সিলেট জেলা ও মহানগর যুবদলের কর্মী সভা


বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী যুবদল সিলেট জেলা ও মহানগর শাখার কর্মীসভা বুধবার বেলা ২টায় নগরীর সোবহানীঘাটস্থ আগ্রা কমিউনিটি সেন্টারে অনুষ্ঠিত হয়।

কর্মীসভায় সভাপতির বক্তব্যে সিলেট জেলা যুবদলের সাবেক সভাপতি (ভারপ্রাপ্ত) ইকবাল বাহার চৌধুরী বলেন, একজন নব্য ব্যাবসায়ী ব্যক্তির মদদে যুবদলের প্রকৃত ত্যাগী নেতাকর্মীদের বাদ দিয়ে পকেট কমিটি গঠন করা হয়েছে। যারা দুঃসময়ে দলের জন্য কাজ করেছে, আন্দোলন করেছে, বারবার কারাবরণ করেছে তাদেরকে মূল্যায়ন না করে অযোগ্যদের দিয়ে কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটি গঠনে সিলেটের স্থানীয় যুবদলের নেতাকর্মীদের মতামত গ্রহণ করা হয়নাই। জেলা ও মহানগর বিএনপির পদবীধারী নেতাদের দিয়ে যুবদলের কমিটি গঠন করা হয়েছে। যা যুবদল নেতাকর্মীদের জন্য চরম হতাশা জনক। তিনি বলেন, এখন নেতাকর্মীরা দেশনেত্রীকে মুক্তি আন্দোলনে ব্যস্ত থাকার কথা কিন্তু অবৈধ পকেট কমিটি দিয়ে নেতাকর্মীদের আন্দোলন বিমুখ করে নেত্রীর মুক্তির পথ বন্ধ করার ষড়যন্ত্রের বহি:প্রকাশ হলো যুবদলের পকেট কমিটি।

যুবদল নেতা শফি আহমদ খান ও টিটন মল্লিকের পরিচালনায় সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন ও বক্তব্য রাখেন- জেলা যুবদলের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক সাদিকুর রহমান সাদিক, কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সাবেক সহ সভাপতি মাহবুবুল হক চৌধুরী, ছাত্রদলের সাবেক কেন্দ্রীয় সহ সাংগঠনিক সম্পাদক শাকিল মুর্শেদ, সাবেক সিলেট মহানগর ছাত্রদল নেতা আব্দুস সামাদ তুহেল, জেলা ছাত্রদলের সাবেক সহ সভাপতি জয়দেব চক্রবর্তী জয়ন্ত, জেলা যুবদল নেতা ও সাবেক ছাত্রনেতা শফিকুর রহমান টুটুল, কামরুজ্জামান দীপু, আলা উদ্দিন আলাই, মন্তাজ হোসেন মুন্না, জয়নাল আবেদীন, আজিজুল হোসেন, তছির আলী, অর্পন কুমার ঘোষ, নুরুল আলম বাবলু, সাহেদ আহমদ, হাজী মামুন আল রশিদ হেলাল, মুহিবুর রহমান মহির, রুহেল আহমদ রয়েল, আব্দুর রউফ, আলী আহমদ, সাকিল আহমদ খান, মন্টু কুমার নাথ, রুনু আহমদ, আব্দুল মজিদ, মাহবুব আলম, রুমেল আহমদ, দিলদার হোসেন শামীম, বাবুল মিয়া, আঙ্গুর আলম, মোজাম্মেল আলম সাদ্দাম, ফয়ছল কামরান হেলন, মিজানুর রহমান ভুইয়া, নজমুল হোসেন, চমক আলী, সাব্বির আহমদ চৌধুরী, মিজানুর রহমান মিজান, রুহেল খান, দুলাল আহমদ, সৈয়দ তারেক, বেলাল আহমদ খান, শামীম আহমদ, রওশন খান, সমর আলী, খসরুজ্জামান, কামাল আহমদ, জিয়াউর রহমান জিয়াব, জামিল আহমদ, আব্দুল মুকিত সুমেল, হাবিবুর রহমান হাবিব, রফিক উদ্দিন, আব্দুস সালাম, গোলাম কিবরিয়া, আব্দুল মান্নান, শাহাজাহান রশিদ সাজু, ইন্তেজার আলী, রুবেল আহমদ রানা, রহমত আলী রকিব, আনোয়ার খান, অজয় দাস, সাজু আহমদ কালাই, রুস্তম আলী ফরাজী, হারুন রশিদ, তোতা মিয়া পাখি প্রমুখ।

সভায় বক্তারা বলেন, সিলেটে যুবদলকে ধ্বংস করতে একটি চক্র ষড়যন্ত্র চালাচ্ছে। নিজের বলয় তৈরী করতে কট্টর গ্রুপিংয়ের মাধ্যমে অযোগ্যদের দিয়ে যুবদলের কমিটি অনুমোদন করিয়েছেন। যার ফলে ত্যাগী কর্মীরা মুল্যায়িত হয়নি। এভাবে কমিটি হলে সিলেটে যুবদলের রাজনীতি ধ্বংসের মুখে পড়বে। বক্তারা বলেন, আওয়ামী এজেন্টরা সিলেট যুবদলের ঐক্য বিনষ্ট করেছে।

কর্মী সভা শেষে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান দেশনায়ক তারেক রহমানের ৫৫তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষ্যে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। দোয়া মাহফিলে শহীদ জিয়াউর রহমান ও মরহুম আরাফাত রহমান কোকোর মাগফেরাত কামনা করে, বিএনপি চেয়ারপার্সন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া ও ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সুস্থতা ও দীর্ঘায়ূ কামনা করে মোনাজাত করা হয়।বিজ্ঞপ্তি

Sharing is caring!

Loading...
Open