বরফের উপর দিয়ে বয়ে যাচ্ছে ‘রক্তস্রোত’ !

সুরমা টাইমস ডেস্ক:: পৃথিবীকে ঘিরে রয়েছে একাধিক রহস্য৷ যেগুলিকে ঘিরে মানুষের আগ্রহ প্রবল থাকলেও সেই সমস্ত রহস্যের সমাধান সবসময় হয়ে ওঠেনা৷ তবে এবারে প্রকাশ্যে এল কয়েক শতকের পুরোনো আন্টার্টিকার রক্তস্রোতের রহস্যটি৷ যেটি স্থানীয় ভাষায় ‘ব্লাড-ফলস্’ নামেই পরিচিত৷

এই রক্তস্রোতের বিষয়টি নিয়ে প্রথম রহস্যের সমাধান করেন এক অস্ট্রেলিয়ান ভূবিজ্ঞানী৷ তিনি একটি থিওরির মাধ্যমে পুরো বিষয়টি বুঝিয়ে দিয়েছেন৷ তিনি বলেন, এই রক্তস্রোতটি মূলত লাল শ্যাওলা থেকেই সৃষ্টি হয়েছে৷

২০০৩ সালে এই বিষয়টি নিয়ে প্রথম গবেষনা শুরু হয়৷ এই গবেষনায় উঠে এসেছে এই আন্টার্টিকা হ্রদের জলের রং লাল হওয়ার মূল কারণ এই জলে মিশে রয়েছে অক্সিডাইজড লোহা৷ পাঁচ মিলিয়ন বছর ধরে নোনা জলের হ্রদের সঙ্গে এই অক্সিডাইজড লোহা মিশে গিয়ে এই জলের রং লাল রং ধারণ করেছে৷ আলাস্কা বিশ্ববিদ্যালয় এবং কলরাডো কলেজে এই রক্তস্রোত নিয়ে গবেষণা চলছে৷

এক মিলিয়ন বছর ধরে এই হ্রদ থেকে প্রবাহিত নোনা জল বরফের নীচে অক্সিডাইজড লোহার সঙ্গে মিশে লাল রং ধারণ করেছে৷ ইকোলোকেশন প্রযুক্তির মাধ্যমে বিজ্ঞানীরা এই জলের উৎস খোঁজার চেষ্টায় রত রয়েছেন৷ ‘গ্রিড লাইক প্যাটার্নস’-এর মাধ্যমে এই নির্দিষ্ট জায়গাটিতে সংকেত প্রেরণ করা হত৷ এই বিষয়টির পিছনে থাকা আসল রহস্যটি বের করার জন্য৷

গবেষকেরা বলেন, এই হিমবাহের নিজস্ব জলের ব্যবস্থা রয়েছে৷ এই হিমবাহের নীচে চাপা পড়ে বরফ, নোনা জল একসঙ্গে মিশে গিয়েই এখানে শ্যাওলার সৃষ্টি হয়েছে৷ আর তার জন্যই এই লেকের জল রক্তের রং ধারণ করেছে৷

Sharing is caring!

Loading...
Open

Close