ফেঞ্চুগঞ্জের নারী ভাইস চেয়ারম্যানের অপসারণ দাবি ৫ ইউপি চেয়ারম্যানের

ফেঞ্চুগঞ্জ প্রতিনিধি:: সিলেটের ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলার নারী ভাইস চেয়ারম্যান সেলিনা ইয়াসমিনের অপসারণ দাবি করেছেন এই উপজেলার ৫ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানরা। নারী ভাইস চেয়ারম্যানকে অপসারণ করা না হলে উপজেলা পরিষদের কোনো সভায় অংশ নেবেন না বলেও জানিয়েছেন এই ইউপি চেয়ারম্যানরা।

বৃহস্পতিবার ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বরাবরে এক লিখিত অভিযোগপত্রে এমন দাবি জানান ইউপি চেয়ারম্যানরা।

উপজেলার পাঁচ ইউপি চেয়ারম্যান লেইস চৌধুরী, সুফিয়ানুল করিম, কাজী বদরুদ্দোজা, আহমেদ জিলু ও এমরান আহমেদ সাক্ষরিত পত্রে অভিযোগ করা হয়, উপজেলার নারী ভাইস চেয়ারম্যান সেলিনা ইয়াসমিন বিভিন্ন সময় বিতর্কিত কর্মকাণ্ডের জন্ম দিয়েছেন। দায়িত্ব গ্রহণের পর থেকে নানা ভাবে সমালোচিত হচ্ছেন। গত ৫ নভেম্বর নারী ভাইস চেয়ারম্যান সেলিনা ইয়াসমিন উপজেলার কৃষি সভায় অনুপ্রবেশ করে ঝগড়া করেন মাইজগাঁও ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সুফিয়ানুল করিমের সাথে। সেই সাথে সুফিয়ানুল করিমের বিরুদ্ধে ঘটনার রাতে ফেঞ্চুগঞ্জ থানায় জিডিও করেন। জিডি নং ২৩৩। এরপরের দিন সেলিনা ইয়াসমিন তার ফেইসবুক একাউন্টে আপত্তিকর একটি পোস্ট শেয়ার করে আবারো সমালোচনায় আসেন। এর আগে নারী ভাইস চেয়ারম্যান শপথ গ্রহণের দিন ধর্মানুভুতিতে আঘাত করে বক্তব্য বলেন, ফেঞ্চুগঞ্জের মানুষ ধর্ম মানে না।

চেয়ারম্যানগণ আরো অভিযোগ করেন, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান সেলিনা ইয়াসমিন ঘিলাছড়া এলাকার সরকারি গাছ চুরির ঘটনায় চোরদের পক্ষ নিয়ে তৎকালীন ফেঞ্চুগঞ্জের এসিল্যান্ডের সাথে আলাপ করেন। যার ভয়েস রেকর্ড ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়ে। এরপরে ফেঞ্চুগঞ্জে জঙ্গি নেই কিন্তু জঙ্গির শিকড় আছে এমন বক্তব্য দিয়ে আবারো সমালোচনা সৃষ্টি করেন।

এসব অভিযোগের উল্লেখ করে চেয়ারম্যানরা বলেন, নারী ভাইস চেয়ারম্যান সেলিনা ইয়াসমিনের উপযুক্ত বিচার ও অপসারণ না হওয়া পর্যন্ত তারা উপজেলা পরিষদের কোন সভায় অংশ নিবেন না।

এ ব্যাপারে ফেঞ্চুগঞ্চ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নুরূল ইসলামের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি অভিযোগ পাওয়ার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, আগামী সপ্তাহে বিষয়টি দেখবো।

Sharing is caring!

Loading...
Open

Close