খালেদা জিয়ার জামিন নাকচ নজিরবিহীন: খন্দকার মাহবুব

বয়স ও শারীরিক অসুস্থতা বিবেচনায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার জামিন আবেদন আপিল বিভাগ থেকে খারিজ হয়ে যাওয়াকে নজিরবিহীন বলে অভিহিত করেছেন বিএনপিপন্থি সিনিয়র আইনজীবী অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন।বৃহস্পতিবার (১২ ডিসেম্বর) দুপুর দেড়টার দিকে আপিল বিভাগে খালেদা জিয়ার জামিন আবেদন খারিজের পর এক প্রতিক্রিয়ায় তিনি এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, এই মামলায় (জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলা) সাত বছরের সাজা পেয়েছিলেন খালেদা জিয়া। এর মধ্যে তিনি দেড় বছরের সাজা খেটেছেন। তিনি বয়স্ক, অসুস্থ। তার উন্নত চিকিৎসা দরকার। এ অবস্থাতেও যে তার জামিন আবেদন সুপ্রিম কোর্ট নাকচ করবেন, তা নজিরবিহীন। শুধু বাংলাদেশ নয়, আমাদের পার্শ্ববর্তী দেশেও এ ধরনের জামিন আবেদন নাকচ করে দেওয়ার নজির নেই।

খন্দকার মাহবুব বলেন, খালেদা জিয়া পঙ্গু অবস্থায় আছেন। তার উন্নত চিকিৎসা দরকার। শুধু এই মেডিকেল গ্রাউন্ডেই নয়, তার বয়স, অসুস্থতা সবকিছু বিবেচনায় নিয়েই আমরা জামিনের আবেদন করেছিলাম। কিন্তু আদালত আমাদের দরখাস্ত নাচক করে দিয়েছেন। মেডিকেল বোর্ডের রেকর্ডে যেভাবে আছে, সেভাবে তার চিকিৎসা করার কথা বলেছেন।

আপিল বিভাগ থেকে জামিন আবেদন নাকচ করে দেওয়ায় এই মামলায় খালেদা জিয়ার জামিন পাওয়ার আর কোনো আইনি প্রক্রিয়া বাকি রয়েছে কি না— জানতে চাইলে এই আইনজীবী বলেন, আইনি প্রক্রিয়া থাকবে। যতদিন আইনজীবীরা আছেন, ততদিন আইনি প্রক্রিয়াও থাকবে। দেখেন, কী হয়।খালেদা জিয়ার আরেক আইনজীবী সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীন প্রতিক্রিয়া জানিয়ে বলেন, আমরা আমাদের পক্ষ থেকে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করেছিলাম। আমরা আশা করেছিলাম, আদালত আমাদের কথা শুনে জামিন দেবেন। এর আগেও যেভাবে অন্যদের জামিন হয়েছে, সেভাবেই আমরা সাবমিশন করেছিলাম। কিন্তু আদালত আমাদের আবেদন খারিজ করে দিয়েছেন।

খালেদা জিয়ার চিকিৎসার বিষয়ে আদালত কিছু বলেছেন কি না— জানতে চাইলে তিনি বলেন, খালেদা জিয়ার চিকিৎসায় গঠিত মেডিকেল বোর্ডকে তার যথাযথ চিকিৎসা দিতে বলেছেন। এটা খুব মামুলি একটি বিষয়।এই মামলার পরবর্তী আইনি প্রক্রিয়া বিষয়ে তিনি বলেন, পরবর্তী সময়ে এ বিষয়টি দেখা যাবে।

Sharing is caring!

Loading...
Open