গোলাপগঞ্জ চন্দরপুরের ফলিক খানের সশ্রম কারাদন্ডের আদেশ

ফাইল ছবি

সিলেটের গোলাপগঞ্জ উপজেলার আমেরিকা প্রবাসী কথিত আওয়ামী লীগ নেতা ফলিক উদ্দিন খান ওরফে খান ফলিকের সশ্রম কারাদন্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত।পাশপাশি জরিমানা অনাদায়ে অতিরিক্ত আরো ২ মাসের সশ্রম কারাদন্ড দিয়েছেন আদালত।রোববার সিলেটের চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট কাউসার আহমেদ এক জনাকীর্ন আদালতে সন্ত্রাসী হামলা মামলায় এ রায় ঘোষনা

করেন।এ সময় ফলিক খান পলাতক থাকায় তার বিরুদ্ধে সাজা পরোয়ানাও জারি করেন আদালত।দন্ডপ্রাপ্ত ফলিক উদ্দিন খান ওরফে খান ফলিক সিলেটের গোলাপগঞ্জ থানার লামা চন্দরপুর গ্রামের মৃত আপ্তাব আলীর ছেলে ও আমেরিকা প্রবাসী।মামলার বিবরণে প্রকাশ নিজ গ্রামে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে ২০১৬ সালের ৫ জুন একই গ্রামের লিয়াকত আলী খানের উপর সন্ত্রাসী হামলা

চালান ফলিক উদ্দিন খান ও তার সহযোগীরা।এ সময় ফলিক খান ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে লিয়াকতকে গুরুতর জখম করেন।এ ঘটনায় আহত লিয়াকত আলী খানের ভাই মো.জিলাল উদ্দিন খান সিলেটের গোলাপগঞ্জ থানায় ১৯(৬)১৬ নং মামলা দায়ের

করেন। একই বছরের ২৭ অক্টোবর ফলিক খান ও তার সহযোগীদের বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশিট দাখিল করে পুলিশ।এ মামলায় ফলিক খান ও তার দুই সহযোগী কিছুদিন জেল খাটার পর জামিনে মক্তি পান।মামলাটি জিআর ১১৬/১৬ নং মামলা করে বিচারের জন্য সিলেটের চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে প্রেরিত হয়।বিচারে সাক্ষ্য-প্রমানে আসামী ফলিক উদ্দিন খানের বিরুদ্ধে

সন্ত্রাসী হামলা ও গুরুতর আহত করার অপরাধ প্রমানিত হওয়ায় আদালত তাকে দু’বছরের সশ্রম কারাদন্ড প্রদান করেন।পাশপাশি ৩ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে অতিরিক্ত আরো ২মাসের সশ্রম কারাদন্ড দিয়েছেন আদালত।আদালত সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়

রায়ের জন্য ধার্য তারিখ রোববার ফলিক খান আদালত গেলে গোপন সূত্রে সাজার খবর পেয়ে হাজিরা না দিয়েই পালিয়ে যান।পরে আদালত তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারী সাজা পরোয়ানা জারি করেন।বাদী পক্ষে মামলাটি পরিচালনা করেন সিনিয়র আইনজীবি

অ্যাডভোকেট দেলোয়ার হোসেন দিলু অ্যাডভোকেট আব্দুল খালিক এবং আসামী পক্ষে মামলা পরিচালনা করেন অ্যাডভোকেট দিলওয়ার আল আজহার ও অ্যাডভোকেট খোর্শেদ আলম। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন এপিপি বিপ্লব কান্তি দেয় মাধব।সিলেট জেলা বারের সিনিয়র আইনজীবি অ্যাডভোকেট দেলোয়ার হোসেন দিলু এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।বিজ্ঞপ্তি

Sharing is caring!

Loading...
Open