অনিয়মের অভিযোগ প্রমাণিত, প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা

হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলার শিয়ালউড়ি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক তাজুল ইসলামের বিরুদ্ধে উঠা অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় তার বেতন ভাতা বন্ধ করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এ ছাড়াও তার বিরুদ্ধে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসকে ব্যবস্থা গ্রহণ করতে বলা হয়েছে।

বিদ্যালয়ের উন্নয়ন কার্যক্রমে অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় তাঁর বিরুদ্ধে এ ব্যবস্থা নেওয়া হয়। গত ১ ডিসেম্বর (রোববার) রাতে সিলেটটুডে২৪ডটকমে সংবাদ প্রকাশের পর মঙ্গলবার বিকেলে তার বিরুদ্ধে এ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়।

মাধবপুর উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা দ্বিজেন্দ্র চন্দ্র আচার্য সিলেটটুডে২৪ডটকমে এ তথ্য নিশ্চিত করে জানান, এ-সংক্রান্ত দুইটি চিঠি সোনালী ব্যাংক লিমিটেড কর্তৃপক্ষকে ও জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসকে পাঠিয়ে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য বলা হয়েছে।

তিনি আরও জানান, বিদ্যালয়টি পরিদর্শনে গিয়ে অনেক বিষয়ে অসঙ্গতি পাই। পরিদর্শন বহিতে আমরা এরকমই নোট দিয়ে এসেছি। এসব বিষয়ে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে।

এর আগে শিয়ালউড়ি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক তাজুল ইসলামের বিরুদ্ধে বিদ্যালয়ের উন্নয়ন কার্যক্রমে অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ তোলেন অভিভাবক, গ্রামবাসী ও বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সদস্যরা। তারা অভিযোগ তুলেন, প্রতিবছর সরকার রুটিন মেইটেনেন্স, স্লিপ ও ক্ষুদ্র মেরামতসহ বিদ্যালয়ের উন্নয়নে আর্থিক বরাদ্দ দিলেও একটি ভবন রং করা ছাড়া আর কোন উন্নয়ন হয়নি বিদ্যালয়টির। বাকী টাকারও কোন হদিস নাই।

এমন অভিযোগ উঠার পর শিক্ষা কর্মকর্তা স্কুল পরিদর্শনে গেলে শিক্ষা কর্মকর্তাকেও সরকারি বরাদ্দকৃত অর্থ ব্যয়ের হিসাব দেখাতে পারেনি প্রধান শিক্ষক। এ বিষয়ে বিভিন্ন সময় পরিদর্শন বইতে উল্লেখ করেছেন দ্বায়িত্বরত কর্মকর্তাগণ।

এ নিয়ে গত রোববার সিলেটটুডে২৪ডটকমে ‘মাধবপুরে প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগ’ শিরোনামে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়।

তবে এ ব্যাপারে শিয়ালউড়ি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক তাজুল ইসলাম বলেন, বিদ্যালয়ে সকল কাজ চলমান আছে। আস্তে আস্তে সব কাজ করবো। বিদ্যালয়ের পরিদর্শন বই এবং হিসাব ভাউচার আমি বাড়িতে নিয়ে রেখেছি।

Sharing is caring!

Loading...
Open

Close