ইউপি চেয়ারম্যান তৈয়ব কামালীর বিরুদ্ধে লালনের অপপ্রচার


সুরমা টাইমস ডেস্কঃ  জগন্নাথপুর উপজেলার সৈয়দপুর-শাহারপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের সুনামধন্য চেয়ারম্যান সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য তৈয়ব মিয়া কামালীর বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রকারীদের মিথ্যা অপপ্রচারে বিভ্রান্ত না হওয়ার জন্য সর্বমহলের প্রতি আহবান জানিয়েছেন মিথ্যা হয়রানীর শিকার ঐতিহ্যবাহী শাহারপাড়া গ্রামের কৃতিসন্তান শিক্ষানুরাগী দানশীল ব্যক্তিত্ব তৈয়ব মিয়া কামালী।

তিনি জানান,এই ধরনে চরম দায়িত্বজ্ঞানহীন জঘন্য মিথ্যাচার হয় সেটা শুধু অপ্রত্যাশিত ও অনাকাঙ্ক্ষিত নয় এটা রাজনৈতিক শিষ্টাচারের প্রতি জঘন্য আঘাত বলে আমি মনে করি ব্যক্তিগত রেশা রেশীকে কেন্দ্র করে চক তিলক (লালারচক) গ্রামের বাসিন্দা আবুল হোসেন লালন রাজনৈতিক ভাবে মিথ্যা অপপ্রচার চালিয়ে বিভ্রান্তি ছড়িয়ে আমাকে হেয় প্রতিপন্ন করার অপচেষ্টায় লিপ্ত রয়েছে।

আমি সুশৃংখল রাজনৈতিক সংগঠন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সুনামগঞ্জ জেলা শাখার কার্য নির্বাহী কমিটির সদস্য হিসেবে উপজেলা এবং জেলায় দলীয় প্রতিটি কার্যক্রমে আমার সক্রিয় অংশ গ্রহন রয়েছে।জানা যায়,পড়ালেখায় থাকাকালীন যুক্তরাজ্যে পাড়ি জমান ইউনিয়নের শাহারপাড়া (নারায়নপুর) গ্রামের বাসিন্দা চেয়ারম্যান তৈয়ব মিয়া কামালী।

সেখানে ব্যবসা করার পাশাপাশি কমিউনিটি রাজনীতিতে নিজেকে সম্পৃক্ত করেন তিনি। পাশাপাশি দেশে অবস্থানরত অসহায় ও দরিদ্র জনগোষ্ঠীর কল্যাণে কার্যক্রমও চালিয়ে যান।তিনি দীর্ঘদিন ধরে এলাকার উন্নয়নে কাজ করে আসছেন। গেল ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন আসার পূর্ব থেকে তৈয়ব মিয়া কামালীর সঙ্গে জগন্নাথপুর উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আবুল হোসেন লালনের সখ্যতা দেখা যায়। দলীয় প্রতীক প্রদানের পূর্বে লালন সটকে যান।অভিযোগ আছে সুবিধা না দেওয়ায় তিনি সটকে যান।

এরপর থেকে একে একে সহজ সরল প্রকৃতির ব্যক্তি তৈয়ব মিয়া কামালীর বিরুদ্ধে গভীর ষড়যন্ত্র শুরু করতে থাকেন।একের পর এক অপপ্রচার ও মিথ্যাচার করে যাচ্ছেন অবিরত।জনগণের সেবার লক্ষ্যে গত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে এলাকাবাসীর সমর্থন নিয়ে স্বতন্ত্র থেকে নির্বাচিত হন। নির্বাচন করার পূর্বে স্থানীয় উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আবুল হোসেন লালন চেয়ারম্যান তৈয়ব মিয়া কামালীর কাছ থেকে বিভিন্ন ভাবে সুবিধা নেন এবং তাকে নৌকা পায়িয়ে দিতে আওয়ামী লীগের সর্বোচ্চ জায়গায় নিয়ে যান।

তবে ব্যক্তিগত বিরোধ এরমধ্যে লেগে যায়। তারপর পর চেয়ারম্যানের বিরোধী হয়ে যান। এরপর লালন সখ্যতা গড়ে তুলেন চেয়ারম্যানের প্রতিদ্বন্দ্বী (বিরোধী) আবুল হাসানের সঙ্গে। যিনি নৌকা প্রতিকে নির্বাচন করে চেয়ারম্যান তৈয়ব মিয়া কামালীর সঙ্গে পরাস্ত হয়েছেন।

স্থানীয় সূত্রে জানাযায়, বিগত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে তৈয়ব কামালী চেয়ারম্যান প্রার্থী হওয়ার পূর্ব থেকেই জগন্নাথপুর উপজেলা যুবলীগের সাধারন সম্পাদক আবুল হোসেন লালনের হৃদ্বতাপূর্ন সম্পর্কের সৃষ্টি হয়।অত্যন্ত পরিকল্পিত ও সুচিন্তিতভাবে জঘন্যরকমের অপপ্রচারে লালন মেতে উঠেছে। এসব করতে গিয়ে তারা সমস্ত স্বাধীন চিন্তা, মুক্ত চিন্তা, বাক স্বাধীনতাকে হরণ করেছেন।কেউ গুজবে কান দেবেন না, মিথ্যা অপপ্রচারে কেউ বিভ্রান্ত হবেন না।

সেটাই আমি সকলকে বলব,যাই দেখেন শোনেন আগে যাচাই করে নেবেন। যাচাই না করে যেন কোন কিছু করবেন না। ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে দলীয় প্রতীক বরাদ্দের পর আবুল হোসেন লালন তৈয়ব কামালীর কাছ থেকে দূরে সরে যান। চেয়ারম্যানের ঘনিষ্টজনরা জানান, আর্থিক সুবিদা না পাওয়ায় আবুল হোসেন লালন চেয়ারম্যান তৈয়ব কামালীর সঙ্গ ত্যাগ করে এরপর থেকেই সহজ সরল বিনয়ী প্রকৃতির সামাজিক ন্যায় পরায়ন ব্যক্তি তৈয়ব মিয়া কামালীর বিরুদ্ধে অব্যাহত ভাবে গভীর ষড়যন্ত্র এবং মিথ্যাচারে লিপ্ত রয়েছেন।এদিকে শৈশব কৈশোরের শিক্ষা অর্জনের ফাঁকে যুক্তরাজ্যে পাড়ি জমান চেয়ারম্যান তৈয়ব মিয়া কামালী।

সেখানে সুনামের সাথে ব্যবসার পাশাপাশি কমিউনিটি রাজনীতিতে নিজেকে জড়িয়ে রাখেন। তিনি প্রবাসে অবস্থান করলেও মাতৃভূমি ও নিজ এলাকার প্রতি ছিল টান। তিনি মাঝে মধ্যে প্রবাস থেকে দেশে ফিরে নিজ এলাকা সহ বিভিন্ন এলাকার অসহায় দরিদ্র লোকজনদের সহায়তার পাশাপাশি বিভিন্ন ধর্মীয় প্রতিষ্টানের উন্নয়নে কাজ করছেন। বিগত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে এলাকাবাসীর সমর্থন নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী থেকে বিপুল ভোটে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন তৈয়ব মিয়া কামালী।

চেয়ারম্যান তৈয়ব মিয়া কামালীর ঘনিষ্টজনরা আরো জানান, আবুল হোসেন লালন বিগত সময়ে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দীতা করে বিপুল ভোটের ব্যবধানে আবুল হাসানের সাথে পরাজিত হয়। বিগত জেলা পরিষদ নির্বাচনে সদস্য পদে প্রতিদ্বন্দীতা করে আবুল হোসেন লালন পরাজিত হওয়ার পর থেকে চেয়ারম্যান তৈয়ব মিয়া কামালীর সাথে বিরোধের সৃষ্টি হয়। এর পর থেকেই আবুল হোসেন লালন চেয়ারম্যান তৈয়ব মিয়া কামালীর বিরুদ্ধে আরো বেশী ক্ষুব্দ হয়ে চেয়ারম্যান তৈয়ব মিয়া কামালীর বিরুদ্ধে অব্যাহত ভাবে অপপ্রচার চালিয়ে সুনাম ক্ষুন্ন করার অপচেষ্টায় লিপ্ত হন।

সম্প্রতি আবুল হোসেন লালন নিজের ব্যক্তিগত বিরোধকে রাজনৈতিক দলের মধ্যে নিয়ে আসেন এবং নাটক সাজিয়ে চেয়ারম্যান তৈয়ব মিয়া কামালীর বিরুদ্ধে কিছু লোককে বিভ্রান্ত করে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে চেয়ারম্যান তৈয়ব মিয়া কামালীকে ‘অবাঞ্ছিত’ ঘোষণা করেন। যা হাস্যকর ঘটনা বলে এলাকার সচেতন মহল মন্তব্য করেছেন।

তবে এধরনের সভায় ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি সৈয়দ লাল মিয়া, ইউনিয়ন যুবলীগের আহ্বায়ক সৈয়দ আকবর আলী সহ ইউনিয়নের শীর্ষ অনেক নেতৃবৃন্দ সভায় ছিলেন না। ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি সৈয়দ লাল মিয়া সহ নেতৃবৃন্দরা মন্তব্য করেছেন তাদের ব্যক্তিগত দ্বন্ধকে রাজনীতিতে নিয়ে আসা ঠিক হয়নি। ইউনিয়ন যুবলীগের আহ্বায়ক সৈয়দ আকবর আলী জানান,

জেলা আওয়ামী লীগ নেতা চেয়ারম্যান তৈয়ব মিয়া কামালী ও উপজেলা যুবলীগ সেক্রেটারী আবুল হোসেন লালনের আভ্যন্তরীন দ্বন্ধ রাজনৈতিক ভাবে নিয়ে আসা দলীয় শৃঙ্খলা পরিপন্থি কাজ। এছাড়াও উপজেলা আওয়ামী লীগের বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক কুদ্দুস মিয়া কামালী বিগত সময়ে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন করে পরাজিত হন।

আগামী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে তৈয়ব মিয়া কামালী যাতে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্ধীতা করতে না পারেন সে জন্য তারা আগে থেকেই মিথ্যা অপপ্রচার চালিয়ে জনসাধারনকে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছেন। ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি সৈয়দ লাল মিয়া জানান, সম্প্রতি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের কোন সভা হয়নি। আবুল হোসেন লাল তার ব্যক্তিগত আক্রোশে জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য চেয়ারম্যান তৈয়ব মিয়া কামালীকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করা হয়েছে যা দলীয় গঠনতন্ত্র বিরোধী। এটা ষড়যন্ত্রের অংশ বিশেষ। এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান।

Sharing is caring!

Loading...
Open