শাবির ৩ শিক্ষার্থী বহিষ্কারের ঘটনায় হয়রানির পাল্টাপাল্টি অভিযোগ

তিন শিক্ষার্থী বহিষ্কারের ঘটনায় হয়রানির পাল্টাপাল্টি অভিযোগ তুলেছেন শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (শাবি) মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষার্থীরা।

সম্প্রতি র‌্যাগিংয়ের দায়ে বহিষ্কৃত তিন শিক্ষার্থীর বিরুদ্ধে নবীন এক শিক্ষার্থীর যে অভিযোগ ছিল; তা মূলত যৌন হয়রানির ঘটনাকে ধামাচাপা দিতে উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে করা বলে অভিযোগ করেছেন বিভাগের অন্যান্য শিক্ষার্থীরা।

গত ১৩ ফেব্রুয়ারি সৈয়দ মোস্তাকিম শাকিব নামে মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের নবীন এক শিক্ষার্থীকে র‌্যাগিং ও মানসিক নির্যাতনের অভিযোগে এই বিভাগের ২০১৬-১৭ বর্ষের শিক্ষার্থী সোহেল রানা, ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষের নাফি আনোয়ার সাদি ও নূর-ই-আলম সিদ্দিকিকে সাময়িক বহিষ্কার করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

র‌্যাগিং এর প্রাথমিক সত্যতা পাওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে এই ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রক্টর সামিউল ইসলাম।

কিন্তু মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষার্থীদের দাবি, র‌্যাগিং এর অভিযোগকারী সৈয়দ মোস্তাকিম শাকিবের বিরুদ্ধে এর আগে যৌন হয়রানির অভিযোগ করেছেন তার এক সহপাঠী। এ ঘটনার মীমাংসার জন্য সিনিয়র শিক্ষার্থীরা তাকে মেসে ডেকে নিয়ে বুঝানোর চেষ্টা করেন। কিন্তু সেই ঘটনাকে ধামাচাপা দিতে শাকিব তিন সিনিয়রের বিরুদ্ধে মিথ্যা র‌্যাগিংয়ের অভিযোগ করেছেন।

তারা বলছেন, রাতারাতি এই মিথ্যা র‌্যাগিং অভিযোগে কোনো ধরনের তদন্ত ছাড়াই তিন শিক্ষার্থীকে বহিষ্কার করা হয়েছে। এতে সহযোগিতা করেছেন শাকিবের মামা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড পলিমার সায়েন্স বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ জুবায়ের বিন মুখলিছ।

তিন শিক্ষার্থীকে বহিষ্কারের ঘটনায় মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষার্থীরা সংবাদ মাধ্যমে একটি প্রতিবাদলিপি পাঠিয়েছেন। এতে বিভাগের ৯৩ শিক্ষার্থীর স্বাক্ষর রয়েছে। তারা পুনরায় তদন্তের মাধ্যমে তিন শিক্ষার্থীর বহিষ্কার আদেশ বাতিলের দাবি জানিয়েছেন।

প্রতিবাদ লিপিতে তারা বলেন, মোস্তাকিম শাকিব ভর্তির পর থেকেই মেয়েদের অনবরত যৌন হয়রানি করে আসছিল। মেয়েরা অতিষ্ঠ হয়ে উঠলে আমরা গত ৯ ফেব্রুয়ারি তাকে বুঝানোর জন্য বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের বাইরে পাঠানটুলার একটি মেসে নিয়ে যাই। সেখানে বিভাগের অন্তত ৫০ শিক্ষার্থী ছিলেন। সকলের উপস্থিতে তাকে আমরা মেয়েদের হয়রানি করা থেকে বিরত থাকতে বলি। কিন্তু সে উল্টো অভিযোগকারী মেয়েদের হুমকি দিতে লাগল।

তারা বলেন, ১৩ ফেব্রুয়ারি মেয়েদের নিরাপত্তার স্বার্থে বিভাগের শিক্ষক ও ছাত্র উপদেষ্টাদের কাছে মোস্তাকিমের বিরুদ্ধে যৌন নিপীড়নের অভিযোগ দেয় হয়রানির শিকার এক ছাত্রী। কিন্তু মোস্তাকিম যৌন হয়রানির ঘটনাকে ধামাচাপা দিতে ওই দিনই উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে শুধুমাত্র সিনিয়র তিন শিক্ষার্থীর বিরুদ্ধে র‌্যাগিং এর অভিযোগ এনে প্রক্টরিয়াল বডির কাছে শাস্তির আবেদন করেন। সে ঘটনায় ওই দিনই তাৎক্ষণিকভাবে তিন শিক্ষার্থীকে সাময়িক বহিষ্কার করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন, যেটা অযৌক্তিক।

অনুসন্ধানে জানা যায়, ৯ ফেব্রুয়ারি মোস্তাকিমকে যৌন হয়রানির ঘটনায় বিভাগের সিনিয়ররা পাঠানটুলার মেসে বুঝাতে নিয়ে গিয়েছিলেন ঠিকই; কিন্তু সেখানে তাকে মানসিক নির্যাতন, বকাঝকাও করা হয়েছিল।

মোস্তাকিমের র‌্যাগিং অভিযোগের আড়ালে যৌন নিপীড়নের মূল ঘটনা চাপা পড়ে যায়। হয়রানির শিকার ছাত্রী বিভাগের শিক্ষক ও পরবর্তীতে যৌন হয়রানি ও নিপীড়ন নিরোধ সেলে লিখিত অভিযোগ দিলেও এখন পর্যন্ত কোনো বিচার কার্যক্রমের তৎপরতা দেখা যায়নি।

কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড পলিমার সায়েন্স বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ জুবায়ের বিন মুখলিছ বলেন, মোস্তাকিমের সাথে আমার রক্তের সম্পর্ক নেই। এ বিষয়ে আমি মন্তব্য করতে রাজি নই।

মোস্তাকিমের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির বিষয়ে মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের প্রভাষক নাফিজা আনজুম বলেন, লিখিত অভিযোগ দেওয়ার আগ থেকেই তারা আমাকে মৌখিকভাবে বিষয়টি জানিয়েছিলো। তখন ক্যাম্পাসে ছিলাম না। পরবর্তীতে গত ১৩ তারিখ মেয়েটি আমাকে লিখিত অভিযোগ দিলে বিভাগীয় প্রধানের কাছে পাঠিয়েছিলাম।

বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক ড. মুশতাক আহমেদ জানান, অভিযোগপত্রটি উপাচার্যের কাছে দেওয়া হলে তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের যৌন হয়রানি ও নিপীড়ন বিরোধী সেলের কাছে পাঠিয়েছেন।

এ ব্যাপারে যৌন হয়রানি ও নিপীড়ন বিরোধী সেলের প্রধান অধ্যাপক ড. নাজিয়া চৌধুরী বলেন, আমাদের এখানে অভিযোগ এসেছে। আমরা বিষয়টি নিয়ে বসেছি। তদন্ত শেষে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

সহকারী প্রক্টর সহযোগী অধ্যাপক সামিউল ইসলাম বলেন, প্রাথমিকভাবে র‌্যাগিংয়ের অভিযোগের যে বিষয়গুলো ছিলো সেগুলো আমাদের কাছে প্রমাণিত। সেই অনুযায়ী আমরা রিপোর্ট দিয়েছি। এখন অধিকতর তদন্তের জন্য আরেকটি কমিটি হয়েছে।

যৌন হয়রানির অভিযোগের বিষয়ে তিনি বলেন, র‌্যাগিংয়ের কারণ হিসেবে তারা যৌন হয়রানির কথা উল্লেখ করেছে। প্রাথমিক তদন্তের পরে তারা যৌন হয়রানির অভিযোগ দিয়েছে।

Sharing is caring!

Loading...
Open

Close