সৌদি আরবে ১২ বছরের কিশোরীকে গৃহকর্মী হিসেবে প্রেরণ, চলছে তোলপাড়

সৌদি আরবে আমাদের নারীকর্মী পাঠানো নিয়ে যখন চলছে তুমুল বির্তক ঠিক সে সময়ই ১২ বছরের এক কিশোরীকে গৃহকর্মী হিসেবে সৌদি আরবে প্রেরণ করার তথ্য বেরিয়ে এসেছে। বিষয়টি নিয়ে চলছে তোলপাড়।
একজন নারীকর্মী বিদেশ যেতে হলে বিমানবন্দর পার হওয়া থেকে শুরু করে অনেকগুলো ধাপ অতিক্রম করতে হয়।
এর মধ্যে অন্যতম হলো মেডিকেল পরীক্ষা করা এবং বয়সের বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া। এই মেয়েটি তা হলে এই সব পরীক্ষা কীভাবে উত্তীর্ন হলো এ নিয়ে প্রশ্ন থেকে যায়।

ধারণা করা হচ্ছে কোন জনশক্তি এজেন্ট সবকিছু ম্যানেজ করে কিশোরীটিকে গৃহকর্মী হিসাবে সৌদিতে প্রেরণ করেছে।
পররাষ্ট্রমন্ত্রনালয় এবং আমাদের দূতাবাসসমুহ প্রবাসীদের কল্যাণে যুগান্তকারী পদক্ষেপ নেয়ার পরও তাদেরকে অনেকে অভিযুক্ত করেন।তারা দোষ দিয়ে বলেন, দূতাবাস আমাদের মহিলা কর্মীদের সুরক্ষার জন্য কিছুই করছে না।

অতি সম্প্রতি পররাষ্ট্রমন্ত্রীর একটি বক্তব্যকে মিডিয়াতে ভিন্নভাবে উপস্থাপন করে তাকে বিতর্কিত করার চেষ্টা করা হয়েছে।
সংযুক্ত আরব আমিরাত সফর নিয়ে ব্রিফিং কালে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছিলেন,বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ৬ লাখ নারী শ্রমিকের মধ্যে ২ লাখ ২০ হাজার কর্মরত আছেন সৌদিতে। এর মধ্যে মাত্র ৮ হাজার নারী ফিরে এসেছেন এবং তাদের মধ্যে ৫৩ জন সেদেশে মারা গেছেন। সংখ্যার হিসেবে এটা বড় কিছু নয়, যা আনুপাতিক হারে খুবই নগণ্য। অথচ কিছু কিছু মিডিয়া লিখেছে- ‘পররাষ্ট্রমন্ত্রী নাকি বলেছেন ৫৩ জন নারীর মৃত্যু কিছুই না’।

বাংলাদেশের উন্নয়নে এবং ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করার লক্ষ নিয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন দায়িত্ব গ্রহনের পর থেকে সারা বিশ্বে চষে বেড়াচ্ছেন। এক দেশের সফরের ক্লান্তি দূর হবার আগে আরেক দেশে দৌড়াচ্ছেন। প্রবাসীদের কল্যাণে নিয়েছেন বাস্তবধর্মী নানা পদক্ষেপ। চালু করেছেন ‘দূতাবাস’ নামক অ্যাপস। বাংলাদেশের ইতিহাসে ড. মোমেনই এক মাত্র পররাষ্ট্রমন্ত্রী যিনি কোন প্রবাসীর সমস্যা জানা মাত্র সেটা সমাধান করেন।অথচ এ ধরনের একজন মহান মানুষের বক্তব্যকে খন্ডিত করে প্রকাশ বা প্রচার যারা করেছেন তারা আর যাই করেন কাজটি ভালো করেননি। এ ধরনের মতলবি সাংবাদিকতা বস্তুনিষ্ঠ সাংবাদিকতার নীতির মধ্যে পড়ে না।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. মোমেন বর্তমানে প্রধানমন্ত্রীর সাথে আরব আমিরাত সফরে রয়েছেন। সেখান থেকে তিনি দৈনিকসিলেটডটকমকে জানান, সৌদিতে ১২ বছরের কিশোরীকে গৃহকর্মী হিসেবে প্রেরণের সাথে যারা যারা যুক্ত তদন্ত করে তাদেরকে আইনের আওতায় নিয়ে আসা হবে। তিনি এব্যপারে সাংবাদিকদের সহযোগিতা কামনা করেন।

Sharing is caring!

Loading...
Open

Close