স্মরনোৎসবে গিয়ে মঞ্চে লাঞ্চিত হয়ে যা বললেন জেবুন্নেছা হক

সিলেটে রবীন্দ্র স্মরনোৎসবে গিয়ে লাঞ্চিত হয়েছেন জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি,সাবেক সংসদ সদস্য,সৈয়দা জেবুন্নেছা হক। বৃহস্পতিবার সিলেট জেলা স্টেডিয়ামে রবীন্দ্র স্মরনোৎসবের সমাপনী অনুষ্ঠানে এই ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান,রবীন্দ্র স্মরেনোৎসবের সমাপনী অনুষ্ঠানে মঞ্চের প্রথম সারীতে আগেই আসন গ্রহণ করে নেন সৈয়দা জেবুন্নেছা হক। একই সারিতে বসা ছিলেন সিলেট-৩ আসনের সংসদ সদস্য মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী কয়েছ । এরই মধ্যে মঞ্চে আসন গ্রহণ করেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি সিলেট-১ আসনের সংসদ সদস্য ও পররাস্ট্রমন্ত্রী ড.একে আবদুল মোমেন এমপি। এসময় মঞ্চে থাকা এমপি কয়েছ চৌধুরী নিজ আসন ছেড়ে দিয়ে পররাস্ট্রমন্ত্রীর বসার জন্য চেয়ারটি ছেড়ে দেন। তখনও মঞ্চের চেয়ারে বসে থাকেন জেবুন্নেছা হক৷

এ অবস্থায় রবীন্দ্র স্মরনোৎসব উদযাপন কমিটির আহবায়ক ও অনুষ্ঠানের সভাপতি সাবেক অর্থমন্ত্রী মুহিত উঠে এসে কথা বলেন সৈয়দা জেবুন্নেসা হকের সাথে।তিনি রাগান্বিত হয়ে এ সময় জেবুন্নেছাকে বলেন উঠো উঠো৷এখান থেকে চলে যাও৷এসময় জেবুন্নেছা হক কেঁদে বলেন আল্লাহ এর বিচার করবেন৷এসময় আবার মুহিত বলেন যাও চলে যাও৷

এব্যাপারে সৈয়দা জেবুন্নেছা হকের কাছ থেকে বিষয়টি জানতে চাইলে তিনি বলেন,তিনি রাজনৈতিক কোনো লোক নন।আজ সিলেটের জেলা এবং মহানগরের কোনো শীর্ষ নেতা উপস্থিত থাকলে ও আমাকে এমনভাবে কেউই বলতেননা।ছাত্র রাজনীতি করে মাঠে-ময়দানে লড়াই সংগ্রামের মধ্য দিয়ে মুজিবাদর্শের রাজনীতিতে জীবন কাটিয়েছি।দু:খ ভারাক্রান্ত হৃদয়ে তিনি বলেন,জীবনের শেষ বয়সে এমন ভরামঞ্চে এমন অপমান কোনো অরাজনৈতিক ব্যক্তির কাছ থেকে আমার প্রাপ্তি ছিলোনা।

কথা বলতে গিয়ে এক সময় তিনি ঢুঁকড়ে কেঁদে উঠেন এবং এ বিষয়ে আর কথা বলতে চাননা বলে ফোন লাইন কেটে দেন।

মুঠোফোনে ফোন দিলে উনার মেয়ে সিসিক কাউন্সিলর এডভোকেট সালমা সুলতানা বলেন উপস্থিত সবাইকে জিজ্ঞেস করে দেখেন তারা বলতে পারবেন সেখানে কি হয়েছিল৷আমি এখন কথা বলতে পারব না৷আমার মা অসুস্থ হয়ে গেছেন৷

Sharing is caring!

Loading...
Open