‘প্রেমের টানে’ বাংলাদেশে ভারতীয় গৃহবধূ !

জৈন্তাপুর প্রতিনিধি :: সিলেটের জৈন্তাপুরে টিপরাখলা সীমান্ত থেকে ১ ব্যক্তিসহ শতাধিক গরু ধরে নিয়ে গেছে ভারতীয় খাসিয়ারা। এ ঘটনায় দু’দেশের নাগরিকদের মধ্যে টান টান উত্তেজনা বিরাজ করছে। সতর্ক অবস্থানে রয়েছে বিজিবি।

মঙ্গলবার (১৫ই অক্টোবর) দুপুর আনুমানিক ২টায় এমনটা ঘটে বলে জানা যায় স্থানীয় বিজিবি সূত্রে।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, শনিবার (১২ই অক্টোবর) জৈন্তাপুর উপজেলার নিজপাট ইউনিয়নের টিপরাখলা সীমান্তের বাসিন্ধা হারিছ উদ্দিনের ছেলে ও ১সন্তানের জনক ফিরোজ মিয়া(৩৮) ভারতের এসপিটিলা এলাকার হেওয়াইবস্তির বাসিন্ধা চংকর খাসিয়া’র স্ত্রী ও ৫সন্তানের জননীকে প্রেমের সুবাধে বাংলাদেশে নিয়ে এসে দু’জনে আত্মগোপন করেন।

এঘটনাকে কেন্দ্র করে জৈন্তাপুর উপজেলার জৈন্তাপুর সীমান্তের ১২৮৮নং আন্তর্জাতিক পিলার এলাকায় দু’দেশের পতাকা বৈঠক হয় এবং বৈঠকে ২দিনের মধ্যে উক্ত ভারতীয় খাসিয়া নারীকে ফেরত দেওয়ার আশ্বাস দেয়া হয়। কিন্তু ফিরোজসহ তার প্রেমিকাকে কোথাও খুঁজে পাওয়া না যাওয়ায় ফেরত দেওয়া সম্ভব হয়নি।

ফিরোজের পরিবারের সাথে বিষয়টি নিয়ে আলাপকালে তারা জানান, ঘটনার দিন হতে তাকে(ফিরোজ) কোথায় খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। তারা আরও জানান, সে বাংলাদেশে না অন্য কোথাও আছে তাও তাদের জানা নেই।

এদিকে দু’জনের আত্নগোপনের ঘটনার ২দিন পেরিয়ে যাওয়ার পরও ভারতীয় ওই খাসিয়া নারীকে ফেরত না দেওয়ায় মঙ্গলবার দুপুরে ১২৮৮নং আন্তর্জাতিক পিলারের ৩এস হতে ৬এস পিলার এলাকা দিয়ে ভারতীয় হেওয়াই বস্তির খাসিয়ারা বাংলাদেশ সীমান্তে প্রবেশ করে টিপরাখলা গ্রামের তজম্মুল আলীর ছেলে আব্দুন নুর(৪৫)কে জিম্মিসহ প্রায় শতাধিক গরু ধরে নিয়ে যায় সীমান্তের অপারে।

এ ঘটনার খবর পেয়ে তৎক্ষণাৎ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন, ১৯বিজিবি’র জৈন্তাপুর ক্যাম্পের ক্যাম্প কমান্ডার আব্দুল কাদির, নিজপাট ইউপি সদস্য মনসুর আহমদ ও আব্দুল হালিম।

বাংলাদেশী নাগরিকসহ গরু ধরে নিয়ে যাওয়া এবং খাসিয়া নারীকে ফিরিয়ে না দেওয়াকে কেন্দ্র করে জৈন্তাপুরের টিপরাখলা সীমান্তে দু-দেশের নাগরিকদের মধ্যে চাপা উত্তেজনা বিরাজ করছে। যে কোন মুহূর্তে উত্তেজনা চরম আকার ধারন করার সম্ভাবনা রয়েছে বলে আশঙ্কা করছেন স্থানীয়রা।

এব্যাপারে ১৯বিজিবি’র জৈন্তাপুর ক্যাম্প কমান্ডার আব্দুল কাদির বলেন, আমরা শনিবারের (১২ই অক্টোবর) ঘটনার পর ভারতীয় বিএসএফ’এর মধ্যস্থতায় খাসিয়াদের সাথে আলাপ করে ২দিনের মধ্যে ভারতীয় নারীকে ফিরিয়ে দেওয়ার আশ্বাস দেই। তারা আমাদের কথা গুরুত্বের সাথে আমলে নেন। কিন্তু ফিরোজের পরিবার আমাদের কথা না রাখায় ভারতীয় খাসিয়ারা উত্তেজিত হয়ে বাংলাদেশ সীমান্তে প্রবেশ করে আব্দুন নুরসহ বেশ কিছু গরু ধরে নিয়ে যায়।

তিনি আরও বলেন, বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হয়েছে। পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে এবং খাসিয়ারা যাতে বাংলাদেশীদের গরু ধরে নিতে না পারে সে জন্য সীমান্তে টহল জোরদার করা হয়েছে।

Sharing is caring!

Loading...
Open

Close