বড়লেখায় কলেজছাত্র প্রান্ত হত্যা: প্রধান আসামিকে বাদ দিয়ে চার্জশীট

বড়লেখা প্রতিনিধি:: মৌলভীবাজারের বড়লেখায় চাঞ্চল্যকর কলেজছাত্র প্রান্ত চন্দ্র দাস (১৮) হত্যা মামলায় পিবিআইয়ের (পুলিশ ব্যুরো ইনভেস্টিগেশন) দাখিলকৃত চার্জশীটের বিরুদ্ধে নারাজি দিয়েছেন মামলার বাদী নিহতের বড়ভাই শুভ দাস। দাখিলকৃত চার্জশীটে মূল আসামিদের বাদ দেওয়াসহ ১৩টি অসঙ্গতি তুলে ধরে বাদিপক্ষের আইনজীবি গত ১৮ই সেপ্টেম্বর আদালতে নারাজি পিটিশন দাখিল করেন। গত ২২শে সেপ্টেম্বর এ নারাজি পিটিশনের শুনানী শেষে বিজ্ঞ আদালত মামলাটি অধিকতর তদন্তের জন্য পুলিশের এএসপি (কুলাউড়া) সার্কেলকে নির্দেশ দিয়েছেন।

জানা গেছে, গত বছরের ৩১শে অক্টোবর উপজেলার বর্ণি ইউপির মিহারী নয়াগ্রামের পিসির (ফুফুর) বাড়ির একটি পরিত্যক্ত ঘরের জানালার গ্রিলে মুখ বাঁধা ও দাঁড় করানো অবস্থায় কলেজছাত্র প্রান্ত দাসের লাশ পাওয়া যায়। সে উপজেলার সুজানগর ইউপির বাঘমারা গ্রামের সানত দাসের ছেলে। পিসির বাড়িতে থেকে সে কলেজে লেখাপড়া করতো। পিসির বাড়ির লোকজন প্রান্ত দাস আত্মহত্যা করেছে প্রচার করায় লাশ উদ্ধারের পর থানায় অপমৃত্যু মামলা রুজু হয়। পরবর্তীতে ময়না তদন্ত প্রতিবেদনে হত্যার প্রমাণ পাওয়ায় নিহত প্রান্ত দাসের বড়ভাই শুভ দাস ৫ জনের বিরুদ্ধে থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। গত ১২ই নভেম্বর থানা পুলিশ প্রধান আসামী সুমন চন্দ্র দাস সহ ৫ আসামীকে গ্রেফতারের পর আদালতে সোপর্দ করে রিমান্ড চায়। ৫ দিনের রিমান্ড শেষে প্রধান আসামী সুমন চন্দ্র দাস বড়লেখা আদালতের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট হরিদাস কুমারের খাস কামরায় প্রান্ত হত্যার দায় স্বীকার করে। পরে এ হত্যা মামলাটি পিবিআইতে স্থানান্তরিত হয়। গত ১৮ই জুন পিবিআই (পুলিশ ব্যুরো ইনভেস্টিগেশন) পুলিশের তদন্ত কর্মকর্তা এসআই শিবিরুল ইসলাম নিহতের পিসাতো দাদা সুমন দাস ও বৌদি নিভা রানী দাসের বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন।

বাদি পক্ষের আইনজীবি অ্যাডভোকেট দীপক কুমার দাস জানান, হত্যা মামলার চার্জশীটে মূল আসামীদের বাদ দেওয়াসহ ১৩টি অসঙ্গতি তুলে ধরে নারাজি পিটিশন দিলে বিজ্ঞ আদালত তা আমলে নিয়ে অধিকতর তদন্তের জন্য পুলিশের এএসপি (কুলাউড়া) সার্কেলকে নির্দেশ দিয়েছেন।

Sharing is caring!

Loading...
Open

Close