ্যে জৈন্তাপুর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ শ্যামল বনিকের নেতৃত্বে অভিযান পরিচালনা করে রুপচেং গ্রামের ডাকাতির ঘটনার ধৃত আসামী আব্দুল হাকিম কিবরিয়ার বসতঘর হতে তাৎক্ষনিক ভাবে ৫ডাকাত সদস্য আটক করা হয়। আটককৃতরা হল- ব্রাহ্মণবাড়ীয়া জেলার ব্রাহ্মণবাড়ীয়া সদর থানার চাঁনপুর (পাগাচং) গ্রামের মোহাম্মদ আলী প্রকাশ জজ মিয়া প্রকাশ আইনুল হকের ছেলে আব্দুল হাকিম কিবরিয়া(৩২), সুনামগঞ্জ জেলার জগন্নাথপুর থানার স্বজনশ্রী গ্রামের মৃত আব্দুল কাইয়ুমের ছেলে ফজলু মিয়া(৩০), জৈন্তাপুর উপজেলার রুপচেং গ্রামের মৃত সামছুল হকের ছেলে মো. রাসেল(১৯), একই গ্রামের ফজলুল হকের ছেলে আমিনুল ইসলাম(১৯), একই গ্রামের রুস্তম আলীর ছেলে মো. মোশারফ(১৯) আটক করা হয়। আটককৃত ডাকাত সদস্যদের নিকট হতে লুন্ঠিত টাকার ২০ হাজার এবং দেশীয় লোহার তৈরি ২রাউন্ড গুলি সহ ২টি ওয়ান শুটার পাইপগান এবং ১টি সেম্ফনি ভি-১৫৫ এবং ১টি অপো-এ৩এস উদ্ধার করা হয়।

জৈন্তাপুর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ শ্যামল বনিক জানান, ডাকাতির ঘটনার পর তাৎক্ষণিকভাবে ১১ঘন্টার মধ্যে ২টি অস্ত্রসহ ৫ডাকাত সদস্য আটক করি। অপর আসামিদের ধরতে পুলিশ বিভিন্ন স্থানে অভিযান পরিচালনা করছে। গোপন সংবাদের ভিত্তিত্বে আমরা আলকাস বেগ(৩২) আটক করতে সক্ষম হই, গতকাল দুপুরে আটককৃত ডাকাত সদস্যকে আদালতে প্রেরণ করি। অন্যান্য আসামীদের গ্রেফতার করতে আমার ২টি স্পোশাল টিম অভিযান অব্যহত রেখেছে।

Sharing is caring!

Loading...
Open

Close