দেশের ৩৩০ তম পৌরসভা হলো সিলেটের বিশ্বনাথ

বিশ্বনাথ প্রতিনিধি :: দেশের ৩৩০ তম পৌরসভা হিসেবে অনুমোদন পেলো সিলেটে বিশ্বনাথ। প্রশাসনিক পুনর্বিন্যাসসংক্রান্ত জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটি (নিকার) সোমবার (২১শে অক্টোবর) এ অনুমোদন দেয়। এদিন তেজগাঁওয়ে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে এ সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

এর আগে ২০১৮ সালের ২১শে মে বিশ্বনাথ পৌরসভা গঠনের লক্ষে গেজেট প্রকাশ করা হয়েছিল। স্থানীয় সরকার ও উন্নয়ন সমবায় মন্ত্রণালয় স্থানীয় সরকার বিভাগ পৌর-২ শাখা থেকে বিশ্বনাথ পৌরসভা বাস্তবায়নের লক্ষে শহর হিসেবে গেজেট প্রকাশ করা হয়।

বাংলাদেশ গেজেট রেজিস্টার নং ডি এ-১ প্রকাশিত বিশ্বনাথ উপজেলার ৫টি ইউনিয়নের ২২টি মৌজা নিয়ে প্রকাশিত এ গেজেটে রয়েছে, বিশ্বনাথ ইউনিয়নের আহমেদাবাদ মৌজা, পূর্ব জানাইয়া মৌজা, বিদাইলসুপানি মৌজা, কানাইপুর মৌজা, মজলিস ভোগশাইল মৌজা, চান্দসিরকাপন মৌজা, মিরেরচর মৌজা, মশুলা মৌজা, সেনারগাঁও মৌজা, ধোপাখোলা মৌজা, তাজপুর মৌজা।

দেওকলস ইউনিয়নের আলাপুর মৌজা, ধোপাখোলা মৌজা, দত্তা। অলংকারী ইউনিয়নের পূর্ব জানাইয়া, কামালপুর, ভাগমতপুর, অলংকারী। দৌলতপুর ইউনিয়নে দূযার্কাপন, চরচন্ডি। রামপাশা ইউনিয়নের পশ্চিম জানাইয়া, মশুললা।

জানা গেছে, বিশ্বনাথ পৌরসভা বাস্তবায়নের দাবিতে ১৯৯৭ সালের প্রথম দিকে তৎকালীন আওয়ামী লীগ সরকারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মরহুম আবদুস সামাদ আজাদের কাছে অনুরোধ জানানো হয়। তৎকালীন সময়ে স্থানীয় রামসুন্দর হাইস্কুলের মাঠে এক জনসভায় তিনি বিশ্বনাথকে আনুষ্ঠানিকভাবে পৌরসভা ঘোষণা করেন। কিন্তু আওয়ামী লীগ সরকারের মেয়াদকালীন সময়ে তা আর বাস্তবায়ন হয়নি।

অবশেষে ২০০২ সালের ১৪ই জুলাই মহামান্য রাষ্ট্রপতির আদেশক্রমে উপসচিব (পৌর) রুহুল আমীন সরকার এক প্রজ্ঞাপন জারির মাধ্যমে বিশ্বনাথ ইউনিয়নের ৮টি মৌজার উল্লেখ যোগ্য কিছু এলাকা নিয়ে বিশ্বনাথ পৌরসভার গেজেট পাশ করা হয়। তবে, বিগত ১৩ বছরের মধ্যে কাজের কাজ কিছুই হয়নি। অবশেষে ২০১৫ সালে আগের প্রজ্ঞাপন বাতিল করে সাবেক সংসদ সদস্য ইয়াহহিয়া চৌধুরী এহিয়ার অনুরোধে পুনরায় খসড়া প্রস্তাব তৈরি করে সংশ্লিষ্ট দপ্তরে পাঠানো হয়।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বর্ণালী পাল বলেছেন ঢাকায় অনুমোদনের বিষয়টি তিনি শুনেছেন কিন্তু অফিসিয়েলী তিনি এখনও জানেন না।

Sharing is caring!

Loading...
Open