দেশের বিভিন্নস্থানে একদিনে ঝরলো ১১ প্রাণ

দেশের বিভিন্ন স্থানে গতকাল সড়ক দুর্ঘটনায় ১১ জন নিহত হয়েছেন। এদের মধ্যে কক্সবাজারের রামুতে ৩ জন, লক্ষ্মীপুরে ৪ জন, বগুড়ায় ২ জন, হবিগঞ্জের মাধবপুরে ১ জন ও ভোলার চরফ্যাশনে ১ জন নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। এসব ঘটনায় আহত হয়েছেন আরো অর্ধশতাধিক। বিস্তারিত প্রতিনিধিদের পাঠানো তথ্যে-
রামু (কক্সবাজার) প্রতিনিধি জানান, চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কের রামুর জোয়ারিয়ানালা গ্রামীণ ব্যাংকের পাশে চট্টগ্রামগামী যাত্রীবাহী শ্যামলী (ঢাকা মেট্রো ব ১৫-১১০৫) বাসের সঙ্গে কক্সবাজারগামী একটি প্রাইভেট (চট্ট মেট্রো গ ১৩-৫২১১) কারের মুখোমুখি সংঘর্ষে তিনজন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরো আটজন। বুধবার দিবাগত রাত সাড়ে দশটার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত ৩ জনই প্রাইভেট কারের যাত্রী। নিহতরা হলেন, চট্টগ্রামের চন্দ্রিকা এলাকার মৃত গোলাম কিবরিয়ার ছেলে মাসুদ

কিবরিয়া, বায়েজীদ বোস্তমির আতরের ডিপু এলাকার নূর আহমদের পুত্র জানে আলম এবং পাহাড়তলীর মকবুল আহমদের পুত্র জামাল আহমদ।
জোয়ারিয়ানালা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কামাল শামসুদ্দিন আহমেদ প্রিন্স ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি জানান, লক্ষ্মীপুরে চাকা বিস্ফোরিত হয়ে একটি পিকআপ ভ্যান রাস্তার পাশের খাদে পড়ে চার জন নিহত হয়েছেন। গতকাল সকালে লক্ষ্মীপুর-ঢাকা মহাসড়কের পল্লী বিদ্যুৎ এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। এঘটনায় আরও ১৪ জন আহত হয়েছে। নিহতরা হচ্ছেন- সদর উপজেলার সমসেরাবাদ এলাকার নুরুল আমিনের ছেলে খোরশেদ আলম, টুমচর এলাকার পাটওয়ারীর ছেলে রফিক উল্যাহ, আবিরনগর এলাকার নজির আহমদের ছেলে মফিজ উল্যাহ ও একই উপজেলার বাসিন্দা আবদুর নুর। পুলিশ ও এলাকাবাসি জানায়, লক্ষ্মীপুরের মজুচৌধুরীরহাট থেকে ১৮ জন নিমার্ণ শ্রমিক পিকআপ ভ্যানে করে কাজ করার উদ্দেশ্যে চন্দ্রগঞ্জ বাজারে যাচ্ছিলেন। পিকআপটি পল্লী বিদুৎ এলাকায় পৌঁছলে হঠাৎ গাড়ির সামনের চাকা বিস্ফোরিত হয়ে পিকআপ ভ্যানটি রাস্তার পাশের খাদে পড়ে যায়। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা ও পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে মরদেহ উদ্ধার করে হাসপাতাল মর্গে পাঠায়। লক্ষ্মীপুর সদর থানার পুলিশের উপ-পরিদর্শক মো. কাউছার আহমেদ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন।

মাধবপুর (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি জানান, হবিগঞ্জের মাধবপুরে দ্রুতগামী মাইক্রোবাসের ধাক্কায় সুমন মিয়া (৫০) নামে এক মোটর সাইকেল আরোহী নিহত হয়েছেন। গতকাল সকাল ১১ টার দিকে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের মাধবপুর পৌর শহরের ফায়ার সার্ভিস এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত সুমন মিয়া উপজেলার বড়ধলিয়া গ্রামের ইয়াকুব আলীর ছেলে। মাধবপুর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আবুল কাশেম জানান, সুমন মিয়া ঢাকা সিলেট মহাসড়ক দিয়ে মাধবপুর বাজারে যাওয়ার পথে বিপরীত দিক থেকে আসা একটি দ্রুতগামী মাইক্রোবাস তাকে ধাক্কা দেয়। গুরুতর আহত অবস্থায় স্থানীয়রা মাধপবুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন। কিন্তু পথিমধ্যেই তার মৃত্যু হয়।
শেরপুর (বগুড়া) প্রতিনিধি জানান, বগুড়ার শেরপুরে আলুবোঝাই ট্রাক ও যাত্রীবাহী বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে ট্রাকের চালক ও হেল্পার নিহত হয়েছে। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও ১৫ জন। বুধবার দিবাগত রাত ১টার দিকে বগুড়া-ঢাকা মহাসড়কের চান্দাইকোন ররোয়া এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহতরা হলেন- বগুড়ার শাহজাহানপুর উপজেলার মাদলা-মালিতলা গ্রামের রবিউল ইসলামের ছেলে ট্রাকচালক ছানোয়ার হোসেন (৩৫) এবং একই গ্রামের হাফিজুর রহমানের ছেলে হেলপার মিন্টু মিয়া (৩৮)। আহতদের বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

চরফ্যাশন (ভোলা) প্রতিনিধি জানান, চরফ্যাশন-বেতুয়া সড়কের বদ্দার হাট সংলগ্ন স্থানে ট্রাকের নিচে পিষ্ট হয়ে আবদুর রশিদ ডাকুয়া (৭০) নামে একজন নিহত হয়েছেন। গতকাল দুপুরে এ ঘটনা ঘটে। নিহত আবদুর রশিদ ডাকুয়া আছলামপুর ৯নং ওয়ার্ডের মৃত কাশেম আলী ডাকুয়ার ছেলে। নিহতের ছেলে ফারুক জানান, কাজ শেষে বাড়ি ফেরার সময় শাকিল পরিবহন নামে একটি ইটবাহী ট্রাক পেছন থেকে এসে চাপা দিলে ঘটনাস্থলেই আবদুর রশিদের মৃত্যু হয়। চরফ্যাসন থানার ওসি মো.সামসুল আরেফীন জানান, ঘাতক ট্রাকসহ চালককে আটক করা হয়েছে। লাশ পুলিশ হেফাজতে আছে। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Sharing is caring!

Loading...
Open