সিলেট নগরীতে বেপরোয়া টিআই মুকিতের চাঁদাবাজি বাণিজ্য

স্টাফ রিপোর্টার :: সিলেট নগরীর সুরমা পয়েন্টে ট্রাফিক পুলিশের মদদে বসছে সিএনজি অটোরিক্সার অবৈধ স্ট্যান্ড। প্রতিদিন সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত শতাধিক সিএনজি পার্কিং করে থাকে। এই স্ট্যান্ডের কারণে যেমন যানবহন চালাচলে নিষেধাঙ্গা ও যানজট সৃষ্টি হয়। ঠিক তেমনি মানুষের চলাচলের অসুবিধা হচ্ছে। সুরমা পয়েন্ট থেকে জালালাবাদ পার্ক পর্যন্ত দুই সারিতে প্রায় শতাধিক গাড়ি রাখার নির্দেশ দিয়েছেন টিআই আব্দুল মুকিত।

জানা গেছে, দীর্ঘদিন থেকে নগরীর সুরমা পয়েন্টে এই অবৈধ স্ট্যান্ড বসিয়ে হাজার হাজার টাকা আদায় করছে ট্রাফিক পুলিশ। মূলত এখানে কোন স্ট্যান্ডের অনুমেদন নেই। কোর্ট পয়েন্টে হচ্ছে সিএনজি অটোরিক্সার জন্য নির্ধারিত স্ট্যান্ড। এটা সম্পর্ণ রূপে অবৈধ স্ট্যান্ড।

সিলেট মহানগর পুলিশের উপপুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক) ফয়সাল মাহমুদ এর অভিযানে নগরীর বিভিন্ন অবৈধ স্ট্যান্ড উচ্ছেদ করা হলেও বহাল তবিয়তে সুরমা পয়েন্টর এই অবৈধ স্ট্যান্ড।

বর্তমানে এই স্ট্যান্ডটি টিআই আব্দুল মুকিত এর নেতৃত্বে রয়েছে। তিনি এখানকার সিএনজি চালকদের কাছ থেকে দৈনিক বড় অংকের টাকা আদায় করে সিএনজির স্ট্যান্ড বসিয়েছেন। যার ফলে এই চালকদের বিরুদ্ধে কেউ প্রতিবাদ করলে অথবা গাড়ি সরানোর কথা বললে চালকরা টিআই মুকিতের সাথে আলাপ করার কথা বলেন। টিআই মুকিত টাকার বিনিময় এখানে গাড়ি রাখার এবং অবৈধ স্ট্যান্ড বসানোর নির্দেশ দিয়েছেন বলে জানান তারা।

এ বিষয়ে টিআই আব্দুল মুকিতের সাথে তার ব্যাবহৃত মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আগে সিএনজি রাখা হতো যাত্রী ছাউনির পাশে। এখানো যানজট হওয়ার কারণে এখন সুরমা পয়েন্ট থেকে জালালবাদ পার্কের সামন পর্যন্ত গাড়ি রাখার নির্দেশ দিয়েছি।

Sharing is caring!

Loading...
Open