বাস ধানক্ষেতে পড়ে নিহত ৩ চালকের হাতে ছিল সিগারেট কানে মোবাইল!

শনিবার বিকেলে সিলেট-জকিগঞ্জ সড়কের বাবুরবাজারে একটি যাত্রীবাহী বাস ধানক্ষেতে পড়ে মা-মেয়েসহ ৩ জন নিহত হন। এতে আহত হন আরও ২৫ জন। দুর্ঘটনাকবলিত ওই বাসের চালক দুর্ঘটনার সময় মোবাইল ফোনে কথা বলছিলেন ও সিগারেট ফুঁকছিলেন বলে জানা গেছে।

শনিবার বিকেলে সিলেট থেকে ছেড়ে যাওয়া ওই বাসটি গন্তব্যস্থল জকিগঞ্জ বাস স্টেশনে পৌঁছানো মাত্র ৭ কিলোমিটার আগে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ধানক্ষেতে পড়ে যায়।

এই দুর্ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী ও দুর্ঘটনা কবলিত বাসের একাধিক যাত্রী জানান, দুর্ঘটনার সময় বাসের চালক উন্তাই মিয়ার এক হাতে ধরা ছিল গাড়ির স্টিয়ারিং, অন্য হাতে কানে মোবাইল ফোন ধরে কথা বলছিলেন। স্টিয়ারিং ধরা হাতটিতে ছিলো জ্বলন্ত সিগারেট। দুর্ঘটনার আগের মুহূর্তে বেপরোয়া গতিতে বাসটি চালাচ্ছিলেন তিনি।

এদিকে, দুর্ঘটনার পর থেকেই চালক পলাতক রয়েছেন বলে জানিয়েছে পুলিশ।

জকিগঞ্জ বাস মালিক সমিতির ম্যানেজার সুমন আহমদ জানান, দুর্ঘটনাকবলিত বাসটি শনিবার রাতেই ধানক্ষেত থেকে উদ্ধার করে থানায় নিয়েছে পুলিশ। বাস মালিক সমিতির শাখা সভাপতি মো.আবুল মুহিতসহ নেতৃবৃন্দের উপস্থিতিতে বাসটির ফিটনেস যাচাই করা হয়েছে। বাসটির সকল কাগজপত্রই ডিজিটাল। যান্ত্রিক ত্রুটি পাওয়া যায়নি। কী কারণে দুর্ঘটনা ঘটেছে তা পরিবহন নেতৃবৃন্দ এখনো খুঁজে বের করতে পারেননি।

জকিগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মীর মো.আব্দুন নাসের বলেন, এ ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে একটি মামলা করেছে। নিহতদের লাশ রোববার দাফন করা হয়েছে। বাসের যাত্রীদের অভিযোগ, দুপুর একটায় সিলেট থেকে ছেড়ে আসলে বিকেল ৩টায় জকিগঞ্জ পৌঁছার কথা। অতিরিক্ত যাত্রী বহনের জন্য বিভিন্ন স্টেশনে নির্দিষ্ট সময়ের বেশি ব্যয় করে সময় মতো গন্তব্যে না পৌঁছতে পেরে জকিগঞ্জের কাছাকাছি এসে দ্রত গতিতে বাসটি চালাচ্ছিলেন চালক। বিকেল চারটার সময় ঘটে দুর্ঘটনাটি।

 

Sharing is caring!

Loading...
Open