গোয়াইনঘাট পুলিশের অভিযানে অস্ত্র মামলার আসামি জালাল আটক

গোয়াইনঘাট প্রতিনিধি :: গোয়াইনঘাটের সীমান্ত এলাকার ভারতীয় চোরাকারবারিদের মূলহোতা অস্ত্র মামলার আসামি জালাল উদ্দিনকে আটক করেছে থানা পুলিশ। আটক জালাল উদ্দিনের বিরুদ্ধে গোয়াইনঘাট থানায় অস্ত্র মামলা ও ভারতীয় চোরাচালানের অভিযোগ রয়েছে।

উক্ত অভিযোগের ভিত্তিতে শনিবার বিকালে উপজেলার সোনারহাট এলাকা থেকে থানার এসআই জুনেলের নেতৃত্বে অভিযান চালিয়ে তাকে আটক করা হয়।

জানা যায়, গত ১০ সেপ্টেম্বর) দিবাগত রাতে থানা পুলিশের অভিযানে উপজেলার রুস্তুমপুর ইউনিয়নের কুলুম ছড়ারপাড় সাদ্দামের বাড়ি থেকে ২টি বিদেশি রিভলবারসহ নোয়াগাঁও কুরি গ্রামের মৃত ওয়াতির আলীর ছেলে আরব আলী (৪০)-কে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। এরপর তাকে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরন করে।অস্ত্র আইনে একটি মামলা দায়ের করা হয়। যার মামলা নং(১৫/১৯)।

সূত্রে জানা গেছে, সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি আবদুস শহীদ ও উপজেলা যুবদলের যুগ্ম আহবায়ক আনছার মিয়াকে গত ৫ সেপ্টেম্বর দুটি অস্ত্র নিয়ে ঢাকায় গিয়ে যাত্রাবাড়িতে পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) এর ইউনিটের সদস্যদের হাতে আটক হন। তারা দুইজনই গোয়াইনঘাটের জালালের ঘনিষ্টজন ছিলেন। শহীদ ও আনছার প্রায় জালালের বাড়িতে আসা যাওয়া করতেন।

আরব আলীর পরিবার সূত্রে জানা গেছে, গত ১ সেপ্টেম্বর সোনারহাট সীমান্তের লাখাট বাজারে আরব আলী ও জালালে মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। ওই সময় জালাল আরব আলীকে বলছিলেন তোকে যে কোন কিছুর বিনিময় হলেও আমি দেখে নিবো। যার ফলে সুনামগঞ্জের ঐ দুই স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতা ছিলেন জালালের বেশ কাছের লোক। বিদায় জালাল এদের দিয়ে আরব আলীকে অস্ত্র মামলায় ফাঁসিয়েছেন। এমনকি আরব আলী আটকের পর জালাল উদ্দিন পলাতক ছিলেন।

কিন্তু গোয়াইনঘাট থানা পুলিশের দীর্ঘ সঠিক তদন্তে শেষ রক্ষা হয়নি জালালের। এ বিষয়ে গোয়াইনঘাট থানার ইন্সপেক্টর তদন্ত হিল্লোল রায় জালাল উদ্দিনকে আটকের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

Sharing is caring!

Loading...
Open

Close