জগন্নাথপুর-সিলেট সড়কে ভোগান্তি চরমে

জগন্নাথপুর-সিলেট সড়কে আবারো ভাঙনে ট্রাক ধেবে আটকে যাওয়ায় দীর্ঘ যানজটে আটকা পড়ে যাত্রী-জনতার ভোগান্তি চরমে পৌছেছে।
২৯ সেপ্টেম্বর রোববার ভোররাতে জগন্নাথপুর-সিলেট সড়কের জগন্নাথপুর সিলেটী বাস স্ট্যান্ড এলাকায় সড়ক ভাঙনের গর্তে পড়ে একটি মালবাহী ট্রাক ধেবে আটকে যায়। ধেবে যাওয়া ট্রাকটি উদ্ধারে বারবার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হওয়ায় দিন ব্যাপী এ সড়ক দিয়ে কোন প্রকার বড় গাড়ি চলাচল করতে পারেনি। এতে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়। যে কারণে দুর পাল্লার যাত্রী-জনতা অনাকাঙ্খিত

ভোগান্তির শিকার হন। যদিও ধেবে যাওয়া ট্রাকের পাশ দিয়ে কোন রকমে ঝুকি নিয়ে ছোট ছোট যানবাহন চলাচল করছে। জানতে চাইলে জগন্নাথপুর উপজেলা প্রকৌশলী (এলজিইডি) গোলাম সারোয়ার বলেন, সড়কের ভাঙনে মেরামত কাজ করার ব্যবস্থা হচ্ছে।এছাড়া-গত প্রায় ২ বছর ধরে জগন্নাথপুর-সিলেট সড়কটি বেহাল দশায় পরিণত হয়। সড়কে ছোট-বড় গর্ত হয়ে যানবাহন চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। প্রায়ই এসব গর্তে ভারি যানবাহন ধেবে গিয়ে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়। অনেক আন্দোলন করেও কাজ হচ্ছে না। এ সড়কে গাড়ি চালাতে গিয়ে সারাক্ষণ আতঙ্কে থাকেন চালকরা। কখন ঘটে দুর্ঘটনা। যাত্রী-জনতাও ভোগান্তির

শিকার হতে হতে অভ্যাস হয়ে গেছে। ভোগান্তির শেষ কোথায় কেউ জানেন না। সড়ক মেরামতের দাবিতে ধর্মঘট সহ আন্দোলন করতে করতে প্রতিবাদ কারীরা এখন প্রতিবাদের ভাষা হারিয়ে ফেলেছেন। ভাঙাচোরা সড়কের প্রতিবেদন লিখতে লিখতে স্থানীয় সাংবাদিকরা হয়রান হয়ে গেছেন। কর্তৃপক্ষ বারবার আশার বাণী শোনালেও বাস্তবে সড়কে মেরামত কাজ শুরু হচ্ছে না।

শুধু ভাঙনের গর্তে সামান্য জোড়াতালির কাজ করে কোন রকমে যানবাহন চলাচলের ব্যবস্থা করে দেয়া হয়ে থাকে। এভাবেই চলছে জগন্নাথপুর-সিলেট সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থা। নিজ চোখে না দেখলে অথবা ভোগান্তির শিকার না হলে কেউ তা বিশ^াস করবেন না।

Sharing is caring!

Loading...
Open