সিলেটে মুক্তিযুদ্ধের স্মারক সংগ্রহশালা ৫ বছর পেরিয়ে এখনও শেষ হয়নি কাজ

সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার কমপ্লেক্সে মুক্তিযুদ্ধের স্মারক সংগ্রহশালা ও পাঠাগার চালুর কথা ছিলো ২০১৪ সালে।কিন্তু পাঁচ বছর পেরিয়ে গেলেও এখনও শেষ হয়নি এই কাজ।ফলে চালু হয়নি সংগ্রহশালা ও পাঠাগার।

সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার নির্মাণ ও ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে রয়েছে সিলেট সিটি করপোরেশন (সিসিক)। শহীদ মিনার কমপ্লেক্সে মুক্তিযুদ্ধের স্মারক সংগ্রহশালা ও পাঠাগারও নির্মাণ করছে এ প্রতিষ্ঠানটি। সংগ্রহশালা ও পাঠাগার নির্মাণ ও ব্যবস্থাপনার সহযোগিতায় সামাজিক ও সাংস্কৃতিক অঙ্গনের ব্যক্তিবর্গকে নিয়ে একটি কমিটি গঠন করেছিলো সিটি করপোরেশন। দীর্ঘদিনেও এটি বাস্তবায়িত না হওয়ায় সিসিক ও ওই কমিটির সদস্যরা একে অপরকে দোষারোপ করেছেন।

জানা যায় ২০১৪ সালের ডিসেম্বরে উদ্বোধন করা হয় সিলেটের নবনির্মিত কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার। এরআগে ২০১৩ সালের ২২ ফেব্রুয়ারি তৌহিদী জনতা’র ব্যানারে একটি মিছিল থেকে শহীদ মিনার ভাংচুর করা হয়।নতুন শহীদ মিনার নির্মাণকালে শহীদ মিনারের নিচে (আন্ডারগ্রাউন্ডে) তিন হাজার স্কয়ার ফুট জায়গায় ভাষা আন্দোলন ও মুক্তিযুদ্ধের স্মারক স্মৃতিচিহ্ন আলোকচিত্র সম্বলিত একটি সংগ্রহশালা এবং পাঠাগার করার উদ্যোগ নেওয়া হয়।২০১৪ সালের ডিসেম্বরে পুনর্নির্মিত শহীদ মিনার উদ্বোধন করা হলেও নানা অজুহাতে আটকে যায় সংগ্রহশালা ও পাঠাগার নির্মাণ কাজ।যা এখনও সম্পূর্ণ হয়নি।এই সংগ্রহশালা ও পাঠাগার নির্মাণের ব্যয় করা হয় ৩ কোটি টাকা। আজ পর্যন্ত এটি চালু না হওয়ায় এই টাকার খরচ নিয়েও প্রশ্ন উঠেছে।

২০১৪ সম্পূর্ণ কাজ শেষ না করেই উদ্বোধন করা হয়েছিলো সিলেট শহীদ মিনার। তখন সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা বলেছিলেন দ্রুততম সময়েই মধ্যেই শেষ করা হবে বাকী কাজ। তবে উদ্বোধনের আনুষ্ঠানিকতা শেষ হওয়ার পরই বন্ধ হয়ে পড়ে সংগ্রহশালা ও পাঠাগার নির্মাণের কাজ।

শহীদ মিনার কমপ্লেক্সের ভবনের দেয়াল চুইয়ে পানি ভেতরে ঢুকে পড়ে। তাই ত্রুটি না সারিয়ে এটি চালু করা যাবে না বলে তখন জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। এর প্রেক্ষিতে ২০১৭ সালে আবারও শুরু হয় পাঠাগার ও সংগ্রহশালা নির্মাণ কাজ। সেসময় সিসিকের তৎকালীন প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এনামুল হাবীব সিলেটটুডে টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেছিলেন,শহীদ মিনারের বাইরে কোন কাজ বাকী নেই। ভেতরে পাঠাগার ও সংগ্রহশালার কাজ চলছে। আগামী ২/৩ মাসের মধ্যে এই কাজ শেষ হবে।

Sharing is caring!

Loading...
Open

Close