সাতছড়ি জাতীয় উদ্যানে ফের গণধর্ষণ

চুনারুঘাট (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি ::

হবিগঞ্জের চুনারুঘাট সাতছড়ি জাতীয় উদ্যানে এক কলেজ ছাত্রী গণর্ধষণের শিকার হয়েছেন বলে অভিযোগ মিলেছে। ধর্ষণের শিকার তরুণী (১৯) বাদি হয়ে বুধবার হবিগঞ্জের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে মামলা দায়ের করেছেন। এ ঘটনায় পুলিশ কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি। গত মাসে জাতীয় উদ্যানে ধর্ষণের শিকার হয় এক স্কুলছাত্রী।

সূত্র জানায়, বুধবার হবিগঞ্জের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে মামলা দায়ের করেছেন এক তরুণী। তিনি গণধর্ষণের জন্য অভিযুক্ত করেছেন পাঁচজনকে। শুনানি শেষে ট্রাইব্যুনালের বিচারক জিয়া উদ্দিন মাহমুদ মামলাটি এফআইআর হিসেবে রুজু করে চুনারুঘাট থানার ওসিকে তদন্ত করার নির্দেশ দিয়েছেন।

অভিযোগে জানা যায়, সদর উপজেলার বাতাসর গ্রামের শাশীম আহম্মেদ মামুনের সাথে প্রেমের সম্পর্ক ছিল তরুণীর। হবিগঞ্জ বৃন্দাবন কলেজে অধ্যায়নরত ছাত্রীকে নিয়ে মামুন বিভিন্ন স্থানে বেড়াতে যেতেন। বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে মামুন তরুণীর সাথে শারীরিক সম্পর্ক গড়ে তোলেন। এরই এক পর্যায়ে মঙ্গলবার দুপুরে সাতছড়ি জাতীয় উদ্যানে ডেকে নেন তরুণীকে। সেখানে মামুন নিজে ধর্ষণ করার পাশাপাশি চার যুবকের হাতে তুলে দেন তরুণীকে। গণধর্ষণে অংশ নেন ফজলুর রহমান (২৪), আলী হোসেন (২৫), জুনেদ(২৩) ও লতিফ(২৭) নামের যুবকরা। ঘটনার পর কলেজ ছাত্রী লোকালয়ে পৌছে চিৎকার শুরু করেন। তখন স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে হবিগঞ্জ হাসপাতালে ভর্তি করেন।

গত ১১ই ডিসেম্বর সাতছড়ি জাতীয় উদ্যানে প্রেমিকের সাথে বেড়াতে গিয়ে এক স্কুলছাত্রী গণধর্ষনের শিকার হয় বলে অভিযোগ রয়েছে। এক মাসের মধ্যে ফের গণধর্ষণের ঘটনায় স্থানীয়রা উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন।

Sharing is caring!

Loading...
Open

Close