সিলেটে সরস্বতী পূজার শোভাযাত্রায় ঐতিহ্য সংস্থাপনের লক্ষ্যে কনভেনশন অনুষ্ঠিত

ঐতিহ্য ও সংস্কৃতিপ্রেমী ও নাগরিকবৃন্দের আয়োজনে গতকাল ২২ ফেব্রুয়ারি বিকাল সাড়ে ৫টায় মদন মোহন কলেজের শিক্ষক মিলনায়তনে আয়োজন করা হয়,‘সিলেটে সরস্বতী পূজার শোভাযাত্রায় ঐতিহ্য সংস্থাপনের লক্ষ্যে কনভেনশন ২০২০’।

শুরুতেই রবীন্দ্রনাথের পূজা পর্যায়ের দুটি গান দিয়ে কনভেনশনের সূচনা করেন শিল্পী অনিমেষ বিজয় চৌধুরী ও তাঁর দল। মদন মোহন কলেজের অধ্যক্ষ সর্বানী অর্জুনের সভাপতিত্বে ও তথ্যচিত্র নির্মাতা নিরঞ্জন দে যাদু’র সঞ্চালনায় কনভেনশনের উদ্দেশ্য নিয়ে স্বাগত বক্তব্য রাখেন নিলাঞ্জন দাস টুকু।

মতামত ও নির্দেশনামূলক বক্তব্য রাখেন- সিলেট জেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি তাপস দাস পুরকায়স্থ, অধ্যাপক জয়ন্ত দাস, হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদ সিলেট জেলা শাখার সভাপতি প্রদীপ ভট্টাচার্য, অধ্যাপক শরদিন্দু ভট্টাচার্য, সম্মিলিত নাট্য পরিষদ সিলেটের সভাপতি মিশফাক আহমদ মিশু, রাজনৈতিক কর্মী এটিএম হাসান জেবুল, পূজা উদযাপন পরিষদের নেতা সুব্রত দেব, আওয়ামী লীগ নেতা বিধান সাহা, এডিশনাল পিপি ও আওয়ামী লীগ নেতা রনজিত সরকার, আওয়ামী লীগ নেতা তপন মিত্র, বিভাষ শ্যাম যাদন, আওয়ামী লীগ নেতা সুদীপ দে, লেখক সঞ্জয় কুমার নাথ, সাংবাদিক আহমাদ সেলিম, নাট্যজন বেলাল আহমদ, অরূপ শ্যাম বাপ্পী, শিক্ষক বিপ্লব নন্দী, ভানু জয় দাস, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা অরুন দেব নাথ সাগর, নন্দ কিশোর রায়, প্রভাষক সুমন রায় প্রমুখ।

বক্তারা উপমহাদেশের ঐতিহ্যের স্মারক সরস্বতী পূজার শোভাযাত্রার সনাতন সাত্ত্বিক ধারা বজায় রাখার পক্ষে মত দেন। শব্দদূষণসহ ধর্মের বিধান বিবর্জিত কর্মকা- বন্ধ করতে সিলেটের রাজনৈতিক, সামাজিক ও প্রশাসনের সঙ্গে মতবিনিময়সহ প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করতে একমত হন উপস্থিত ব্যক্তিবর্গ।

আয়োজকরা জানিয়েছেন- উক্ত কনভেনশনের মূল বিষয়বস্তু হলো, বিগত প্রায় ৭-৮ বছর যাবত এই শোভাযাত্রা নানা কারণে তার সুনাম ও ঐতিহ্য হারাতে চলেছে। সাউন্ড সিস্টেমের প্রচন্ড শব্দদূষণ, চটুল হিন্দি গান, আর উদ্দামতা এই শোভাযাত্রার মাধুর্য ধুলায় মিশিয়ে দিয়েছে। একটি বহু ধর্ম ও সংস্কৃতির যৌগিক সমাজে এটি সবার কাছেই নিন্দনীয় ও হতবাক হওয়ার মতো বিষয়ে পরিণত হয়েছে। তাই ঐতিহ্য রক্ষা হোক, উৎসব আনন্দের সাথে উদযাপিত হোক কিন্তু অপকর্ম দূর হোক, দূরহোক বিবেক বর্জিত যত অন্ধকার আস্ফালন, এই বিষয়টিকে প্রধান্য দিয়ে সবাইকে কাজ করার জন্য বৃহত্তর কর্মসূচী হাতে নেওয়া হবে।

সামগ্রিক বিষয়টি নিয়ে পাড়া-মহল্লা, স্কুল-কলেজের সকল পূজারিবৃন্দ ও সংস্কৃতি প্রেমী নাগরিকদের মূল্যবান মতামত প্রদান করার জন্য এই কনভেনশনের আয়োজন করা হয়। ধর্মীয় উৎসবের ভাবগাম্ভীর্য রক্ষার জন্য, সিলেটের ঐতিহ্য রক্ষার জন্য সচেতন মূল্যবোধ নিয়ে এগিয়ে আসার আহবান জানিয়েছেন আয়োজকরা।

Sharing is caring!

Loading...
Open

Close