নুহাশপল্লিতে হুমায়ূন আহমেদ জাদুঘর করা হবে

মেহের আফরোজ শাওন বলেছেন, নুহাশপল্লিতে হুমায়ূন আহমেদ জাদুঘর নির্মাণ করা হবে। এই জাদুঘরের স্থান নির্বাচন ও নকশা করা হয়েছে। হুমায়ূন আহমেদের ৭১তম জন্মদিন বুধবার সকালে সাংবাদিকদের তিনি এ কথা বলেন।

এ সময় শাওন বলেন, অর্থাভাবে নয়, উদ্যোক্তার অভাবে হুমায়ূন আহমেদ ক্যান্সার হাসপাতাল বাস্তবায়ন হচ্ছে না। ক্যান্সার হাসপাতাল অনেক বিশাল ব্যাপার, বিশাল দায়িত্ব। আমার একার পক্ষে এ দায়িত্ব নেওয়া সম্ভব না। হুমায়ূন আহমেদের পরিবারের পক্ষ থেকে সম্মিলিত উদ্যোগ ছাড়া এটা বাস্তবায়ন করা যাবে না।

তিনি আরও বলেন জন্মদিনে ভক্ত-অনুরাগী আর দর্শনার্থীর পদচারণায় মুখর পুরো নুহাশপল্লি প্রাঙ্গণ। তবে তুলনামূলকভাবে দর্শনার্থী কম।

সকাল ১০টার দিকে মেহের আফরোজ শাওন ছেলে নিষাদ ও নিনিতকে সঙ্গে নিয়ে সমাধিতে ফুলেল শ্রদ্ধা জানান। এরপর লেখকের আত্মার শান্তি কামনা করে কবর জিয়ারত ও মোনাজাত করেন। পরে ভক্ত-অনুরাগী ও এলাকার লোকজনকে সঙ্গে নিয়ে কেক কেটে বাবার জন্মদিন পালন করে দুই ছেলে।নুহাশপল্লির কর্মকর্তা-কর্মচারীরাও প্রিয় লেখকের সমাধিতে ফুলেল শ্রদ্ধা জানান।

এরআগে মঙ্গলবার রাত ১২টা এক মিনিটে সীমানা প্রাচীর ঘেঁষে ৭১টি মোমবাতি প্রজ্বলনের পর শুরু হয় জন্মদিনের আনুষ্ঠানিকতা।

এদিকে হুমায়ূন আহমেদের জন্মদিন উপলক্ষে হিমু পরিবহনের সদস্যরা নুহাশপল্লিতে যান।ম্যানেজার সাইফুল ইসলাম বুলবুল বলেন, স্যার যেভাবে তার জন্মদিন পালন করতে পছন্দ করতেন আমরাও ঠিক সেভাবেই পালন করেছি।

ওদিকে নুহাশপল্লির বৃষ্টিবিলাসের বারান্দায় আয়োজন করা হয় গাছের শেকড় দিয়ে তৈরি ভাস্কর আসাদুজ্জামান খানের চতুর্থ একক শিল্পকর্ম প্রদর্শনী। হুমায়ূন আহমেদের সান্নিধ্যে থাকা আসাদ খান গত এক যুগেরও বেশি সময় ধরে নানা জাতের গাছের শেকড় বা গোড়া দিয়ে বিচিত্র সব শিল্পকর্ম সৃষ্টি করেছেন। প্রদর্শনীতে ৭১টি শিল্পকর্ম স্থান পেয়েছে।

Sharing is caring!

Loading...
Open