পিযুষকে ওসমানী হাসপাতালে ভর্তি,উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় প্রেরণের’ সুপারিশ

মাদক ও অস্ত্র মামলায় সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগারে থাকা সিলেট জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি পিযুষ কান্তি দে-কে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।শুক্রবার তাকে ওসমানীতে ভর্তি করা হয়।

উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ঢাকায় নিয়ে যাওয়ার জন্য ওসমানীর চিকিৎসকরা সুপারিশ করেছেন বলে জানা গেছে।

আটকের পর বুধবার পিযুষকে আদালতে হাজির করা হলে জেল সুপারের মাধ্যমে জেল হাসপাতালে তার চিকিৎসা নিশ্চিতের নির্দেশ দেন আদালত।তবে পিযুষের অবস্থা খারাপ হওয়ায় শুক্রবার তাকে ওসমানী হাসপাতালে ভর্তি করা হয় বলে জানান সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগারের সিনিয়র জেল সুপার আব্দুল জলিল।এদিকে পিযুষ কান্তি দে’র আইনজীবী প্রবাল চৌধুরী পূজন বলেন,

পিযুষ মেরুদণ্ডে আঘাতপ্রাপ্ত হয়েছেন।আটকের পর হেফাজতে থাকাকালীন অবস্থায় তারা অসুস্থ হয়ে পড়েন।উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ঢাকায় প্রেরণ করতে শনিবার সুপারিশ করেন ওসমানীর চিকিৎসকরা।গত বুধবার সন্ধ্যায় সিলেট নগরীর মির্জাজাঙ্গাল এলাকায় পিযুষের আস্তানা ঘেরাও করে ৩ সঙ্গীসহ পিযুষকে আটক করে র‍্যাব।আটক অন্যরা হলেন- বাপ্পা পাল মন্টি রায় ও

রায়হান খান।এসময় তাদের কাছ থেকে একটি রিভলভার রামদা এবং ৫ হাজার ৫৪০ পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয় বলে জানানো হয়।পরদিন বৃহস্পতিবার সকালে পিযুষসহ ৪ জনের বিরুদ্ধে অস্ত্র ও মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা দিয়ে কোতোয়ালি মডেল থানায় হস্তান্তর করে র‍্যাব।বিকেলে আদালতের মাধ্যমে তাদের কারাগারে প্রেরণ করে পুলিশ।

পিযুষের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসী চাঁদাবাজি অস্ত্রবাজিসহ বিভিন্ন অভিযোগ রয়েছে।সর্বশেষ গত ৬ আগস্ট জিন্দাবাজারে পাঁচ ভাই রেস্টুরেন্টের সামনে তিন প্রবাসীকে মারধরের অভিযোগ ওঠে পিযুষ অনুসারী ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে।

তবে শনিবার সন্ধ্যায় সিলেটে আয়োজিত জেলা ও মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের এক অনুষ্ঠানে পিযুষকে ফাঁসানো হয়েছে দাবি করে তার মুক্তি দাবি করেন আওয়ামী লীগ ও স্বেচ্ছাসেবক লীগে স্থানীয় ও কেন্দ্রীয় নেতারা।বিজ্ঞপ্তি

Sharing is caring!

Loading...
Open